Alexa
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

হবিগঞ্জের সিএনজি ফিলিং স্টেশন

গ্যাস-সংকটে বাড়ছে দুর্ভোগ

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২২, ১৪:৫৫

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার মিরপুরে একটি সিএনজি ফিলিং স্টেশনের সামনে গ্যাস নিতে আসা যানবাহনের দীর্ঘ সারি। ছবি: আজকের পত্রিকা হবিগঞ্জের সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলোতে এত দিন নির্দিষ্ট বরাদ্দের বাইরেও গ্যাস সরবরাহ করা হতো। তবে এবার কঠোর হয়েছে জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেড। এরই মধ্যে অনুমোদিত গ্যাসের বেশি সরবরাহ করায় চারটি ফিলিং স্টেশনকে বন্ধ রাখতে নির্দেশনা দিয়েছে কোম্পানি। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন যানবাহনের চালকেরা। অন্যদিকে গ্যাস-সংকটের অজুহাতে দ্বিগুণ ভাড়া গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হবিগঞ্জ জেলায় আটটি সিএনজি ফিলিং স্টেশন রয়েছে। এগুলোর মধ্যে অনুমোদিত সীমা অতিক্রম করায় ২৪ জুলাই থেকে চারটি স্টেশনকে বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম কর্তৃপক্ষ। বাকি চারটি স্টেশনে চাপ বেড়েছে কয়েক গুণ। মধ্যরাত থেকে সিএনজিচালিত যানবাহনগুলো সেখানে ভিড় করছে। প্রতিটি স্টেশনের সড়কের দুপাশে রাত থেকে দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। সেই সঙ্গে লোডশেডিংয়ের কারণে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বন্ধ থাকছে গ্যাস সরবরাহ। এমন ভোগান্তিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেন গ্যাস নিতে আসা যানবাহনের চালকেরা।

ভুক্তভোগী চালকদের দাবি, রাতভর লাইনে দাঁড়িয়েও মিলছে না কাঙ্ক্ষিত গ্যাস। মাঝারি গাড়িকে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা এবং ছোট গাড়িকে ১৫০ থেকে ২০০ টাকার বেশি গ্যাস দিচ্ছে না স্টেশনগুলো। দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়ানোর পর সামান্য পরিমাণে গ্যাস পেয়ে হতাশ অনেকে। আবার কেউ কেউ ফিরছেন খালি হাতে।

সদর উপজেলার ইন্ট্রাকো সিএনজি স্টেশনে গ্যাস নিতে আসা সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক মো. অলিদ মিয়া গতকাল দুপুরে বলেন, ‘রাত ২টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়েছি, এখন ১২টা বাজে। ২টার আগে গ্যাস নিতে পারব বলে মনে হয় না। এভাবে গ্যাস নিতেই যদি সারা দিন লেগে যায়, তাহলে আমরা ট্রিপ দেব কোন সময়?’

মো. সাইফুল ইসলাম নামের আরেক অটোরিকশাচালক বলেন, ‘রাত থাইক্কা লাইনে দাঁড়াইয়া গ্যাস মিলে ১০০ থেকে ১৫০ টাকার। এই টাকা দিয়ে দুইটা ট্রিপও দেওয়া যায় না। তাইলে আমরা কী করমু। আমরা দিন আনি দিন খাই। মালিকরে কিতা দিমু, আর নিজেই রাতে কী নিয়া ঘরে যাইমু?’

ইন্ট্রাকো সিএনজি স্টেশনের ম্যানেজার মো. হাসান ছারোয়ার মিঠু বলেন, ‘ইতিমধ্যে হবিগঞ্জের চারটি স্টেশন বন্ধ রয়েছে। আমাদের অনুমোদিত গ্যাসও শেষের দিকে। তাই চাহিদামতো সরবরাহ করতে পারছি না। সবাই যেন চলতে পারে, তাই সীমিতভাবে গ্যাস দেওয়া হচ্ছে।’

এদিকে জেলার প্রতিটি আঞ্চলিক সড়কে মানুষের যাতায়াতের প্রধান যানবাহনে পরিণত হয়েছে সিএনজিচালিত ইজিবাইক। তবে গ্যাস-সংকটের কারণে অনেক ইজিবাইক রাস্তায় নামতে পারছে না। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়েছে। সেই সঙ্গে অটোরিকশাগুলো অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ করেছেন অনেক যাত্রী।

বানিয়াচং সড়কের যাত্রী পারভেজ চৌধুরী বলেন, ‘সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালকেরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অজুহাতে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়। এখন গ্যাস-সংকটের অজুহাতে দ্বিগুণ ভাড়া নিচ্ছে।’

চুনারুঘাট সড়কের যাত্রী মনোয়ার হোসেন বলেন, ‘১৫-২০ টাকার ভাড়া এখন তারা ৩০-৪০ টাকা চায়। এভাবে যদি আমাদের জিম্মি করা হয়, তাহলে চলব কেমনে। গ্যাস কম থাকতে পারে, দাম তো আর বাড়ছে না? তাহলে তাঁরা ভাড়া বাড়াবে কেন?’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৩১ জুলাই রাত ১২টার পর থেকে গ্যাস সরবরাহ করতে পারবে বন্ধ থাকা চারটি ফিলিং স্টেশন। এরপরই এই ভোগান্তি কিছুটা কমার আশা করছেন পরিবহনচালকেরা। তবে ফিলিং স্টেশনগুলোকে অনুমোদিত গ্যাসের বেশি সরবরাহ না করার নির্দেশ দিয়েছে জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম কর্তৃপক্ষ। এতে এই ভোগান্তি শিগগিরই কমবে না বলে মনে করেন অনেকে।

তবে জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেডের হবিগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ের অফিসে বারবার কল দিলেও তাঁদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    খেতের ৬ টাকার ফুলকপি বাজারে বিক্রি ৩০ টাকায়

    বিভিন্ন স্থানে জয়িতা সম্মাননা

    উপহারের ১৬ ঘরে বসত নেই, বারান্দায় বিচালি

    ‘জনসচেতনতা ছাড়া আইন করে দুর্নীতি বন্ধ হবে না’

    চায়না কমলালেবু চাষ করে বাজিমাত শিক্ষক দম্পতির

    নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার যন্ত্রপাতি

    পুলিশের কড়া নিরাপত্তার মধ্যে হঠাৎ মুগদায় মোটরসাইকেলে আগুন

    ফোন চেক করে ‘ছাত্রদল বলে’ ৫ জনকে মেরে থানায় দিল ছাত্রলীগ 

    খেতের ৬ টাকার ফুলকপি বাজারে বিক্রি ৩০ টাকায়

    বিভিন্ন স্থানে জয়িতা সম্মাননা

    পল্টনে মোড়ে মোড়ে পুলিশের সঙ্গে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা 

    উপহারের ১৬ ঘরে বসত নেই, বারান্দায় বিচালি