Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

৩১৩ কিমি হেঁটে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মোস্তফা মিয়া

আপডেট : ১৯ আগস্ট ২০২২, ২১:১০

অবশেষে মনের আশা পূরণ হলো মোস্তফা মিয়ার। ছবি: আজকের পত্রিকা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে ৩১৩ কিলোমিটার হাঁটলেন মোস্তফা মিয়া (৭১)। ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুরের এ বাসিন্দা বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত দেশের মাটিতে কখনো জুতা পায়ে হাঁটেননি। তিনি এবার প্রিয় নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আজ শুক্রবার দুপুরে ময়মনসিংহের ফুলপুর থেকে হেঁটে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া গিয়ে পৌঁছান। 

ছেলে মনিরুজ্জামানকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধের সামনে দাঁড়িয়ে ফাতেহা পাঠ করেন। পরে বঙ্গবন্ধুসহ পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টে শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত করেন। 

গত ৮ আগস্ট ময়মনসিংহের ফুলপুর থেকে মোস্তফা মিয়া বঙ্গবন্ধুর কবর জিয়ারতের উদ্দেশে হেঁটে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় উদ্দেশে রওনা হন। 

মোস্তফা মিয়া বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত বাংলার মাটিতে আমি জুতা পায়ে হাঁটিনি। এমনকি বিয়ের দিনেও জুতা পরিনি। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের বিচারের রায় ঘোষিত হলে আমি ময়মনসিংহ-২ (ফুলপুর-তারাকান্দা) আসনের পাঁচবারের এমপি মরহুম এম শামছুল হকসহ আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতাদের অনুরোধে আবার জুতা পরা শুরু করি। বর্তমান গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদের বাবা তৎকালীন এমপি মরহুম এম শামছুল হক ময়মনসিংহ থেকে আমার জন্য উপহার হিসেবে জুতা আনিয়েছিলেন।’ 

মোস্তফা মিয়া আরও বলেন, ‘আমার দীর্ঘদিনের ইচ্ছা ছিল জাতির পিতার কবর জিয়ারত করব। কিন্তু এতদিন নানা অসুবিধায় সম্ভব হয়ে ওঠেনি। এখন ছেলেরা সবাই বড় হয়েছে। তাই এবার শোকের মাসে হেঁটে টুঙ্গিপাড়া এসে বঙ্গবন্ধুর কবর জিয়ারত করেছি। আমার মনের ইচ্ছা পূরণ হয়েছে।’ 

 ‘আমি চাই বঙ্গবন্ধুর কন্যা রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকুক। তিনি দেশের উন্নয়ন ও মানুষের কল্যাণে কাজ করুন। পাশাপাশি বিদেশে পলাতক বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসির রায় কার্যকর করার দাবি জানাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসি। ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে এই কাজগুলো করেছি। আমার ব্যক্তিগতভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে কিছুই চাই না।’ যোগ করেন বঙ্গবন্ধুর একনিষ্ঠ ভক্ত মোস্তফা মিয়া। 

মোস্তফা মিয়ার ছেলে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘আমার বাবা বঙ্গবন্ধুর একজন প্রকৃত অনুসারী। বঙ্গবন্ধু তাঁর প্রিয় নেতা। তাই আমার বাবা হেঁটে বঙ্গবন্ধুর কবর জিয়ারতের ইচ্ছা পোষণ করেন। আমরা গত ৮ আগস্ট ফুলপুর থেকে হেঁটে রওনা হই। ময়মনসিংহ, ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ, জাজিরা, মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি, ফরিদপুরের ভাঙা, সালতা, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর, কাশিয়ানী ও গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা পার হয়ে আজ দুপুরে টুঙ্গিপাড়া এসেছি। এখানে এসে বঙ্গবন্ধুর কবর জিয়ারত করেছি। পথে পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন আমাদের সব ধরনের সহযোগিতা করেছে।’ 

ফুলপুর থেকে পায়ে হেঁটে টুঙ্গিপাড়া আসতে আমাদের কোনো অসুবিধা হয়নি জানিয়ে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর কবর জিয়ারত করেছি। এখন আমরা গাড়িতে করে বাড়ি ফিরে যাব। শুধু পদ্মাসেতু পায়ে হেঁটে পার হওয়ার সময় সেনা সদস্যরা বাধা দেয়। পরে তাঁরা সব শুনে তাদের গাড়িতে করে বাবা ও আমাকে সেতু পার করে দেন। এটুকুই আমরা গাড়িতে চড়েছি মাত্র। বাদ বাকি সব পথ হেঁটে এসেছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ৪০তম বিসিএস নন ক্যাডার থেকে সর্বোচ্চ প্রার্থীকে সুপারিশের দাবিতে মানববন্ধন

    বিমানবন্দরে সাড়ে ৩ কোটি টাকার সোনা উদ্ধার

    সিদ্ধিরগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডে ঝুটের ৪ গোডাউন পুড়ে ছাই

    জঙ্গি সম্পৃক্ততায় ঘর ছেড়ে যাওয়া ৭ জন গ্রেপ্তার

    প্রেমিকের বাসায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

    মোবাইল হারানোকে কেন্দ্র করে পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও আনসারদের সংঘর্ষ, আহত ৭

    জনসংখ্যা ১৬ কোটি নিবন্ধন ২০ কোটি

    ধান ছেড়ে টমেটো চাষ

    সিসিকের ভান্ডার থেকে গায়েব ৫৩৫টি মিটার

    নদীর চর দখল করে ধান চাষ

    রাস্তা বন্ধ করল প্রতিবেশী ১২ পরিবার অবরুদ্ধ

    মেসির রেকর্ডের রাতে পিএসজির হোঁচট