Alexa
রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

কাজের সন্ধানে গিয়ে নিখোঁজ, ৩৬ বছর পর ফিরলেন মনির

আপডেট : ১১ আগস্ট ২০২২, ১৮:৫৪

সাত বছর বয়সে হারিয়ে যান মনির হোসেন। ছবি: আজকের পত্রিকা কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার বনকুট গ্রামের মনির হোসেন ১৯৮৭ সালে সিলেটে কাজের সন্ধানে গিয়ে নিখোঁজ হন। তখন তাঁর বয়স ছিল সাত বছর। অনেক খোঁজাখুঁজির পর আশাই ছেড়ে দিয়েছিলেন পরিবারের সদস্যরা। সবাই ধরেই নিয়েছেন মনির মারা গেছেন।

নিখোঁজের প্রায় ৩৬ বছর পর গতকাল বুধবার সকালে আবদুল হালিম নামের এক ব্যক্তির সহযোগিতায় স্ত্রী ও চার সন্তানকে নিয়ে নিজ বাড়ি ফিরেছেন মনির। মনির হোসেন গুনাইঘর দক্ষিণ ইউনিয়নের বনকুট গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রবিউল্লাহ মিয়ার (মৃত) ছেলে। বুধবার বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মনির হোসেনকে দেখতে ভিড় জমিয়েছেন প্রতিবেশীরা। আপন ঠিকানা ও স্বজনদের খুঁজে পেয়ে যারপরনাই নেই খুশি মনির হোসেন।

আবদুল হালিম বলেন, ‘আমার বয়স যখন ১১ বছর তখন আমি সিলেটের অনুরাগ এলাকার জগুলু মেম্বারের আনোয়ার বেকারিতে কাজ শুরু করি। মনির হোসেন জগুলু মেম্বারের বাড়িতে কাজ করার সুবাদে তার সঙ্গে পরিচয় ও বন্ধুত্ব হয়। আমি স্বাধীন নামে ডাকতাম। তার পরিচয় জিজ্ঞাসা করলে সে কিছুই বলতে পারত না। আমি চাকরি ছেড়ে দেশে চলে আসি। দেবিদ্বার উপজেলার জাফরাবাদ গ্রামের এক লোক হারিয়ে গেছে বহু বছর আগে, তাঁকে খুঁজছে তাঁর পরিবার। এই কথা শুনে আমার সন্দেহ হয়। সিলেটে মনির হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তখন মনির আমায় বলে, আসলে আমি হিন্দু না মুসলমান তাও বলতে পারব না! এরপর আমি সিদ্ধান্ত নিই, তার ঠিকানা খুঁজে বের করব। খোঁজাখুঁজি শুরু করি। খুঁজতে খুঁজতে গুনাইঘরের বনকুট গ্রামে এসে তার মতো অবিকল চেহারা তার ছোট ভাই আবু হানিফকে খুঁজে পাই। পরে ভিডিও কলের মাধ্যমে দেখে নিশ্চিত হয়ে সিলেটে মনির হোসেন যেখানে থাকে ওখানে নিয়ে যাই। মনিরকে দেখে তাঁর ভাই বোনেরা আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন।’

মনিরের ছোট ভাই আবু হানিফ ও বোন রোকেয়া বেগম বলেন, ভাইকে খুঁজতে অনেকবার সিলেটে গিয়েছিলেন আব্বা। কিন্তু কোথাও পায়নি। আব্বা সারা দিন খোঁজাখুঁজি করে রাতে মসজিদে ঘুমাতেন। এক টুকরো জমি ছিল, ছেলের খোঁজে তাও বিক্রি করে দেন। আমরা ধরে নিয়েছিলাম আর হয়তো বেঁচে নেই। আশাও ছেড়ে দিয়েছিলাম। ছেলে হারানোর শোকে প্রথমে বাবা ও পরে মা অকালে মারা যান। আজ বাবা-মা বেঁচে থাকলে খুব খুশি হতেন। এই বলেই ভাইকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন দুই ভাই-বোন।

মনির হোসেন বলেন, ‘আমার ভোটার আইডি কার্ডে নাম স্বাধীন। সাত বছর বয়সে কাজের সন্ধানে গিয়ে হারিয়ে যাই। পরে সিলেটে শাহ পরান মাজারে কান্নাকাটি করতে দেখে শাহীন নামে এক রিকশাচালক আমাকে তাঁর বাড়িতে আশ্রয় দেন। তাঁর বাড়িতে আমি দুই বছর থেকে শাহপরান বাজারে কাঁচামালের ব্যবসা শুরু করি। সেখানে কয়েক বছর ব্যবসা করার পর সিলেটের অনুরাগ এলাকায় জগুলু মেম্বারের বাসায় কাজ শুরু করি। দিনের বেলায় যেমন তেমন সময় কেটে গেলেও রাতে মা-বাবার জন্য ছটফট করতাম। বাড়ির ঠিকানা মনে করার চেষ্টা করছি। কিন্তু মনে করতে পারতাম না। ৩৬ বছর পর নিজের ভিটায় স্বজনদের খুঁজে পেয়ে আমি অনেক খুশি।’

গুনাইঘর দক্ষিণ ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো. কামাল হোসেন বলেন, ‘৩৬ বছর আগে মনির হোসেন হারিয়ে যায়। এরপর তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যায়নি। মনির হোসেন বাড়ি ফিরে আসায় এলাকার সবাই খুশি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বোয়ালমারীতে এক পরিচিতের বাসায় আত্মগোপনে ছিলেন রহিমা বেগম: দৌলতপুরের ওসি

    খুলনায় নিখোঁজ রহিমা বেগম ফরিদপুর থেকে জীবিত উদ্ধার

    ছুরিকাঘাতে চাঁদপুর জেলা আ. লীগ নেতাকে হত্যা

    ধর্ষণে ব্যর্থ হয়েই স্কুল শিক্ষার্থীকে হত্যা করেন কোচিং শিক্ষক, আদালতে স্বীকারোক্তি

    কলেজশিক্ষার্থী হত্যার ঘটনায় হামলা-গ্রেপ্তারের ভয়ে পরীক্ষায় অংশ নেয়নি ৪ পরীক্ষার্থী

    ফুটবল টুর্নামেন্টের ট্রফি ভাঙলেন ক্ষুব্ধ ইউএনও

    ফুটবলারদের জন্য বিশেষ অ্যাপ আনছে ফিফা 

    শ্রীপুরে যুবককে তুলে নিয়ে রাতভর নির্যাতন, পরে মৃত্যু

    বোয়ালমারীতে এক পরিচিতের বাসায় আত্মগোপনে ছিলেন রহিমা বেগম: দৌলতপুরের ওসি

    খুলনায় নিখোঁজ রহিমা বেগম ফরিদপুর থেকে জীবিত উদ্ধার

    ফোন ভাঙার ঘটনায় নিষিদ্ধ হতে পারেন রোনালদো 

    অধিনায়ক সাবিনা খাতুন ও তাঁর মাকে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের সংবর্ধনা