Alexa
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

বাদামচাষিদের মাথায় হাত

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২২, ১২:০৯

মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার চরকাটারী ইউনিয়নে খেতে জমেছে পানি। অপরিপক্ব বাদাম তুলে নিচ্ছেন শ্রমিকেরা। ছবি: আজকের পত্রিকা মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় বাদাম চাষ করে দিনবদলের স্বপ্ন দেখেছিলেন যমুনা নদীর চরাঞ্চলের কৃষকেরা। তবে এ বছর একদিকে নদীভাঙন, অন্যদিকে পরিপক্ব হওয়ার আগেই খেত তলিয়ে যাওয়ায় বাদামের ফলন ভালো হয়নি। প্লাবিত চরে আশানুরূপ ফলন না হওয়ায় মাথায় হাত বাদামচাষিদের।

বাদামচাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আগে চরের বেলে মাটিতে তেমন একটা ফসল হতো না। ফলে এখানকার মানুষের অভাব-অনটন ছিল নিত্যসঙ্গী। কয়েক বছর ধরে পলি জমে ভরাট হওয়া চরের জমিতে ব্যাপকভাবে বাদাম চাষ হচ্ছে। উপজেলার বাচামারা, বাঘুটিয়া, চরকাটারী, জিয়নপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন চরে বাদামের ব্যাপক চাষ হয়। কম খরচে বেশি লাভ হওয়ায় চরের দরিদ্র পরিবারগুলো কয়েক বছর ধরে বাদাম চাষ করে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে। ডিসেম্বর-ফেব্রুয়ারি মাসে বোরো ধানের বদলে বাদাম চাষ করেন এসব এলাকার চাষিরা। তবে এবার ভাঙন জোরদার এবং পানির নিচে খেত ডুবে থাকায় বাদামের ফলন ভালো হয়নি।

প্রতি একর জমিতে ২৪-২৫ মণ ফলন হলেও এবার ফলন অর্ধেকে নেমে এসেছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা। বাঘুটিয়া ইউনিয়নের অসংখ্য বাদামচাষির সম্পূর্ণ বাদাম তলিয়ে গেছে।

জিয়নপুর ইউনিয়নের চর বৈন্যা এলাকার বাদামচাষি হজরত আলী ও আব্দুর রহমান জানান, তাঁরা ১৫-১৬ বছর ধরে বাদাম চাষ করছেন। এ বছর বাদামের বাজার ভালো থাকলেও সময়ের চেয়ে আগে পানি চলে আসায় অধিকাংশ বাদাম তলিয়ে গেছে। যতটুকু বাদাম তুলতে পেরেছেন, তার ফলনও ভালো হয়নি।

বাসাইল এলাকার শাহিদা বেগম বলেন, ‘আমি সাড়ে তিন বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছি, যার অর্ধেক তলিয়ে গেছে।’

বাদামচাষিদের মাথায় হাত

একই এলাকার হবিবুর রহমান বলেন, ৮ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করে ৩ বিঘা ঘরে আনতে পেরেছি, বাকি পাঁচ বিঘাই তলিয়ে গেছে।’

নদীপারের জমিতে অন্য ফসলের চেয়ে বাদাম চাষ বেশ সহজলভ্য। কম পরিশ্রমে অধিক ফলন হওয়ায় লাভও বেশি হয়। তাই প্রতিবছর বাদাম চাষ করে থাকেন এসব এলাকার কৃষকেরা। প্রতি বিঘা জমিতে বাদাম চাষে সব মিলিয়ে খরচ ৫-৬ হাজার টাকা। ভালো ফলন হলে প্রতি বিঘা জমি থেকে প্রায় ৬ মণ বাদাম পাওয়া যায়। প্রতি মণ বাদামের বর্তমান বাজারদর সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। সেই হিসাবে প্রতি বিঘা জমি থেকে ২৪-২৫ হাজার টাকার বাদাম বিক্রি করা যায়।

জ্বালানি হিসেবেও বাদামগাছের বেশ চাহিদা রয়েছে। চরাঞ্চলের জমিগুলোতে অন্যান্য ফসলের চেয়ে তাই বাদাম চাষই বেশ লাভজনক।

দৌলতপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ রেজাউল হক বলেন, ‘এ বছর দৌলতপুর উপজেলায় ২ হাজার ৩৪০ হেক্টর জমিতে বাদামের চাষ হয়েছে। গত বছর উপজেলায় বাদামের চাষ হয়েছিল ২ হাজার ৮৪০ হেক্টর জমিতে। আগাম পানিতে ও ভাঙনে এ বছর বাদামচাষিরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ভবিষ্যতে কৃষকদের বাদাম চাষে আগ্রহী করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু মো. এনায়েত উল্লাহ বলেন, ‘ভাঙন ও আকস্মিক বন্যা হওয়ায় বাদাম উৎপাদন গত বছর জেলায় ৩ হাজার ৪৮৫ হেক্টর হলেও এ বছর ২ হাজার ৮৫০ হেক্টর হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে যা ৬৩৫ হেক্টর কম। আমরা ভবিষ্যতে উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে আধুনিক ও নতুন বাদামের বীজ আমদানি করেছি। যারা ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তাদের তালিকা রাখা হচ্ছে, তহবিল এলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সহায়তা করা হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বিচ্ছিন্ন জনপদ রামুক্যাছড়ি পৌঁছায় না সরকারি সুবিধা

    বিসিএসজট কাটাতে কোন পথে পিএসসি

    মিশ্র বর্জ্যে ঝুঁকিতে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা

    ৬৫ বছর বয়সে ২২ কিমি সাঁতার শহিদুল ইসলামের

    যমুনার ভাঙনে ফের নিঃস্ব গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দারা

    কীটনাশকমুক্ত মাল্টা চাষে কৃষক শফির বাজিমাত

    টিভিতে আজকের খেলা (২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, সোমবার) 

    টাইফুন নোরুর আঘাতে ৫ উদ্ধারকর্মীর মৃত্যু, বিদ্যুৎহীন কয়েক লাখ বাসিন্দা

    দুই কিলোমিটার সড়কে দুর্ভোগ

    অবহেলায় বিবর্ণ সম্ভাবনা

    সাকিবের ঝোড়ো ফিফটিতে গায়ানার সহজ জয়  

    ইসলামে প্রতিবন্ধীদের অধিকার