Alexa
রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

জ্বালানি তেলের ধাক্কায় মূল্যস্ফীতি এক যুগে সর্বোচ্চ

আপডেট : ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২১:২৬

ছবি: পিক্সাবের সৌজন্যে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির জেরে দেশে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েই চলেছে। এতে প্রতি মাসেই মূল্যস্ফীতির হার, আগের মাসকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। সর্বশেষ দুই মাসে মূল্যস্ফীতির হার গত এক যুগে সর্বোচ্চ চূড়ায় উঠেছে। আগস্টে এর হার ছিল ৯.৫ শতাংশের বেশি এবং সেপ্টেম্বরে যা হয়েছে ৯.১ শতাংশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর সর্বশেষ (বিবিএস) ভোক্তা মূল্যসূচকের (সিপিআই) তথ্যে এমনটা বলা হয়েছে। এটি এখন চূড়ান্ত অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

এর আগে ২০১০-১১ অর্থবছরে দেশের গড় মূল্যস্ফীতির হার ছিল ১০ দশমিক ৯২ শতাংশ। মাঝে ২০১৩ ও ২০১৪ সালের কয়েক মাস এটি সাত থেকে আট শতাংশে উঠেছিল। আবার ধীরে ধীরে সাড়ে ৫ শতাংশের আশপাশে স্থির হয়। তবে গত অর্থবছরের শেষের দিকে আবারও বাড়তে থাকে। গত জুন মাসে মূল্যস্ফীতি ছিল গত ৯ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এবার তা এক যুগের সর্বোচ্চ পর্যায়ে উঠেছে। 

এ পরিমাণ মূল্যস্ফীতির অর্থ হচ্ছে, ২০২১ সালের আগস্ট মাসে মানুষ যে পণ্য বা সেবা ১০০ টাকায় কিনতে পারত গত আগস্টে তার জন্য তাকে প্রায় ১১০ টাকা খরচ করতে হয়েছে। 

ইউক্রেন–রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়তি রয়েছে প্রায় ছয় মাস ধরে। এতে মে থেকে তিন মাস মূল্যস্ফীতি ছিল প্রায় ৭ শতাংশ। তবে আগস্টের শুরুতে জ্বালানি তেলের দাম প্রায় ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ বাড়ে, একবারে দাম বৃদ্ধির দিক দিয়ে যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। এতে বাড়ন্ত মূল্যস্ফীতি আরও প্রায় দুই শতাংশ বেড়েছে। যা স্বাভাবিক সময়ের প্রায় দ্বিগুণ। গত বছরের এমন সময়েও মূল্যস্ফীতির হার সাড়ে ৫ শতাংশের নিচে ছিল।

যদিও এমন ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার মধ্যেও চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে সরকার মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশে বেঁধে রাখার আশা করছে। গত ২০২১-২২ অর্থবছরেও প্রথমে ৫ দশমিক ৩ শতাংশ এবং তা ৫ দশমিক ৮ শতাংশে রাখার কথা ছিল। কিন্তু অর্থবছর শেষে তা লক্ষ্যমাত্রাকে ছাড়িয়ে ৬ দশমিক ১৫ হয়েছিল।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম আজকের পত্রিকাকে বলেন, জ্বালানি তেলের দাম একবারেই বেশি বেড়ে যাওয়ায় তা মূল্যস্ফীতিতে প্রভাব ফেলেছে। আগস্টে তা সাড়ে ৯ শতাংশের বেশি হয়েছে। তবে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। সেপ্টেম্বরে তা সামান্য কমে ৯.১ শতাংশে নেমে এসেছে। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার আগে থেকেই নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য টিসিবির মাধ্যমে ভর্তুকি দিয়ে নিত্য পণ্য দেওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন পণ্যের আমদানি সহজ করা হয়েছে। আবার বিশ্ব বাজারে পণ্যের দাম কমে আসছে।

তবে, সাধারণত কোন মাসের প্রথম সপ্তাহেই আগের মাসের মূল্যস্ফীতির তথ্য তৈরি করে পরিসংখ্যান ব্যুরো। সেপ্টেম্বর মাস পুরোটা চলে গেলেও আগস্ট মাসের মূল্যস্ফীতির তথ্য প্রকাশ করেনি। এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে দুই মাসের তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বেকারি ও শুঁটকি পণ্য বিপণনে দারাজের সঙ্গে কাজী ফুডের চুক্তি

    রাষ্ট্রীয় কোষাগারে পেট্রো বাংলার অর্থ জমা গত অর্থবছর কমেছে

    নভেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার কিছুটা কমে ৮.৮৫ শতাংশ

    একতরফা দাম বাড়াতেই আইন সংশোধন

    অক্টোবরে মূল্যস্ফীতি ৮.৯ শতাংশ

    সাড়ে ৫৪ লাখ টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল কিনবে সরকার

    আটঘরিয়ায় নছিমন উল্টে চালক নিহত

    ফের কমবে রাতের তাপমাত্রা

    শেখ মুজিব সাফারি পার্কে দর্শণার্থীদের কাছে আকর্ষণের নাম কমনইল্যান্ড

    আজকের রাশিফল

    ঝুঁকি নিয়ে বিশেষ ট্রেনের ছাদে উঠে সমাবেশে যাচ্ছেন নেতা-কর্মীরা 

    ক্ষমা করার সুফল পাবে তো আওয়ামী লীগ?