Alexa
বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

হারিয়ে যাচ্ছে হাঁটুতে চেপে চুল কাটা নরসুন্দর

আপডেট : ২৬ আগস্ট ২০২১, ০০:২৪

চুল কাটছেন নরসুন্দর। ছবি: আজকের পত্রিকা মানুষ স্বভাবগতই সুন্দরের পূজারী। চুল-দাঁড়ি মানুষের সৌন্দর্য বহন করে।  এই চুল-দাঁড়ি নিয়ে যুগে যুগে মানুষের ভাবনার অন্ত নেই। এই কারণেই নরসুন্দরদের কদর ও প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি।  চুল-দাঁড়ি কেটে মানুষকে দেখতে সুন্দর করাই যাদের কাজ, তারাই হলেন নরসুন্দর। যারা আমাদের কাছে নাপিত হিসেবেও পরিচিত। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় হরিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। 

আধুনিক সভ্যতার ক্রমবিবর্তনের ফলে আজ আমাদের দৈনন্দিন জীবনের গতিধারায় এসেছে পরিবর্তন, লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। আধুনিক সভ্যতায় গড়ে উঠেছে আধুনিক মানের সেলুন। কদর বেশি হওয়ায় অনেকেই ঝুঁকছেন সেই সব সেলুনগুলোর দিকেই। এখনো হাট-বাজারে, খেয়াঘাটে, ফুটপাতের কিংবা গ্রামগঞ্জের জলচৌকিতে বা ইটের ওপর সাজানো পিঁড়িতে বসে চুল-দাঁড়ি কাঁটে নরসুন্দরেরা। হাঁটুর নিচে মাথা পেতে আবহমান বাংলার মানুষের চুল-দাঁড়ি কাটার রীতি চলে আসলেও সেই আদি পরিচিত দৃশ্য এখন আর সচরাচর চোখে পড়ে না। হারানোর পথে আবহমান কাল ধরে চলে আসা এই গ্রামীণ ঐতিহ্য। মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার অনেক হাট-বাজারে এখনো চোখে পড়ে চীর চেনা এই দৃশ্য। অল্প খরচের কথা মাথায় রেখে এখনো তাঁদের কাছে অনেকেই চুল-দাঁড়ি কাটান। 

উপজেলার জোঁকা গ্রামের গারিস বিশ্বাস ও বক্কার বিশ্বাস দুই সহদর। বংশ পরিক্রমায় হয়েছেন নরসুন্দর। দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে এ পেশায় আছেন। উপজেলার লাঙ্গলবাঁধ, গয়েশপুর, কালিনগর, টিকারবিলা, আমলসার, খামারপাড়া বাজার সহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে কাজ করেন তাঁরা। দুই সহোদর বাদে উপজেলায় আর এমন কেউ নেই, যারা হাটে-বাজারে খোলা আকাশের নিচে বসে চুল-দাঁড়ি কাটেন। দুজনেরই বয়স ৫০ এর ওপরে। তাঁদের মৃত্যুর পর বাপ-দাদার এ পেশা ধরে রাখার মতো তাদের বংশে এমন কেউই নেই। তাঁদের মৃত্যুতে উপজেলায় হারিয়ে যাবে গ্রাম-বাংলার এই চীর চেনা দৃশ্য। 

দুই সহোদর এখনো হাটে-বাজারে জলচৌকিতে বসে কাঠের বাক্স যার মধ্যে ক্ষুর, কাঁচি, চিরুনি, সাবান, ফিটকিরি, পাউডার ও লোশন নিয়ে প্রতিনিয়ত মানুষকে সুন্দর করে যাচ্ছেন। অনেক বছর আগে চুল কাটা বাবদ দিতে হতো চার পয়সা আর দাঁড়ি কাটার জন্য দু পয়সা। সে সময় যা আয় হতো তা দিয়ে সংসার ভালোভাবেই চলতো। কিন্তু বর্তমানে ২০ টাকায় চুল ও ১০ টাকা দাঁড়ি কেটেও সারা দিন যে টাকা উপার্জন হয় তা দিয়ে সাংসারিক ব্যয় নির্বাহ করতে তাদের হিমশিম খেতে হয়।  

রাস্তার পাশে বসে এভাবেই চুল ও দাঁড়ি কাটছেন নরসুন্দর। ছবি: আজকের পত্রিকা বক্কার বিশ্বাস বলেন, পূর্বে আমরা বার্ষিক চুক্তিতে কাজ করতাম।  কিন্তু বর্তমানে সেই নিয়ম নেই। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, বর্তমানে যে পরিবর্তন এসেছে চুল-দাঁড়ি কাটার সরঞ্জাম ও যন্ত্রপাতিও পরিবর্তন হয়েছে। সেসব সেলুনে এখন আর শান দেওয়া ক্ষুর দেখাই যায় না। তার বদলে এসেছে ব্লেড লাগানো ক্ষুর। এসেছে শেভিং ক্রিম, লোশন ব্লোয়ার, চুলের কলপ। তিনি যখন এ কাজ শুরু করেন তখন এগুলো তার কাছে ছিল কল্পনাতীত। 

দিপক বিশ্বাস নামে এক ব্যক্তি বলেন, এখন তো উপজেলায় অনেক আধুনিক সেলুন আছে। কিন্তু যখনই বাজারে যাই, ওই চুল কাটা দেখলে ছোটবেলার কথা মনে পড়ে যায়। কারণ তারা যখন চুল কাটতো, দুই হাঁটু দিয়ে আমাদের চাপ দিয়ে ধরতো, যেন নড়াচড়া না করতে পারি। ফলে যখন চুল কাটতো, তখন তার হাঁটুর ওপর ঘুমিয়ে পড়তাম। চিরচেনা দৃশ্য ছোটবেলার স্মৃতি মনে করিয়ে দেয়। 

সাইফুল ইসলাম নামে অপর ব্যক্তি বলেন, ছোট বেলায় বাবার সঙ্গে যেতাম। চুল কাটাতে তাঁদের দায়িত্ব দিয়ে বাবা বাজারের সব কাজ শেষে আসতেন। এখন আর তাঁদের কাছে চুল-দাঁড়ি কাটায় না। ছেলে-মেয়েদের চুল ও কাটায় আধুনিক সেলুনগুলোতে।  আমরা এখনো এ দৃশ্য নিজের চোখে দেখলেও এমন একটা সময় আসবে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে নিছকই গল্পই মনে হবে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    যশোরে ছাত্রলীগের মোটরসাইকেল মহড়া

    গাজীপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা

    ফকিরহাটে ট্রাক-মাহিন্দ্রা সংঘর্ষে চালকসহ ৪ জন আহত

    গাজীপুরে শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ, পুলিশের লাঠিপেটা ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ

    বেনাপোল ইমিগ্রেশনে যাত্রীর পায়ুপথে স্বর্ণের বারসহ দুজন আটক

    জমি নিয়ে বিরোধের জেরে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে জখম

    হতাশা বাড়ছে বাংলাদেশের

    কামারখন্দে অজ্ঞাত বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার