Alexa
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

গর্ভাবস্থায় শিশুদের হেপাটাইটিসের ঝুঁকি ৯০ শতাংশ

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২২, ১৭:১০

অনুষ্ঠানে আলোচকেরা হেপাটাইটিস বি ও সি-তে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সচেতনতার ওপর জোর দিয়েছেন। ছবি: আজকের পত্রিকা সাধারণ অবস্থায় শিশুদের হেপাটাইটিস বি ও সি-তে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকলেও গর্ভাবস্থায় এই ঝুঁকি ৯০ শতাংশ। এতে লিভার সিরোসিস ও ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি থাকে। বিশেষ করে বাড়িতে সন্তান প্রসবের ফলে এই ঝুঁকি আরও বেশি বলে মত দিয়েছেন চিকিৎসকেরা। 

রোববার (২৪ জুলাই) রাজধানীর বিজয়নগরে হোটেল অরনেটে লিভার ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম আয়োজিত বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবসের অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন চিকিৎসকেরা। 

লিভার ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন ওয়ার্ল্ড হেপাটাইটিস অ্যালায়েন্সের প্রধান নির্বাহী দাঞ্জুমা আদা ও হেলথ রিপোর্টার্স ফোরামের সভাপতি মো. রাশেদ রাব্বি। 

অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘গর্ভাবস্থায় যদি মায়ের শরীরে হেপাটাইটিস ‘বি’ কিংবা ‘সি’-এর জীবাণু থাকে, তাহলে ছয় সপ্তাহের মধ্যে সন্তানের দেহে প্রবেশ করে। কিন্তু আমরা পরীক্ষা করাই না। এ জন্য প্রত্যেক নবজাতককে জন্মের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে টিকা দিতে হবে। বিষয়টি আমরা ইতিমধ্যে সরকারকে অবহিত করেছি, কিন্তু কিছু সমস্যা রয়েছে।’ 

লিভার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব বলেন, দেশে প্রাতিষ্ঠানিক সন্তান প্রসবের হার অনেক পিছিয়ে। এখনো বাড়িতে ৫০ শতাংশের বেশি প্রসব হচ্ছে। কিন্তু মা ও দাইয়ের কেউই এ ব্যাপারে সচেতন নন। এতে করে মায়ের মাধ্যমে সন্তান সংক্রমিত হচ্ছে। এর জন্য সচেতনতার বিকল্প নেই। প্রত্যেক গর্ভবতী নারী একবার হলেও যেন এই টেস্ট করান। পারলে গর্ভধারণের আগেই করাতে হবে। 

মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের ১৮ শতাংশই হেপাটাইটিস ‘বি’ ও ‘সি’ ভাইরাসে আক্রান্ত জানিয়ে এই চিকিৎসক বলেন, ‘বাংলাদেশে ১ শতাংশেরও নিচে থাকলেও রোহিঙ্গাদের আক্রান্তের হার অনেক বেশি। এ জন্য ডি সেন্ট্রালাইজেশন করে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। আমরা চাই সাধারণ মানুষের কাছে খুব সহজেই সচেতনতা পৌঁছাতে। গণমাধ্যমকে এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে। এ ভাইরাসে আক্রান্তদের প্রতি ১০ জনের মধ্যে ৯ জনই জানেন না তাঁরা এটি বহন করছেন। পাশাপাশি চিকিৎসা ব্যয় কমাতে হবে। একটা টিকার দাম ৩০০-৪০০ টাকা, মাসে অন্যান্য চিকিৎসা বাবদ খরচ হয় ১০-১২ হাজার টাকা।’ 

স্বাস্থ্যের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. খুরশীদ আলম বলেন, চিকিৎসার চেয়ে যেকোনো রোগ প্রতিরোধ সবচেয়ে উত্তম। হেপাটাইটিসের চিকিৎসায় সরকার শেখ রাসেল, বারডেম ও শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়কে কয়েক কোটি টাকা দিয়েছে। ভাইরাসটি মা থেকে শিশুকে সংক্রমিত করে। এটির জন্য কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে যদি চিকিৎসা ও প্রাতিষ্ঠানিক সন্তান প্রসবের ব্যবস্থা করা যায়, তাহলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হবে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। 

খুরশীদ আলম বলেন, এসব কাজের জন্য অর্থের পাশাপাশি ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালাতে হবে। দেশে যত ব্লাড ব্যাংক আছে, সেখানে বিপুলসংখ্যক রক্ত সঞ্চালন হয়, সেখানে কী পরিমাণে ভাইরাসটি শনাক্ত হয় সেটি করতে পারলে প্রকৃত চিত্র উঠে আসবে। 

এ সময় ওয়ার্ল্ড হেপাটাইটিস অ্যালায়েন্সের প্রধান নির্বাহী দাঞ্জুমা আদা হেলথ রিপোর্টার্স ফোরামকে ধন্যবাদ জানিয়ে স্বাস্থ্যব্যবস্থায় আরও ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রোগ শনাক্তে এন্ডোসকপির প্রয়োজনীয়তা

    কবজিতে ব্যথা হলে

    মানসিক স্বাস্থ্যকে শিক্ষানীতিতে যুক্ত করার আহ্বান বিশেষজ্ঞদের

    অত্যধিক পেটব্যথা, কী করবেন

    দেশেই ফিস্টুলার উন্নত চিকিৎসা 

    পানিশূন্যতা রোধে যা করবেন

    তোয়াব খানের মৃত্যুতে আইজিপি ও র‍্যাব প্রধানের শোক

    কংগ্রেসের প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচার শুরু

    বিশ্ববিদ্যালয়ে ই-নথি ব্যবস্থা জোরদারের আহ্বান

    জ্যোতিদের ফাইনাল খেলার সম্ভাবনা দেখছেন পাপন 

    দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে একটি চক্র ষড়যন্ত্র করছে: টুকু

    জোরপূর্বক বাল্যবিবাহ, ১৫ দিনের মাথায় নববধূর আত্মহত্যা