Alexa
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

ন্যায়সংগত আন্দোলনে সরকার গুলি করে হত্যা করছে: নজরুল ইসলাম খান 

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২১:১৪

রাজধানীর বসিলায় ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন নজরুল ইসলাম খান। ছবি: আজকের পত্রিকা   দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, লোডশেডিং, গণতন্ত্রহীনতায় দিশেহারা হয়ে মানুষ যখন প্রতিবাদে মুখর হচ্ছে তখন সেই প্রতিবাদের মিছিলে বর্তমান সরকার গুলি করে মানুষ হত্যা করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর বসিলায় ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘জিনিসপত্রের দাম এতই বেড়েছে যে যারা হালাল উপার্জন করে তাদের আর চলার অবস্থা নাই। তাদের সন্তানদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। চিকিৎসা করতে পারে না কারণ ওষুধের দামও বাড়ায় দিছে তারা। শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রাম তো অত্যন্ত ন্যায় সংগত। সেই ন্যায়সংগত আন্দোলনে গুলি করে আমার ভাইদের হত্যা করা হচ্ছে।’ 

নজরুল ইসলাম বলেন, ‘সরকার ১০ টাকায় চাল খাওয়াবে, চালের দাম ৬০ টাকার বেশি। ঘরে ঘরে চাকরি দেবে কিন্তু সরকারের লুটপাট ও দুর্নীতির কারণে কোটিপতির সংখ্যা বেড়েছে ঠিক কিন্তু ৪ কোটির বেশি মানুষ দরিদ্র হয়ে গেছে।’

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আপনি খাবার দিতে পারবেন না, চাকরি দিতে পারবেন না, মানুষ কষ্ট পেয়ে প্রতিবাদ জানাবে আর আপনি তাকে গুলি করে মেরে ফেলবেন। আপনি কি জনগণের সরকার? আপনারা দেশের জনগণের সরকার নন, আপনারা কয়েক হাজার কোটিপতির সরকার। আমরা ৪ কোটি দরিদ্রের অধিকারের জন্য লড়ছি তাই আপনারা ভয় পেয়ে আমাদের গুলি করছেন।’

‘নুর হোসেন, ডা. মিলনকে মেরে ফেলে এরশাদ টিকতে পারছে? আপনারাও পারবেন না। আপনাদের পতনটা যে খুব দুঃখজনক না হয় তার জন্য আমরা গণতান্ত্রিক দল হিসেবে আপনাদের সুযোগ দিচ্ছি।’

আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচন প্রসঙ্গে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘এই সরকারের লজ্জা থাকলে বলতে পারতেন না, আমাদের আমলে সুষ্ঠু ভোট হয়। একটা ভোট করলেন সেখানে ১৫৩ জন বিনা ভোটে নির্বাচিত। আরেক ভোট করলেন, জনগণ ভোট দেওয়ার সুযোগ পাইলে বিএনপি জিতবে বলে আগের রাতেই সব বাক্স বোঝাই করে ভরে ফেললেন। এসবের নাম সুষ্ঠু ভোট?’

বিএনপি কখনো জনগণকে ফাঁকি দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায় না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘৯১ সালে খালেদা জিয়া আপনাদের সবার বিরুদ্ধে একা নির্বাচন করে ক্ষমতায় এসেছিলেন। ৯৬ এ আমরা বলেছিলাম, সংসদের মধ্য দিয়ে আইন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার করে আমরা চলে যাব। বেগম খালেদা জিয়া কথা রেখেছিলেন। কিন্তু ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, এটা নিয়ম রক্ষার নির্বাচন, সবার অংশগ্রহণে আবার নির্বাচন হবে। কিন্তু করেন নাই। এই হচ্ছে তফাৎ।’

সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে বিএনপি ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান বলেন, ‘এখন খালেদা জিয়া ও বিএনপির অন্যান্য নেতা কর্মীরা জেলে। কিন্তু শাওনসহ অন্যান্যদের হত্যার কারণে শেখ হাসিনাকেও জেলে যেতে হবে। এটা সময়ের ব্যাপার মাত্র। দেশের মানুষ রাস্তায় নামছে, গণ-অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানো হবে।’ 

সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্যসচিব আমিনুল হকসহ প্রমুখ। 

বিকেলে মোহাম্মদপুরে শান্তি সমাবেশ করেছে আওয়ামী লীগ। ফলে দুপুর থেকেই মোহাম্মদপুরে আতঙ্কের পরিবেশ ও যানজট তৈরি হয়। এ সময় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে দলটির মোহাম্মদপুর কার্যালয়ে জড়ো হতে দেখা যায়। তবে কোথায় সংঘর্ষ কিংবা হামলার ঘটনা ঘটেনি। দুই দলের পাল্টাপাল্টি সমাবেশের কারণে আসাদগেট মোড় থেকেই পুলিশের ব্যাপক উপস্থিতি দেখা গেছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ১ লাখ মামলায় ৪০ লাখ কর্মীকে আসামি, প্রধান বিচারপতির কাছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের অভিযোগ

    রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কাউকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না: তথ্যমন্ত্রী

    এই সমাবেশের দিকে সবাই তাকিয়ে, সফল করতেই হবে: মির্জা ফখরুল  

    প্রথম সিরিজের ফাইনাল খেলা ১০ তারিখ: গয়েশ্বর চন্দ্র

    দুই বছর আগের মামলায় ইশরাকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

    সমাবেশের জন্য এখনো নয়াপল্টনের বিকল্প স্থান জানায়নি বিএনপি 

    সন্তানসহ প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনা ‘টাকায় মীমাংসা’

    অপহৃত শিশুর লাশ আঙিনা খুঁড়ে উদ্ধার

    থানায় দুপক্ষের অভিযোগ, আসামি মোট ৯৬ জন

    ন্যায্য ফলের দাবিতে শিক্ষার্থীদের অনশন

    রাবিতে উচ্চ স্বরে কথা বলা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৩ 

    ফুটবল বিশ্বকাপ

    মেসিদের নিয়ে ভাবছেন না দানি আলভেস