Alexa
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

রাজশাহীতে আড়াই ঘণ্টা ট্রেন অবরোধ করে রাখলেন পরীক্ষার্থীরা

আপডেট : ২৭ জুলাই ২০২২, ২০:০২

রেল লাইনে সুয়ে পড়েন ভর্তি–ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা ট্রেনের শোভন কোচগুলোতে সবাই ঠাসাঠাসি করে উঠেছেন। ভেতরে পা ফেলার জায়গা নেই। তারপরও জানালা দিয়ে ঢোকার চেষ্টা করছেন অনেকে। আর ট্রেনের সামনে দাঁড়িয়ে হাজারেরও বেশি পরীক্ষার্থী। কেউ কেউ শুয়ে পড়ছেন রেললাইনে। তাঁদের দাবি, সবাইকেই এই ট্রেনে নিয়ে যেতে হবে গন্তব্যে। 

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা পরীক্ষার্থীরা আজ বুধবার বিকেলে এভাবেই প্রায় আড়াই ঘণ্টা ‘পদ্মা এক্সপ্রেস’ ট্রেন অবরোধ করে রাখেন। ট্রেনটি বিকেল ৪টায় রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করার কথা ছিল। অবরোধ করে রাখার কারণে সময়মতো যাত্রা হয়নি। অবশেষে সন্ধ্যা ৬টা ২৩ মিনিটে ট্রেনটি প্ল্যাটফর্ম ছাড়ে। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাবিতে এবার তিন দিনের ভর্তি পরীক্ষার্থী ছিলেন ১ লাখ ৭৮ হাজারের বেশি। তাঁদের সঙ্গে এসেছিলেন অভিভাবকেরাও। সব মিলিয়ে প্রায় তিন লাখ মানুষ এসেছিলেন রাজশাহী। পরীক্ষার শেষ দিনেই ট্রেনে বাড়ি ফেরার দাবিতে রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেন অবরোধের ঘটনা ঘটল। 

অবশেষে রেল কর্মকর্তারা ভর্তি–ইচ্ছুকদের বোঝাতে সক্ষম হলে ট্রেনটি স্টেশন ছেড়ে চলে যায়। ছবি: আজকের পত্রিকা ট্রেনটি ছাড়ার আগেই বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী স্টেশনে ছুটে যান। টিকিট না থাকলেও হুড়মুড় করে অনেকে উঠে যান। বাকি থাকেন আরও অন্তত তিন হাজার শিক্ষার্থী। তাঁরা এই ট্রেনে অতিরিক্ত কোচ সংযোজনের দাবিতে ট্রেনটি অবরোধ করেন। ট্রেনের সামনে তাঁরা শুয়ে পড়েন। 

ইঞ্জিন স্টার্ট দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে ট্রেন। পরীক্ষার্থীদের সরে যেতে ট্রেনটি যতবার হুইশেল দেয়, ততবারই পরীক্ষার্থীরা চিৎকার করতে থাকেন। দিতে থাকেন স্লোগান। রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তাঁদের সরাতে ব্যর্থ হন। আসে দাঙ্গা পুলিশ। এরপর আসে র‍্যাব। কিন্তু কেউ পরীক্ষার্থীদের জোর করে সরিয়ে দেওয়ার সাহস দেখায়নি। শেষমেশ পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাপরিচালক অসীম কুমার তালুকদার গিয়ে পরীক্ষার্থীদের বোঝান যে, এরই মধ্যে এই ট্রেনে দুটি অতিরিক্ত কোচ লাগানো হয়েছে। আরও একটি দেওয়া হচ্ছে। এর বেশি সামর্থ্য তাঁর নেই। এই ট্রেনে যাঁরা যেতে পারবে না তাঁদের রাতে পাঠানো হবে। 

এ ছাড়া পরীক্ষার্থীরা লিখিতভাবেই মহাব্যবস্থাপকের কাছ থেকে এই প্রতিশ্রুতি আদায় করেন। কিন্তু এর মধ্যেই আরে কদল বাগড়া দেয়। এই দলের কেউ কেউ বলে ওঠেন, ট্রেন অবরোধ করায় তাঁদের মারধর করা হয়েছে। গালি দেওয়া হয়েছে। পাথর ছোড়া হয়েছে। ফলে ট্রেনটি আটকেই থাকে। অবশেষে রেল কর্মকর্তারা ভর্তি–ইচ্ছুকদের বোঝাতে সক্ষম হন। এরপর ৬টা ২৩ মিনিটে ট্রেনটি স্টেশন ছেড়ে যায়। তখনো বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী স্টেশনে ছিলেন। 

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাপরিচালক অসীম কুমার তালুকদার বলেন, ‘সবাই এই বিকেলের ট্রেনেই ফিরতে চায়। এটা যৌক্তিক না অযৌক্তিক তা বোঝে না। শেষ পর্যন্ত ট্রেনে অতিরিক্ত তিনটি কোচ সংযুক্ত করে আন্দোলন করা পরীক্ষার্থীদের দুটি গ্রুপকে পাঠানো হয়েছে। আরেকটি গ্রুপ থাকল। রাতের ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনে তাঁদের পাঠানো হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    সিংড়ায় ভাসমান হাঁসের খামারিদের বিমা চালুর দাবি

    একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক রণেশ মৈত্র মারা গেছেন

    চলনবিলে মাছ ধরতে টাকা দিতে হয় জেলেদের

    বাবার মরদেহ বাড়িতে রেখে এসএসসি পরীক্ষায় বসেছে মরিয়ম

    এসএসসি পরীক্ষার্থীকে উত্ত্যক্ত করাকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষ, থানায় মামলা 

    আশুলিয়া থেকে ঈশ্বরদী গিয়ে ধর্ষণের শিকার ২ তরুণী, গ্রেপ্তার ৪

    সাগর-রুনি হত্যা: তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময় ৯২ বারের মতো পেছাল

    এখন ট্রাস্টি বোর্ড পুনর্গঠন-আতঙ্ক

    ২৫ কিমি সড়কে খানাখন্দ

    ভোটে ‘লড়তে’ হচ্ছে আ.লীগের পিকুলকে

    ভোটে হেরে গিয়ে লেবু চাষ বুলবুলের বাজিমাত

    ধুঁকছে কমিউনিটি ক্লিনিক