Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২৬ হাজার কোটি টাকা

আপডেট : ১১ আগস্ট ২০২২, ২১:০৫

খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২৬ হাজার কোটি টাকা ঋণের কিস্তি পরিশোধে বিশেষ ছাড় দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সেই ছাড়ের সময়সীমাও শেষ না হলেও গত এক বছরে খেলাপির পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। চলতি বছরের জুন শেষে ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ২৫ হাজার ২৫৭ কোটি টাকা। এটি ২০২১ সালে জুন পর্যন্ত একই সময়ে ছিল ৯৯ হাজার ২০৫ কোটি টাকা। সেই হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২৬ হাজার ৫২ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

খাতসংশ্লিষ্টদের মতে, বাংলাদেশ ব্যাংক ঋণ পরিশোধে যে ছাড় দিয়েছে, তাতে গ্রাহকদের ঋণ পরিশোধে আগ্রহ কমে যাচ্ছে। যার প্রভাব দীর্ঘ মেয়াদে খেলাপি ঋণ আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। 

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, চলতি ২০২২ সালের এপ্রিল-জুন প্রান্তিক শেষে ব্যাংকগুলোর বিতরণকৃত মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৯৮ হাজার ৫৯২ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ ১ লাখ ২৫ হাজার ২৫৭ কোটি টাকা। যা মোট বিতরণকৃত ঋণের ৮ দশমিক ৯৬ শতাংশ। তিন মাস আগে মার্চ শেষে খেলাপি ছিল ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৪০ কোটি টাকা। সে হিসাবে ৩ মাসে খেলাপি বেড়েছে ১১ হাজার ৮১৭ কোটি টাকা। আর ২০২১ সালের জুন প্রান্তিক শেষে খেলাপি ছিল ৯৯ হাজার ২০৫ কোটি টাকা। সে হিসাবে এক বছরের তুলনায় খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২৬ হাজার ৫২ কোটি টাকা। এটি এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ খেলাপি ঋণের রেকর্ড। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুযায়ী, রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় ব্যাংকের খেলাপির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৫ হাজার ৪২৯ কোটি টাকা। যা মোট খেলাপির ৪৪ ভাগ। বেসরকারি ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমান ৬২ হাজার ৬৭৮ কোটি টাকা। এটি ব্যাংকিং খাতের মোট খেলাপি ঋণের প্রায় ৫০ শতাংশ। এ ছাড়া বিদেশি ব্যাংকের খেলাপি ২ হাজার ৯৫৭ কোটি ও বিশেষায়িত ব্যাংকের খেলাপি দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ১৯৪ কোটি টাকা।

এ বিষয়ে জানতে চালে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে কিছু ভুল সিদ্ধান্ত আসছে। যে নীতিমালাগুলো সেখান থেকে আসছে সেগুলো ঋণ খেলাপিদের উৎসাহ দিচ্ছে। এর বিপরীতে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন ব্যাংকের ভালো গ্রাহক। ব্যাংকগুলোও খেলাপি ঋণ আদায়ে বিমুখ হয়ে পড়েছে। এ জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে তাদের জবাবদিহি করতে হয় না।’

সালেহউদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিগুলো দীর্ঘস্থায়ী হতে হবে। যাতে খেলাপি ঋণ, পুনতফসিল, প্রভিশন ঘাটতি কমে। এসব সমস্যা সমাধানে একটি ব্যাংকিং কমিশন গঠন করা উচিত। এর আগেও ব্যাংকিং কমিশনের মাধ্যমে খেলাপি সমস্যার সমাধান হয়েছে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোসলেহ উদ্দীন আহমেদ

    মূল্যস্ফীতির লাগাম টানতে ফের নীতি সুদহার বাড়াল কেন্দ্রীয় ব্যাংক

    ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহার বাড়ছে

    সাউথইস্ট ব্যাংকের ৬টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের উদ্বোধন

    ‘ভার্চুয়াল অ্যাকাউন্ট ফর পেমেন্ট’ সল্যুশন চালু করল স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

    ইস্টার্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনায় টিএমএসএসের জন্য ১,২২৪ মিলিয়ন টাকা সংগ্রহ

    দখলমুক্ত হয়নি জঙ্গল সলিমপুর

    বিচ্ছেদের পর স্ত্রীকে হত্যা, সাবেক স্বামী গ্রেপ্তার

    মুক্তাগাছায় ছুরিকাঘাতে কাউন্সিলরের ছেলে নিহত

    পূজা উপলক্ষে নৌকাবাইচ নদীর তীরে মানুষের ভিড়

    শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবিতে মানববন্ধন

    আকাশে উড়ল বন্দী ১৫ তিলা ঘুঘু