Alexa
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

সিইউএফএল সার কারখানা

বন্ধের সময় ওভার টাইম বিল ৩ কোটি টাকা!

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১১:৪৬

ছবি: সংগৃহীত ২০১৯-২০ অর্থবছরে চট্টগ্রামের সার কারখানা চিটাগাং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার লিমিটেড (সিইউএফএল) চালু ছিল ২০২০ সালের এপ্রিল ও জুন মাস। এই দুই মাস ছাড়া ওই অর্থবছরের বাকি ১০ মাস কারখানাটি বন্ধ ছিল অথচ বন্ধ কারখানায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অধিকাল ভাতা (ওভারটাইম) হিসেবে খরচ করা হয়েছে ৩ কোটি ৮১ লাখ ৯৭ হাজার ৫৮৫ টাকা।

বাংলাদেশ রসায়ন শিল্প কর্তৃপক্ষ (বিসিআইসি) নিয়ন্ত্রিত সার কারখানা কর্তৃপক্ষকে শিল্প, বাণিজ্য ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান অডিট অধিদপ্তর এ বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে কারখানাটি চালুর সময় এপ্রিল ও জুনে উৎপাদনকালীন ওভারটাইম দেখানো হয় ৪৮ হাজার ১২৫ ঘণ্টা। আর উৎপাদন বন্ধকালীন ওভারটাইম দেখানো হয় ২ লাখ ২৫ হাজার ৪৫ ঘণ্টা। সব মিলিয়ে মোট ২ লাখ ৭৩ হাজার ১৭০ ঘণ্টা শ্রমের বিপরীতে ওই ওভারটাইম ভাতা দেওয়া হয়। এ শ্রমঘণ্টার বিপরীতে উৎপাদনকালীন ৮০ লাখ ৯৩ হাজার ৪৪৯ টাকা, উৎপাদন বন্ধকালীন ৩ কোটি ৮২ লাখ ৩৯ হাজার ১৬৫ টাকাসহ মোট ৪ কোটি ৬৩ লাখ ৩২ হাজার ৬১৪ টাকা খরচ দেখায় কারখানাটি। 
গত বছরের ১৪ জানুয়ারি শিল্প, বাণিজ্য ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান অডিট অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আবুল কাশেম এ বিষয়ে সিইউএফএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে জানতে  চেয়েছেন।

একই অর্থবছরে কারখানা বন্ধ থাকা অবস্থায় অনুমোদিত জনবলের অতিরিক্ত দৈনিক ভিত্তিতে দক্ষ/অদক্ষ শ্রমিক নিয়োগ করে হাজিরা বাবদ ১ কোটি ৫৬ লাখ ৪৩ হাজার ৩৯২ টাকা ব্যয় করেছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে স্বাভাবিক হাজিরা বাবদ ১ কোটি ৫৮ লাখ ২৫ হাজার ৮২২ টাকা পরিশোধের পাশাপাশি অতিরিক্ত ৬৫ লাখ ৫৮ হাজার ৬২৩ টাকা পরিশোধ করা হয়। অতিরিক্ত ব্যয় সংকোচনের 
জন্য কারখানা নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বিসিআইসি থেকে আগেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল।

এর আগের বছর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সিইউএফএলের বোর্ডের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে অনিয়মিত দক্ষ/অদক্ষ শ্রমিক নিয়োগ করে ১ কোটি ৩৮ লাখ ৩৪ হাজার ৩৪১ টাকা পরিশোধ করায় কারখানার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। শিল্প মন্ত্রণালয়ের অডিট শাখা থেকে এ বিষয়টি গত বছরের ৬ জানুয়ারি বিসিআইসি চেয়ারম্যানকে দেওয়া পত্রে জানানো হয়। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের নিরীক্ষায় মোট ১৬৬ অনুচ্ছেদের মধ্যে ৮৭টি অনুচ্ছেদে গুরুতর আর্থিক অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। এ বিষয়ে সিইউএফএলের ৩৮০ এবং ৩৮২তম সভায় অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়।

এই অর্থ বছরেও কারখানা বন্ধ থাকা অবস্থায় বিসিআইসির সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে বাজেট অতিরিক্ত ওভারটাইম হিসেবে ১ কোটি ৪০ লাখ ১৫ হাজার টাকা খরচ করা হয়। একই অর্থবছরে কারখানা উৎপাদন ৬৫ শতাংশ নিচে হওয়ায় বোনাস পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন না করা সত্ত্বেও ১ কোটি ৬৬ লাখ ৮৪ হাজার ৯৩০ টাকা খরচ করায় কারখানা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

চিটাগাং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী শহীদুল্লাহ খান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘কারখানা বন্ধ থাকলেও কারখানার অনেক কাজ থাকে। এ জন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওভারটাইম দেওয়া হয়ে থাকে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    শীর্ষ পদপ্রত্যাশীদের নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ

    ‘ঘুষ নেওয়ায়’ দুই বনপ্রহরী বরখাস্ত ৫ জনকে শোকজ

    গ্রেপ্তার-আতঙ্কে বাড়িছাড়া বিএনপির নেতা-কর্মীরা

    ট্রাক-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ১

    সাটুরিয়ায় মারধরে আহত যুবকের মৃত্যু ঢাকায়

    ২১ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা

    আপনারা মানুষের পর্যায়ে নেই: শ্যামলী-এনআর ট্রাভেলসের এমডিকে হাইকোর্ট

    শীর্ষ পদপ্রত্যাশীদের নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ

    ‘ঘুষ নেওয়ায়’ দুই বনপ্রহরী বরখাস্ত ৫ জনকে শোকজ

    গ্রেপ্তার-আতঙ্কে বাড়িছাড়া বিএনপির নেতা-কর্মীরা

    ট্রাক-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ১

    দিল্লি পৌর করপোরেশন নির্বাচনে আম আদমির জয়জয়কার, কংগ্রেসের ভরাডুবি