Alexa
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত, পর্যটকদের সৈকতে না নামার অনুরোধ

আপডেট : ১১ আগস্ট ২০২২, ১৯:৪৭

কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের লাবণী পয়েন্টে জোয়ারের ধাক্কায় তীরে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ছবি: আজকের পত্রিকা  বৈরী আবহাওয়ায় উত্তাল কক্সবাজারের সমুদ্র উপকূল। আজ বৃহস্পতিবার বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘু চাপের কারণে কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলকে তিন নম্বর সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। এতে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটকেরা বিপাকে পড়েছেন।

সৈকতে গতকাল বুধবার থেকে টুরিস্ট পুলিশ, বিচ কর্মী ও লাইফ গার্ডের সদস্যরা পর্যটকদের সৈকতে গোসলে না নামতে সতর্কতা জারি করে প্রচারণা চালাচ্ছে। শহরের ডায়াবেটিক পয়েন্ট, নাজিরারটেক, লাবণী পয়েন্ট, হিমছড়িসহ বিভিন্ন স্থানে সৈকতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। জেলার সদর, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, টেকনাফ, চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলার সমুদ্র উপকূলের বেড়িবাঁধগুলোতে জোয়ারের পানি তিন থেকে চার ফুট উচ্চতায় আঁচড়ে পড়ছে।

পর্যটন ব্যবসায়ীরা জানান, সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কক্সবাজারে এখন পর্যাপ্ত পর্যটকের সমাগম হয়। আগামীকাল শুক্রবার ও শনিবার কক্সবাজার হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস ও রিসোর্টগুলোতে গড়ে ৭০ শতাংশ কক্ষ ভাড়ার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ট্রিপ জোন ট্যুর অ্যান্ড ট্রাভেল এজেন্সির জিকু পাল আজকের পত্রিকাকে জানান, বৃহস্পতিবার কক্সবাজারে অন্তত ৫০ হাজার পর্যটক এসেছে। তারকা মানের হোটেলগুলোর ৮০ শতাংশ ও মাঝারি মানের হোটেলগুলোর ৫০ শতাংশের ওপরে কক্ষ ভাড়া হয়েছে। শুক্র ও শনিবার আরও পর্যটক আসবে।

সৈকত কর্মী বেলাল হোসেন বলেন, ‘বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সৈকতের কলাতলী, সুগন্ধা ও লাবণী পয়েন্টে অন্তত ৩০ হাজার পর্যটক নেমেছে। অনেকেই নির্দেশনা না মেনে নোনাজলে গোসলে নামতে মরিয়া। যাদের একেবারে মানানো যাচ্ছে না তাঁদের হাঁটু পানিতে নামার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে।’

আজ বৃহস্পতিবার সকালে লাবণী পয়েন্টে গিয়ে দেখা যায়, বিচ পরিচালনা কমিটির তথ্য কেন্দ্র বরাবর সৈকতের জিওব্যাগে আঁচড়ে পড়ছে ঢেউ। থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। ঢেউয়ের চাপে জিওব্যাগের সামনের ইটের গাঁথুনি ধসে পড়ে বালু সরে যাচ্ছে। সৈকতের এ পয়েন্টের ফটকে টুরিস্ট পুলিশ ও বিচ কর্মীরা এ সময় হ্যান্ড মাইক হাতে নিয়ে পর্যটকদের সৈকতে নামা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছেন।

টুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘বৈরী আবহাওয়ায় এখনো সমুদ্র উত্তাল রয়েছে। এ জন্য বিপদ এড়াতে পর্যটকেরা যাতে সমুদ্রে না নামেন, তার জন্য সতর্ক করা হচ্ছে। বিভিন্ন পয়েন্টে টুরিস্ট পুলিশের পাহারা বসানো হয়েছে এবং মাইকিং করে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।’

এদিকে গত ১০-১২ দিনের তাপপ্রবাহের কারণে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল জনজীবন। বুধবার থেকে চলা বৃষ্টিতে কিছুটা স্বস্তিও ফিরেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের কক্সবাজার কার্যালয়ের আবহাওয়াবিদ মো. আবদুল হালিম বলেন, ‘কক্সবাজার উপকূলে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে সর্বোচ্চ চার ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। বৃহস্পতিবার কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এ জন্য সাগরে সব ধরনের নৌযান উপকূলের কাছাকাছি অবস্থান করতে বলা হয়েছে।’

কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ড. তানজির সাইফ আহমেদ বলেন, ‘কয়েক বছর ধরে সৈকতের ডায়বেটিক পয়েন্ট থেকে কলাতলী পয়েন্ট পর্যন্ত বর্ষায় সামুদ্রিক জোয়ারে ভাঙন দেখা দিচ্ছে। এসব পয়েন্টে ভাঙনরোধে জিওব্যাগ বসানোর কাজ চলমান রয়েছে। সেখানে স্থায়ী ভাঙনরোধে একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    দুর্গাপূজার সময় বৃষ্টি বাড়ার সম্ভাবনা

    দেশের সব বিভাগে বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা

    ফের লঘুচাপ, সারা দেশে বাড়বে বৃষ্টির প্রবণতা

    বৃহস্পতিবারও দিনভর বৃষ্টির সম্ভাবনা 

    বৃষ্টি থাকবে আরও দুই দিন

    নিম্নচাপে টানা ৪ দিন বৃষ্টির সম্ভাবনা 

    জ্যোতিদের ফাইনাল খেলার সম্ভাবনা দেখছেন পাপন 

    দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে একটি চক্র ষড়যন্ত্র করছে: টুকু

    জোরপূর্বক বাল্যবিবাহ, ১৫ দিনের মাথায় নববধূর আত্মহত্যা

    আফগানিস্তানে হাজারা নারীদের বিক্ষোভ, ‘গণহত্যা’ বন্ধের আহ্বান

    টুঙ্গিপাড়ায় আইজিপির শ্রদ্ধা নিবেদন

    পরিত্যক্ত সিনেমা হলে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেপ্তার ২