Alexa
শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

সরাইল

বন্যার ক্ষত ৫০ কিমি সড়কে

আপডেট : ০৭ জুলাই ২০২২, ১২:২১

বন্যার পানির স্রোত এবং বড় বড় যানবাহনের চাকার আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত সরাইল-অরুয়াইল সড়ক। ছবিটি ওই সড়কের কালিশিমুল এলাকা থেকে সম্প্রতি তোলা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে সব মিলিয়ে ৫০ কিলোমিটার কাঁচা-পাকা রাস্তার ক্ষতি হয়েছে। এতে বেড়েছে জনদুর্ভোগ। উপজেলা সদরের সঙ্গে সরাইল হাওরাঞ্চলের যোগাযোগব্যবস্থা এখনো স্বাভাবিক হয়নি। উপজেলার অনেক সড়কের কিছু কিছু অংশ এখনো পানির নিচে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অফিস বলছে, এই ক্ষতির পরিমাণ সাড়ে ১৮ কোটি টাকা। এসব সড়ক সংস্কারের জন্য ক্ষতির পরিমাণ জানিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত জুন মাসের শুরুতে প্রথমে সরাইলের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। এরপর দ্রুত বাড়তে থাকে পানি। এতে উপজেলার সরাইল-অরুয়াইল ও মলাইশ-শাহজাদাপুর সড়ক দুটি পানিতে তলিয়ে যায়। পানির প্রবল স্রোতে শুরু হয় সড়কের ভাঙন। এ ছাড়া সরাইল-তেরকান্দা, বড্ডাপাড়া-তেরকান্দা-কাটানিশার সড়কও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উপজেলা সদর ইউনিয়ন ও গ্রামীণ সড়ক পানিতে নষ্ট হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিছু কালভার্ট, নালা ও সেতুর অংশবিশেষ।

উপজেলা সদর থেকে অরুয়াইল বাজার সড়কের কালিশিমুল নামক স্থানে উজান থেকে নেমে আসা বন্যার পানির স্রোতের তোড়ে রাস্তা ভেঙে খালের সৃষ্টি হয়েছে। অরুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, রাস্তাটিকে বাঁচানোর জন্য নিজ অর্থায়নে নৌকা বোঝাই করে ইট দিয়ে রাস্তাটি মেরামত করেছেন।

এ ছাড়া অরুয়াইল-সরাইল সড়কটির ভুইশ্বর বাজার থেকে লোপাড়া বাজার পর্যন্ত বড় ধরনের ভাঙন দেখা দিয়েছে। এই সড়ক দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে।

উপজেলার অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন সড়ক ভাঙনের কারণে চরম বিপাকে পড়েছেন মানুষ। সড়কের এই দুরবস্থার কারণে যান চলাচল কঠিন হয়ে পড়েছে। আরও বিপাকে পড়েছেন অসুস্থ রোগীর স্বজনেরা। যেকোনো জরুরি চিকিৎসার জন্য উপজেলা ও জেলা সদর হাসপাতালে আসতে হয়।

উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের বরইচারা গ্রামের লিয়াকত আলী বলেন, ‘আমার বয়স ৫৫ বছর। এই জীবনে বন্যার পানির এমন স্রোত দেখিনি। আর এই বন্যায় সড়কের যে ক্ষতি হয়েছে, এমন ক্ষতিও দেখিনি কখনো। উপজেলার অনেক সড়কের ওপর দিয়া সমুদ্রের মতো ঢেউ গেছে।’

ধামাউড়া গ্রামের সাহাজ উদ্দিন বলেন, ‘বন্যা রাস্তাঘাট ভাইঙ্গা একেবারে নাশ কইরা গেছে। এই রাস্তা যে কোন দিন ঠিক হইব, একমাত্র আল্লাহ জানেন।’

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপজেলা উপসহকারী প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ৫০ কিলোমিটার কাঁচা-পাকা রাস্তার ক্ষতি হয়েছে। এই ক্ষতির পরিমাণ সাড়ে ১৮ কোটি টাকা। এসব সড়ক সংস্কারের জন্য ক্ষতির পরিমাণের কথা জানিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে কাগজপত্র পাঠিয়েছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মুরগির খামার

    ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত মারিয়া বাঁচতে চায়

    জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, বৃষ্টিতে স্থবিরতা

    বাক্‌রুদ্ধ মিরাজ, সামনে এখন শুধুই অন্ধকার

    ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত

    হাসপাতালে ভর্তি চোর-গৃহস্থ

    আইফোনের নতুন সংস্করণের দাম বাড়তে পারে

    বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবিতে এখনো নিখোঁজ ১, অপেক্ষায় শিশুসন্তানসহ পরিবার

    সাধারণ ক্ষমা পেলেন স্যামসাংয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট

    মেসি হাসলে দল হাসে বললেন গালতিয়ের

    বিএনপি দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়: ওবায়দুল কাদের

    সাপের কামড়ে অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যু