Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

বাগেরহাটে সরছে অবৈধ বাঁধ, মুক্ত হচ্ছে নদী

আপডেট : ০৫ জুলাই ২০২২, ১৩:৩৫

প্রভাবশালীদের দখলে থাকা হোজির নদীর অবৈধ বাঁধ ও নেটপাটা অপসারণ শুরু হয়েছে। গতকাল দুপুরে বাগেরহাট সদরে। ছবি: আজকের পত্রিকা দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের দখলে থাকা বাগেরহাটের হোজির নদীর অবৈধ বাঁধ ও নেটপাটা অপসারণ শুরু হয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুরে বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলামের নেতৃত্বে হোজির সেতুর নিচের বাঁধ অপসারণ করা হয়।

এ সময় জ্যেষ্ঠ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফেরদাউস আনছারি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রতিনিধি, জেলা পুলিশের সদস্য, ডেমা ইউনিয়ন পরিষদের গ্রামপুলিশসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। পর্যায়ক্রমে এই নদীর সব বাঁধ ও নেট-পাটা অপসারণ করা হবে বলে জানায় প্রশাসন।

দীর্ঘদিন পরে নদীটির বাঁধ অপসারণ করায় খুশি স্থানীয়রা। তাঁরা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই নদীটিতে বাঁধ দিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা–কর্মীরা মাছ চাষ করতেন। তাঁরা এই নদী থেকে একটা মাছও ধরতে পারতেন না। গ্রামবাসীর প্রয়োজনে এই নদীতে পানি ওঠানো বা নামানো হতো না। এই নদীর পানি ব্যবহার করা হতো মৎস্যচাষিদের সুবিধার্থে। সরকারিভাবে নদীটির বাঁধ অপসারণ হওয়ায় তাঁরা খুশি হয়েছেন।

মো. আব্বাস নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, নদীর বাঁধ কাটায় তাঁদের ভালো হয়েছে। এখন নদী থেকে মাছ ধরতে পারবেন, নদীতে গোসল করতে পারবেন, নদীতে নৌকা চালাতে পারবেন। নিজেদের প্রয়োজনমতো এই নদী ব্যবহার করতে পারবেন।

স্থানীয় ব্যবসায়ী মো. আরজু বলেন, প্রশাসন সরকারি নদী অবৈধ দখলমুক্ত করেছে। এতে এলাকার মানুষের উপকার হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই নদীতে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা। উপজেলা প্রশাসন থেকে পাঁচ বছর আগেও একবার এই নদী দখলমুক্ত করা হয়েছিল। কিন্তু বাঁধ কেটে দেওয়ার কিছুদিন পরে আবারও বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ শুরু হয়, এটা দেখবে কে? পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে খননকাজ শুরুর জন্য দেওয়া একাধিক বাঁধ এখনো রয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলাম বলেন, বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জেনেছেন; হোজির নদীতে বাঁধ, পাটা ও নেট দিয়ে মাছ চাষসহ সব ধরনের অবৈধ কাজ হচ্ছিল। তাঁরা হোজির সেতুর নিচে দেওয়া বাঁধটি অপসারণ করেছেন। এই নদীর অন্যান্য স্থানে যেসব বাঁধ, নেট-পাটা রয়েছে, সেগুলোও অপসারণের কাজ চলছে। প্রয়োজনে আরও দু-এক দিন এই নদী দখলমুক্ত করতে কাজ করা হবে। এ ছাড়া ভবিষ্যতে কেউ এই খালে অবৈধ বাঁধ বা মাছ চাষ করতে চাইলে তাঁদের আইনের আওতায় আনা হবে।

অভিযোগ রয়েছে, ২০০৯ সাল থেকে বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা ইউনিয়নে অবস্থিত সাড়ে আট কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের হোজির নদীর ছয় কিলোমিটারে বাঁধ দিয়ে সমন্বিতভাবে মাছ চাষ করতেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের ২০ থেকে ২৫ জন নেতা-কর্মী। গত ৩০ জুন থেকে ৩ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন গণমাধ্যমে হোজির নদী দখল নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসে। এরপরেই দখলদারদের উচ্ছেদে নামে প্রশাসন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    ভরা বর্ষায়ও সেচ দিয়ে আমন চাষ

    বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মুরগির খামার

    আমন চাষের শুরুতেই বাড়তি খরচের বোঝা

    তিন দিনে আ.লীগ নেতার ৩ ঘেরে বিষ দিল দুর্বৃত্তরা

    পাঁচ দিনে চিনির দাম বাড়ল ৭ টাকা

    তরুণের মৃত্যুদণ্ড ও কিছু কথা

    ধর্ষণের অভিযোগে খুবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার

    প্রথম দক্ষিণ এশীয় হিসেবে ‘মিলেনিয়াম লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন স্থপতি মেরিনা

    মাদারগঞ্জে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতা

    আর্জেন্টিনায় উগ্র সমর্থকদের ক্ষোভের আগুনে পুড়ে ছাই ফুটবলারদের গাড়ি

    দেশে-বিদেশে সর্বত্রই ধিক্কৃত হচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল

    ভেড়ামারায় ফিলিং স্টেশনে অগ্নিকাণ্ড, নিহত ২