Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

সেচ প্রকল্পের সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ গতিরোধক

আপডেট : ১৬ আগস্ট ২০২২, ১৫:২৬

সেচ প্রকল্পের সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ গতিরোধক চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের মুহুরী সেচ প্রকল্পের ব্যস্ততম সড়কে গতিরোধক বসিয়ে লোহার পাইপ দিয়ে নদী থেকে বালু তোলা হচ্ছে। সেই গতিরোধক পার হতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে।

মুহুরী সেচ প্রকল্পের পূর্ব পাশের গেট থেকে আনুমানিক ৫০০ মিটার পশ্চিমে সড়কে ১০ ইঞ্চি লোহার পাইপ বসানো হয়। তার ওপর সিমেন্টের উঁচু ঢালাই দিয়ে সড়কের এক পাশ থেকে অপর পাশে বালু পার করা হচ্ছে। গত দুই মাস আগে এটি স্থাপন করা হয়।

উপজেলার ওসমানপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মফিজুল হক বলেন, দেশের প্রথম বায়ু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি এখানে। পাশেই রয়েছে দেশের সবচেয়ে বড় মৎস্য জোনের প্রায় ২ হাজার প্রকল্প। এখান থেকে প্রতি রাতে চট্টগ্রাম, ফেনী, নোয়াখালী, ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে মাছ সরবরাহ করা হয়। এসব প্রকল্পে মাছের খাদ্য নিতে হয়। সেচ প্রকল্পে পর্যটকদের পদচারণা বাড়ছে। ব্যস্ততম এ সড়কে গতিরোধক স্থাপন করার কারণে সড়কটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, ‘এখানে অহরহ দুর্ঘটনা ঘটছে। এ বিষয়ে আমি পানি উন্নয়ন বোর্ডে অভিযোগ করেছি। এলাকাবাসীকে বলেছি, সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমার কাছে এলে আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাব। কিন্তু কেউ সাহস করে এগিয়ে আসছে না।’

এই স্থানে সর্বশেষ গত শুক্রবারও বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে। সোনাগাজী থানার ৮ নম্বর আমিরাবাদ ইউনিয়নের আহমদপুর গ্রামের বাসিন্দা প্রবাসী আজিজুল হক সেদিন দেশে ফেরেন। বিকেলে বাড়ি যাওয়ার পথে এই স্থানে দুর্ঘটনায় তিনি গুরুতর আহত হন। সংকটাপন্ন অবস্থায় তিনি ফেনী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

সড়কের ওপর বাঁধ দিয়ে বালু তোলা অন্যায় হচ্ছে বলে স্বীকার করেন বালু তোলার কাজে জড়িত সাঈদ খান দুখু। তিনি জানান, এ কাজে তাঁর সঙ্গে রয়েছেন ওসমানপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াদ, পারভেজ, মোর্শেদসহ কয়েকজন।

এ সড়কে চলাচলকারী পিকআপচালক কবির হোসেন জানান, সেচ প্রকল্পের সড়কে এভাবে উঁচু গতিরোধ দেওয়ার ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। রাতের বেলা দুর্ঘটনা বেশি ঘটে।

মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিনহাজুর রহমান জানান, এখানে বালু তোলার কোনো অনুমতি নেই। তা ছাড়া সেচ প্রকল্পের সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ গতিরোধক দেওয়া গুরুতর অপরাধ। শিগগিরই অভিযান পরিচালনা করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফেনী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. নুরন্নবী বলেন, সেচ প্রকল্পের সড়কে এ ধরনের বাঁধ দিয়ে বালু তোলার কোনো অনুমতি নেই। তা ছাড়া সেচ প্রকল্প পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে হলেও সড়কটি সওজের তত্ত্বাবধানে। এভাবে সড়কে ঝুঁকিপূর্ণ গতিরোধক স্থাপন করে বালু তুলে মানুষের জীবন বিপন্ন করা হলে তা সওজের দেখা উচিত।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) ফেনী অঞ্চলের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান বলেন, সড়কের ওপর গতিরোধক বসিয়ে পাইপের ওপর উঁচু ঢালাই দিয়ে বালু তোলার অনুমতি কে দিল?

তবে মাসুদুর রহমান বলেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে পাঁচ বছর আগে সওজের সড়কে কার্পেটিং করার একটি অস্থায়ী চুক্তি হয়েছে। আমরা সেটা করেছি। সড়কের মূল স্ট্রাকচার এখনো পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে। এ বিষয়ে তাদেরই পদক্ষেপ নিতে হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    অশান্ত সাগরে টহল কমের সুযোগ নিচ্ছে পাচারকারীরা

    ১২ হাজার কারখানায় উৎপাদন ব্যাহত

    সবাইকে ‘স্মারক উপহার’ দেবে সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন

    কৃষকের কপালে চিন্তার ভাঁজ

    শিশু-কিশোরদের হাতে স্টিয়ারিং, সড়কে আতঙ্ক

    দখলমুক্ত হয়নি জঙ্গল সলিমপুর

    অশান্ত সাগরে টহল কমের সুযোগ নিচ্ছে পাচারকারীরা

    মাইক্রোর ওপর উঠে গেল বাস, নিহত ৬

    ইউএস-বাংলার আকর্ষণীয় অফার ‘হোটেল ফ্রি’

    পটিয়ায় পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের গুলিতে এক কৃষক নিহত

    ১২ হাজার কারখানায় উৎপাদন ব্যাহত

    সবাইকে ‘স্মারক উপহার’ দেবে সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন