Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

‘বন্ধু চল রোদ্দুরে’

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২২, ১০:০০

জীবনের নানা অধ্যায়ে, বিভিন্ন বয়সে, ভিন্ন কর্মকাণ্ডে বারবারই সামনে আসে বন্ধুত্ব। ছবি: সংগৃহীত বন্ধু চল রোদ্দুরে
মন কেমন মাঠ জুড়ে
খেলব আজ ওই ঘাসে
তোর টিমে তোর পাশে…

অনুপম রায়ের গাওয়া এই গানটা শুনলেই বন্ধুদের জন্য মন কেমন করে ওঠে। আমরা যত বড়ই হই না কেন, ঘুরেফিরে ভাবনাহীন শৈশব আর কৈশোরেই ফিরে যেতে চাই। আর সেই সোনালি সময়টার বড় অংশজুড়ে থাকে ছোট্টবেলার খেলার সাথি, বন্ধুরা। 

জীবনের নানা অধ্যায়ে, বিভিন্ন বয়সে, ভিন্ন কর্মকাণ্ডে বারবারই সামনে আসে বন্ধুত্ব। মন খারাপ কিংবা ভালো, দুঃখ ভাগ কিংবা সুখ উদ্‌যাপনে কিংবা দুর্দিনে পরিবারের পর নিঃস্বার্থভাবে পাশে থাকতে পারে এই বন্ধু নামক মানুষটি। 

বন্ধু দিবসের শুরুটা ১৯২০-এর দশকে, কার্ড কোম্পানি হলমার্কের হাত ধরে। ছবি: সংগৃহীত সত্যি বলতে বন্ধুদের জন্য আলাদা কোনো দিনক্ষণ হয় না। তবুও একটু বিশেষভাবে বন্ধুতা উদ্‌যাপন উপভোগ্যই বটে। আর এ জন্য একটি বিশেষ দিনও রয়েছে। যা ফ্রেন্ডশিপ ডে বা বন্ধু দিবস হিসেবে পরিচিত। জাতিসংঘ ঘোষিত সেই দিনটি ৩০ জুলাই। 

যদিও বন্ধু দিবস পৃথিবীর একেক অঞ্চলে একেক দিনে উদ্‌যাপিত হয়। আমেরিকা মহাদেশের অনেক দেশে ফেব্রুয়ারিতে উদ্‌যাপন করা হয় বন্ধু দিবস। এশিয়ার অনেক দেশে আবার আগস্ট মাসের প্রথম রোববার বন্ধু দিবস। বাংলাদেশেও বন্ধুত্বের এই দিনটি উদ্‌যাপন করা হয় আগস্টের প্রথম রোববার। বন্ধু দিবসে ফুল, কার্ড, রিস্ট ব্যান্ড ইত্যাদি উপহার দিয়ে বন্ধুদের প্রতি ভালোবাসা জ্ঞাপন করা হয়। অনেকে আবার বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে, পরস্পরের সঙ্গে সময় কাটান। 

জাতিসংঘ প্রতিবছরের ৩০ জুলাইকে আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস হিসেবে ঘোষণা দেয়। ছবি: সংগৃহীত বন্ধু দিবসের শুরুটা ১৯২০-এর দশকে, কার্ড কোম্পানি হলমার্কের হাত ধরে। হলমার্ক কার্ডস ইনকরপোরেটেডের প্রতিষ্ঠাতা জয়েস হল বন্ধু দিবসের গোড়াপত্তন করেছিলেন। ওই সময় এই দিবস চালুর পেছনে একটা ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যও খুঁজে পাওয়া যায়। শুরুর পর অনেক বছর শুধু কার্ড আদান-প্রদানের মাধ্যমে শুভেচ্ছা বিনিময়ই ছিল বন্ধু দিবসের মূল আয়োজন। সেই ঐতিহ্য এখনো আছে। 

১৯৫৮ সালে বন্ধু দিবস উদ্‌যাপনের ক্ষেত্রে একটি আনুষ্ঠানিক সংগঠনের জন্ম হয়। র‍্যামন আরতেমিও ব্রাচো নামের এক ব্যক্তি প্যারাগুয়েতে গড়ে তোলেন ‘দ্য ওয়ার্ল্ড ফ্রেন্ডশিপ ক্রুসেড’ নামের একটি ফাউন্ডেশন। গঠনের পর থেকেই এই ফাউন্ডেশন বন্ধু দিবসের একটি বৈশ্বিক স্বীকৃতি আদায়ের চেষ্টা চালাতে থাকে। র‍্যামন ও তাঁর সতীর্থরা চেয়েছিলেন বন্ধুত্বের শক্তিকে উদ্‌যাপন করতে। এর মধ্য দিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার সংস্কৃতি সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্য ছিল তাঁদের। ওই সময় এই ফাউন্ডেশন ‘ফ্রেন্ডশিপ উইক’ আয়োজন করত। সেই বিশেষ সপ্তাহটি শেষ হতো ৩০ জুলাই। 

অবশেষে দীর্ঘ ৫৩ বছরের চেষ্টার পর ২০১১ সালে জাতিসংঘ প্রতি বছরের ৩০ জুলাইকে আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস (ইন্টারন্যাশনাল ডে অব ফ্রেন্ডশিপ) হিসেবে ঘোষণা দেয়। এভাবেই বন্ধুত্ব উদ্‌যাপনের আয়োজন পায় আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। 

বাংলাদেশে বন্ধুত্বের এই দিনটি উদ্‌যাপন করা হয় আগস্টের প্রথম রোববার। ছবি: সংগৃহীত এ তো গেল আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবসের ইতিহাস। এবার না হয় বন্ধু দিবস ঘিরে নিজের পরিকল্পনা সাজানো যাক। সময় থাকলে বন্ধুরা মিলে বেরিয়ে পড়তে পারেন কাছেপিঠে কোথাও। কিংবা পছন্দের কোনো উপহার দিয়ে চমকে দিলেন প্রিয় বন্ধুকে। যাপিত জীবনের নানা ব্যস্ততার মধ্যেও দিনটি কাটান একটু অন্যভাবে। উদ্‌যাপন করুন বন্ধুত্ব। অকারণ হাসি আর আনন্দে কাটুক সবার বন্ধু দিবস। 

তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া টুডে, হিন্দুস্তান টাইমস, জাতিসংঘ, নিউইয়র্ক টাইমস

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    দশমীর সাজে সাবেকি গয়না

    বাড়িতেই বানান ক্ষীর নারকেল নাড়ু 

    নবমীর নিরামিষ সবজি

    মেলায় যাইরে, মিষ্টি খাইরে

    অষ্টমীর অঞ্জলিতে ধুতি-পাঞ্জাবির মেলবন্ধন

    পূজায় বাড়িতেই বানান মিষ্টি

    ধান ছেড়ে টমেটো চাষ

    সিসিকের ভান্ডার থেকে গায়েব ৫৩৫টি মিটার

    নদীর চর দখল করে ধান চাষ

    রাস্তা বন্ধ করল প্রতিবেশী ১২ পরিবার অবরুদ্ধ

    মেসির রেকর্ডের রাতে পিএসজির হোঁচট

    দেয়াল তুলে শীতলক্ষ্যার তীর দখল চেয়ারম্যানের