Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

দুই গ্রাম পুলিশকে পেটালেন যুবলীগ নেতা

আপডেট : ১০ আগস্ট ২০২২, ১৮:৩২

তুচ্ছ কারণে গ্রাম পুলিশকে মারধর করেন যুবলীগ নেতা। ছবি: আজকের পত্রিকা জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নে পরিষদে দুই গ্রাম পুলিশকে পেটানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে মাহমুদপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. শাহিনুর রহমান শাহীনের বিরুদ্ধে।

গতকাল সোমবার দুপুর ১২টা দিকে উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। আহত দুই গ্রাম পুলিশ হলেন—মাহমুদপুরের সংখ্যালঘু পরিবারের চিমুর ছেলে ও মাহমুদপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ বুলেট (৩০) ও সুরেনের ছেলে গ্রাম পুলিশ বিমল চন্দ্র (৪০)। আহতরা জামালপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপুরে মাহমুদপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে মাহমুদপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সোহানুর রহমান শাহীনের ছোট ভাই শাকিলের সঙ্গে গ্রাম পুলিশ বুলেটের কথা-কাটাকাটি হয়। খবর পেয়ে শাহীন ঘটনাস্থলে এসে গ্রাম পুলিশ বুলেটকে কাঠ দিয়ে বেধড়ক পেটান। বুলেটকে তাঁর সহকর্মী বিমল রক্ষা করতে গেলে তিনি মারধরের শিকার হন।

আহত বুলেট বলেন, ‘দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে যুবলীগ নেতা শাহিনুর রহমান শাহিনের ছোট ভাই শাকিল আমাকে কলম আনতে বলে। আমি খোঁজাখুঁজি করে কলম না পেয়ে তাকে বলি যে, ভাই কলম পাইলাম না। তারপরে আমাকে গালিগালাজ করে। তারপরে ইউনিয়ন পরিষদ সচিব আমাদের মিল করিয়ে দেন। পরে শাকিল ইউনিয়ন পরিষদের দোতলায় গিয়ে আমাকে গালিগালাজ করেন, আর তাঁর বড় ভাই যুবলীগ নেতাকে ফোন দিয়ে বলে। পরে শাহিনুর রহমান শাহিন ইউনিয়ন পরিষদে এসে আমাকে কাঠ দিয়ে আমাকে পেটাতে থাকে। বিমল চন্দ্র ছাড়াতে এলে তাকে মারধর করে। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে মেলান্দহ হাসপাতালে ভর্তি করে।’

জামালপুর সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শিল্পী রানী রায় বলেন, ‘দুই গ্রাম পুলিশ চিকিৎসাধীন। একজনের হাতে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মাহমুদপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সোহানুর রহমান শাহীন বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদে এমনি কথা-কাটাকাটি হয়। এ বিষয়টি উপজেলা নেতাকর্মীদের বলা হয়েছে এবং আজম ভাইয়ের (মেলান্দহ-মাদারগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ সদস্য মির্জা আজম) সঙ্গে এ বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছি।’

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ইব্রাহিম খলিলুল্লাহ বলেন, ‘মাহমুদপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সোহানুর রহমান শাহীন বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

মাহমুদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, ‘মারামারির ঘটনা সময় আমি ইউনিয়ন পরিষদে ছিলাম না। হাসপাতালে গিয়ে তাদের দেখে এসেছি।’

এ বিষয়ে মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘এ ঘটনাটি আমি শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    মুক্তাগাছায় ছুরিকাঘাতে কাউন্সিলরের ছেলে নিহত

    প্রতিমা বিসর্জন দিতে গিয়ে যুবক নিহত

    শেরপুরের গারো পাহাড়ে অজানা প্রাণীর আতঙ্ক, এলাকাবাসীর দাবি বাঘ

    বকশীগঞ্জে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ 

    অন্তঃসত্ত্বাকে পিটিয়ে হত্যার ২৭ বছর পর ননদ গ্রেপ্তার

    দশমিনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে সরকারি গাছ চুরির অভিযোগ

    থাইল্যান্ডের কাছে ধরা খেল পাকিস্তান

    শিশু-কিশোরদের হাতে স্টিয়ারিং, সড়কে আতঙ্ক

    সব ডিভাইসের জন্য একক চার্জার আনতে ইইউ পার্লামেন্টে প্রস্তাব পাস

    বিএনপির রাজনীতি বিদ্যুৎবিহীন খাম্বার মতো আশাহীন ও অন্তঃসারশূন্য: ওবায়দুল কাদের

    দখলমুক্ত হয়নি জঙ্গল সলিমপুর

    বিচ্ছেদের পর স্ত্রীকে হত্যা, সাবেক স্বামী গ্রেপ্তার