Alexa
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

কয়েক ছত্র

আগামীর জীবন

আপডেট : ২৫ আগস্ট ২০২২, ১০:২০

রুমা মোদক, সাহিত্যিক আমি দুজন নারীকে ঘনিষ্ঠভাবে চিনি। প্রথমজন ক্লাসে কোনো দিন দ্বিতীয় হয়নি। ঢামেক থেকে এমবিবিএস পাস করে, বিসিএস কোয়ালিফাই করে উপজেলা পর্যায়ের একটা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাজ করেন, শ্বশুর-শাশুড়ি, বাচ্চা নিয়ে শহরেই থাকেন। তাঁর স্বামীও ডাক্তার। স্কুলে মাঝারি মানের ছাত্র ছিলেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে পাস করে তিনিও বিসিএস কোয়ালিফাই করেছেন। ঢাকায় পোস্টিং নিয়ে আইপিজিএমআরে একের পর এক উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে এখন নামকরা ডাক্তার। আমি মাঝে মাঝে নারীটিকে দেখি বাচ্চাদের স্কুলে পৌঁছে দিয়ে কিংবা ছুটির পর নেওয়ার জন্য দাঁড়িয়ে আছেন স্কুলের সামনে।
আরেকজন নারী, উচ্চশিক্ষিত। ব্যাংকের বড় কর্মকর্তা। বাসায় গেলেই তার শাশুড়ি একগাদা অভিযোগ নিয়ে বসেন, বউ বাচ্চাকে সময় দেয় না, বউ রাঁধতে জানে না ইত্যাদি ইত্যাদি।

আমি একটু বেয়াদবের মতো বলে ফেলি, ‘তো এ রকম শিক্ষিত মেয়ে বিয়ে করালেন কেন? ঘরকন্না জানা একটা মেয়ে বিয়ে করালেই হতো!’ শাশুড়ি ভীষণ বিরক্ত হন আমার ওপর।

এই সমাজ এখনো কর্মজীবী নারীকে স্বীকৃতি, সম্মান কিংবা মর্যাদা দিতে শেখেনি। এই সময়ে এ এক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়—সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং মানসিক দিক থেকে। সমাজে একজন কর্মজীবী মা পরিবারের অর্থনৈতিক প্রয়োজনেই ঘরের বাইরে যান কিংবা নিজের ইচ্ছাতেই যান। পরিবার কিংবা সমাজ কেউ তাঁকে সম্মানের চোখে না হোক, স্বাভাবিক ছাড় দেওয়ার মানসিকতাও দেখায় না। সংসার এবং পরিবারের দায়িত্ব ষোলো আনা পালন করে তারপর পেশাগত দায়িত্ব পালনে যেতে হয় নারীকে।

এই সমাজে এমন পরিবার খুব কম পাবেন, যেখানে একজন কর্মজীবী নারীকে তাঁর জীবনসঙ্গী পুরুষ কিংবা পরিবারের অন্য কেউ বিনা বাক্য ব্যয়ে পারিবারিক দায়িত্ব পালনে সাহায্য করেন। ঘরের নারীটির মতো পরিবারের দায়িত্বকে নিজের দায়িত্ব মনে করেন; বরং সারাক্ষণ এই সাংসারিক দায়িত্ব পালনে ত্রুটির কারণে তাঁকে বাস করতে হয় মানসিকভাবে অস্বাস্থ্যকর এক আতঙ্কময় পরিবেশে। আর সবচেয়ে বড় সমস্যাটার মুখোমুখি তাঁকে হতে হয় সন্তান নিয়ে। সন্তান লালনপালনের কোনো উদ্যোগ এই সমাজে নেই। সামাজিকভাবেও নেই, রাষ্ট্রীয়ভাবেও নেই। ফলে কোথায় বড় হবে আগামীর নাগরিকেরা? আজকের প্রতিটি সন্তান জাতির ভবিষ্যৎ নাগরিক। আর এই নাগরিকদের জন্য কত উচ্চশিক্ষিত নারীকে দেখলাম পেশা বিসর্জন দিতে! এমএ, বিএ তো কোন ছার। কত ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার নারীকেই দেখলাম যাবতীয় মেধা এবং যোগ্যতা বিসর্জন দিয়েছেন শুধু সন্তানের জন্য। কোনো পুরুষকে আজও আমি পাইনি সন্তানের জন্য ক্যারিয়ার বিসর্জন দিতে।

তবে সন্তানের জন্য নারীর ক্যারিয়ার বিসর্জন মোটেই দোষের নয়। যে নারী নিজের ক্যারিয়ার বিসর্জন দিলেন, তিনি দেশের ভবিষ্যৎ নাগরিক জীবনের জন্য দিলেন। নিশ্চয়ই অনাগত ভবিষ্যৎ তাঁর সন্তান, নির্বিশেষে তাকে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণের জন্য সর্বতোভাবে প্রস্তুত থাকবে। সময়ের চাকা সামনের দিকেই তো যায়।

আমি ঘরোয়া আলোচনায় প্রায়ই বলি, স্বামীর সংসারে প্রাচুর্য কিংবা স্বাচ্ছন্দ্য থাকলে কোনো নারীর পেশাগত কাজে জড়িত হওয়ার দরকার নেই। কথাটা রাগে বলি, ক্ষোভে বলি, আক্ষেপ আর অভিজ্ঞতায় বলি। কারণ আমার চারপাশের অভিজ্ঞতায় দেখেছি এই পেশা নারীর জন্য বোঝার ওপর শাকের আঁটি। না সে তার কর্মস্থলে বিন্দুমাত্র ছাড় পায়, না পরিবারে ছাড় পায়। ফলে প্রতিটি কর্মজীবী নারীর জীবন এক দুঃসহ সংগ্রামময় জীবন।

পৃথিবীর সব উন্নত দেশ উন্নত হয়েছে নারী-পুরুষ উভয়ের সমান অংশগ্রহণে। অথচ আমাদের পারিবারিক কাঠামো এখনো কর্মজীবী নারীর ব্যস্ততাকে মেনে নেওয়ার জন্য তৈরি হয়নি। অন্যদিকে পরিবারের অর্থনৈতিক প্রয়োজনও হয়ে উঠেছে অনস্বীকার্য। এ দুইয়ের চাপে পড়ে অসহনীয় যাপন হয়ে উঠছে নারীর আর তাঁর ভবিষ্যৎ নাগরিক সন্তানের।

তবু প্রত্যাশায় থাকি উত্তরণের, থাকি নারীর মেধা, যোগ্যতা আর পেশাগত জীবনকে স্বাভাবিকভাবে নেওয়ার এক উদার সমাজের প্রত্যাশায়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    চায়না কমলালেবু চাষ করে বাজিমাত শিক্ষক দম্পতির

    নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার যন্ত্রপাতি

    মাছ উৎপাদন ও বিপণনে ভিন্নমাত্রা গোয়ালন্দে

    বাস সীমিত, লঞ্চ গেল একটি

    ২০ কেজি ওজনের কচ্ছপ উদ্ধার

    গজারিয়া বাজারের নৌকার কদর, জোগায় জীবিকা

    ময়মনসিংহে শিশু ধর্ষণের মামলায় দোকানি গ্রেপ্তার

    চায়না কমলালেবু চাষ করে বাজিমাত শিক্ষক দম্পতির

    সাকিবদের তুলোধুনো করে ঈশানের রেকর্ড গড়া দ্বিশতক

    নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার যন্ত্রপাতি

    মাছ উৎপাদন ও বিপণনে ভিন্নমাত্রা গোয়ালন্দে

    বাস সীমিত, লঞ্চ গেল একটি