Alexa
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

বেঁচে থাকলে সবাই থাকে, মরলে কেউ থাকে না: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ১৭ আগস্ট ২০২২, ০০:১২

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। ছবি: পিআইডি ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর নেতাদের নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন রাখেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের নেতারাও তো এখানে আছেন। জাতির পিতা তো অনেককে ফোনও করেছিলেন। কী করেছিলেন তারা? বেঁচে থাকতে সবাই থাকে। মরে গেলে যে কেউ থাকে না, তার জীবন্ত প্রমাণ।’

মঙ্গলবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

কিছু আশা করেন না জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এ জন্য আমি কিছু আশা করি না। সব সহ্য করে নীলকণ্ঠ হয়ে শুধু অপেক্ষা করেছি কবে ক্ষমতায় যেতে পারব। আর এই দেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে পারব। দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে পারব। তাহলেই এই হত্যার প্রকৃত প্রতিশোধ হবে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘ওই ধানমন্ডি লাশগুলি তো পড়ে ছিল। কত স্লোগান, বঙ্গবন্ধু তুমি আছ যেখানে আমরা সেখানে। অনেক স্লোগানই তো ছিল। কোথায় ছিল সেই মানুষগুলি? একটি মানুষও ছিল না সাহস করে এগিয়ে আসার? একটি মানুষ ছিল না প্রতিবাদ করার? কেন করতে পারেনি? এত বড় সংগঠন, এত সমর্থক, এত লোক। কেউ তো একটা কথাও বলার সাহস পায়নি। ১৫ আগস্ট থেকে ১৬ আগস্ট ওই লাশ পড়ে ছিল।’

কেউ যাতে যেতে না পারে এই জন্য টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার লাশ রাখা হয়েছিল দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে সেখানে মানুষের ঢল।’

বঙ্গবন্ধু কিছু নিয়ে যাননি, শুধু দিয়েই গেছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটা দেশ দিয়ে গেছেন। একটা জাতি দিয়ে গেছেন। পরিচয় দিয়ে গেছেন। আত্ম পরিচয় দিয়ে গেছেন। বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে গড়ে তুলে উন্নয়নের পথে যাত্রা শুরু করে দিয়েছেন। কিছুই নিয়ে যাননি বাংলাদেশের মানুষের কাছ থেকে। বাংলাদেশের গরিব মানুষকে যে রিলিফের কাপড় তিনি দিতে পারতেন সেই রিলিফের কাপড়ের পাড় ছিঁড়ে সে কাপড় দিয়ে তাকে কাফন দেওয়া হয়েছিল। আমার বাবা-মা, ভাই-বোন বাংলাদেশের মানুষের কাছ থেকে কিছুই নিয়ে যায়নি। ওই ১৬ তারিখে সমস্ত লাশ নিয়ে বনানীতে মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয়েছিল।’

মুসলমান হিসাবে জানাজার নামাজও পড়েনি জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘একটু কাফনের কাপড়, সেটাও দেয়নি। পঁচাত্তরের ঘাতকেরা হত্যার পর বাংলাদেশকে ইসলামিক রাষ্ট্র ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু ইসলামিক কোনো বিধি তারা মানেননি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    গণতন্ত্র, অগ্রগতি ও বিশ্ব নারী জাগরণের প্রতীক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা: তথ্যমন্ত্রী 

    তাকরিমের সাফল্যে প্রধানমন্ত্রীও খুশি: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী 

    দুর্গাপূজায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিতে পুলিশের প্রতি আইজিপির নির্দেশ 

    বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচারের সমুচিত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী

    পঞ্চগড়ে নৌকাডুবির ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক

    চালের চাহিদার সঙ্গে তাল রেখে উৎপাদন বাড়ানোর তাগিদ: কৃষিমন্ত্রী

    মানসিক স্বাস্থ্যকে শিক্ষানীতিতে যুক্ত করার আহ্বান বিশেষজ্ঞদের

    অপহরণের ১৩ দিন পর স্কুলছাত্রী উদ্ধার, যুবক গ্রেপ্তার

    দেশ পরিচালনার নামে একটি সিন্ডিকেট লুটপাট করছে: মোশাররফ

    বাংলাদেশের ব্যাটিং এবারও মন ভরাতে পারল না

    মাদক মামলায় গ্রেপ্তার সংরক্ষিত মহিলা আসনে সদস্য পদপ্রার্থী

    নির্ধারিত বরাদ্দ শেষ, সিলেটের ৩ পাম্পে মিলছে না গ্যাস