Alexa
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

জেলহত্যা এত বছরেও রাষ্ট্রীয় দিবস নয়- এর চেয়ে বড় দুর্ভাগ্য কি?

আপডেট : ০৩ নভেম্বর ২০২২, ১৮:৪৬

সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামান। আজ ৩ নভেম্বর। স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে কলঙ্কতম অধ্যায়ের এক বেদনাবিধুর দিন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এক রক্তাক্ত অভ্যুত্থানের মাধ্যমে হত্যা করা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও পরিবারবর্গকে। ঠিক একই বছরের ৩ নভেম্বর গভীর রাতে কারাগারের অভ্যন্তরে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতাকে। মানব সভ্যতার ইতিহাসে এ এক নিষ্ঠুর বর্বরতম অধ্যায়।

কিন্তু প্রশ্ন আসে, কেন এই নির্মমতম জঘন্য জিঘাংসার পথ বেছে নিল খুনিরা। উত্তর খুঁজে পেতে আমাদের বিগত পঞ্চাশ বছরের ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকাতে হবে। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারবর্গ নির্মম হত্যাযজ্ঞের শিকার হন, যে লক্ষ্য নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল, সেই লক্ষ্য থেকে পুরোপুরি উল্টো দিকে বাংলাদেশকে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য। ঠিক একই কারণেই বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত চার সহকর্মী, জাতীয় চার নেতাকে কারাগারের অভ্যন্তরে হত্যা করা হয়। হত্যাকারীরা প্রথমে গুলি চালিয়ে নেতাদের হত্যা করে এবং পরে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

জাতি আজ বিনম্র শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে আমাদের চার জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এ এইচ এম কামরুজ্জামান এবং ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এই চার জাতীয় নেতা। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অত্যন্ত জটিল ও সংঘাতপূর্ণ। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগরে সৈয়দ নজরুল ইসলামকে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ও তাজউদ্দীন আহমদকে প্রধানমন্ত্রী করে যে মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকার গঠন করা হয়। সেই সরকারই মুক্তিযুদ্ধের সফল সমাপ্তি ঘটায়। দীর্ঘ নয় মাস সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করি। কিন্তু এই নয় মাসের ঘটনাপ্রবাহ বিশ্লেষণ করলে পাওয়া যাবে পরতে পরতে চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্রের সব উদাহরণ। কিন্তু ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত অত্যন্ত দূরদর্শিতার সঙ্গে মোকাবেলা করে প্রতিবেশী ভারত ও তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নকে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে একাত্ম রেখে আমাদের স্বাধীনতা অর্জনের পথ প্রশস্ত করেন এই চার নেতা।

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, খুনি মোশতাক মুক্তিযুদ্ধকালীন পাকিস্তানের সঙ্গে কনফেডারেশন করার জন্য বিভিন্ন সময় উদ্যোগ গ্রহণ করেন। মোশতাক কখনোই বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতাকে আদর্শিকভাবে ও নেতৃত্বের আসনে মেনে নিতে পারেননি। কিন্তু জাতির দুর্ভাগ্য ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু যখন বীরের বেশে নিজ দেশের মাটিতে পদার্পণ করলেন নিজেও কাঁদলেন, জাতিকেও কাঁদালেন সেই সময় থেকেই মোশতাক বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে মিশে যান। মোশতাক এতই ধূর্ত এবং প্রবঞ্চক ছিলেন যে, ১৪ আগস্ট রাতেও তিনি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বঙ্গবন্ধুকে নানাভাবে তোষামোদ করার চেষ্টা করেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জাতীয় চার নেতাকে কারাগারে অন্তরীণ করা হয়। সেই সঙ্গে অন্তরীণ করা হয় হাজার হাজার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীকে। খুনি মোশতাকের নেতৃত্বে গঠিত হয় এক পুতুল সরকার। কিন্তু ১৯৭৫ সালের নভেম্বরের প্রথম দিন থেকে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত কার্যত বাংলাদেশে কোনো সরকার ছিল না। মোশতাকের পেছনে ছিল মূল চক্রান্তকারী জিয়া। নিজেকে সম্পূর্ণ আড়াল রেখে এ সব ঘটনাপ্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করেছেন ক্ষমতালিপ্সু জিয়াউর রহমান।

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত দীর্ঘ ২৪ বছরের অধিকাংশ সময় বঙ্গবন্ধু ছিলেন কারাগারে। আমরা যে তৃণমূলের কথা বলি সেই তৃণমূল আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বঙ্গবন্ধুর এই বিশ্বস্ত চার সহকর্মীসহ অন্য নেতারা। আওয়ামী লীগ ঘোষিত মুক্তির সনদ ছয় দফা যা পরবর্তী সময় এক দফায় রূপলাভ করে। সেই আন্দোলনকে বেগবান করেছে এবং বিজয়ী করেছে এই জাতীয় নেতারা এবং তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ।

মূলত খুনি মোশতাকের চক্রান্তেই বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভা থেকে এক পর্যায়ে তাজউদ্দীন আহমদকে পদত্যাগ করতে হয়। খুনি মোশতাক এবং পরবর্তী সময় তার সহযোগীরা ক্রান্তিকালে যারা বঙ্গবন্ধুকে নিঃশর্ত সমর্থন দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং বিশ্বাসকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন এবং আমাদের স্বাধীনতা অর্জনের পথ প্রশস্ত করেছেন তাদের অধিকাংশকে বঙ্গবন্ধুর থেকে দূরে চলে যেতে বাধ্য করা হয়। 

আজ প্রশ্ন জাগে, জাতীয় চার নেতাকে অন্তরীণ করা হলেও যারা খুনি মোশতাকের মন্ত্রিসভায় শপথ নিয়েছিলেন তারা কি শুধু প্রাণের ভয়েই শপথ নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার আগে ১৯৭৪ সালে কৃত্রিম দুর্ভিক্ষ তৈরি করা হয়েছিল। এই কৃত্রিম দুর্ভিক্ষ তৈরি করে মূলত পাক-মার্কিন গোষ্ঠী এবং এ দেশে তাদের ক্রীড়নকরা। বঙ্গবন্ধু যখন দেশকে রাজনৈতিকভাবে স্থিতিশীল অবস্থায় নিয়ে আসার চেষ্টা করছিলেন তখন ওই ক্রীড়নকরা কৃত্রিম দুর্ভিক্ষ তৈরি করে এবং বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পথ প্রশস্ত করে। বঙ্গবন্ধু সপরিবারে নিহত হলেন। জাতীয় চার নেতাকে অন্তরীণ করা হলো। কিন্তু ওই ক্রীড়নকরা কেউ অন্তরীণ হননি। এই অন্তরীণ না হওয়ার মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাওয়া যাবে।

জেলহত্যা দিবস রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনসহ তিন দফা দাবিতে স্পিকারকে স্মারকলিপি দিয়েছেন জাতীয় চার নেতার অন্যতম তাজউদ্দীন আহমদের ছেলে ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমদ সোহেল তাজ। তাঁর অন্য দুটি দাবি হচ্ছে, ১০ এপ্রিল বাংলাদেশ সরকার গঠনের দিনটিকে 'প্রজাতন্ত্র দিবস' ঘোষণা এবং জাতীয় চার নেতাসহ মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জীবনীসহ পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস সর্বস্তরের পাঠ্যপুস্তক ও সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করা। অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক এই দাবি স্বাধীনতার এতগুলো বছর পরও করতে হয় সেটাই আমাদের জন্য দুর্ভাগ্যের। দেশের বর্তমান সঙ্কট, সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি ভবিষ্যতে নির্বাচিত সরকার প্রয়োজন ইতিহাসের জঞ্জাল মুক্ত করার জন্য।

লেখক: নব্বইয়ের গণআন্দোলনের ছাত্র নেতা

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রাষ্ট্র মেরামত না রাস্তা মেরামত, ভোটে কোন পথে জনমত?

    ফুটবল বিশ্বকাপ ও বিশ্ব অর্থনীতি

    ৩০০ মুরগি দিয়ে শুরু করে কোটি টাকার খামার

    ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি কমাতে আরও যা করণীয় 

    আওয়ামী লীগ কি বিএনপিকে উজ্জীবিত করার দায়িত্ব নিয়েছে?

    সহিষ্ণুতার আকালে লালনগীতির গুরুত্ব

    মানসিক চাপ ডিম্বাণুর প্রস্ফুটন দাবিয়ে রাখে

    ‘বৌদ্ধ সন্ত্রাসের মুখ’: মিয়ানমারের ভিক্ষু উইরাথু ফের আলোচনায়