Alexa
শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

এক বছরে রেমিট্যান্স কমেছে ১৫%

আপডেট : ০৪ জুলাই ২০২২, ১০:৪৩

এক বছরে রেমিট্যান্স কমেছে ১৫% করোনাকালে দেশে রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়ে রেকর্ড হলেও পরিস্থিতির উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে এর প্রবাহ কমতে থাকে। রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে প্রণোদনা বৃদ্ধি করা হয় এবং বিভিন্ন দেশে অবস্থিত দূতাবাস ও মিশনেও তাগাদা দেয় সরকার।

তবে সদ্য বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরে (জুলাই-জুন) দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৭ লাখ ডলার। তার আগের ২০২০-২১ অর্থবছরের রেমিট্যান্সে রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছিল, যার পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ ডলার। সেই হিসাবে এক বছরে রেমিট্যান্স কমেছে ৩৭৪ কোটি ৬০ লাখ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা (ডলারপ্রতি ৯৩ টাকা ৫০ পয়সা ধরে)। এ ছাড়া শতকরা হিসাবে ১৫ দশমিক শূন্য ১১ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

রেমিট্যান্স কমার বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক মুখ্য অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘প্রবাসী আয় দেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। করোনায় রেমিট্যান্স অস্বাভাবিক বেড়েছিল। সেই তুলনায় এ বছর রেমিট্যান্স কমেছে। কিন্তু এটি করোনার আগের বছরের তুলনায় বেশি। আর প্রবাসীরা আয় কম পাঠিয়েছেন তা আমি মনে করি না। তবে, ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসী আয় কম আসার কারণ হিসেবে হুন্ডি মাধ্যম সচল হওয়াটাই দায়ী। এ ছাড়া, ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স এলে তার সঙ্গে নগদ প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। এরপরও রেমিট্যান্স আশানুরূপ না আসার কারণ হলো হুন্ডির মাধ্যমে ডলারের রেট বেশি পাওয়া যাচ্ছে। কোনো কোনো সময় ব্যাংকিং চ্যানেলের চেয়ে ১০ টাকা বেশি পান। তাহলে কেন ব্যাংকিং চ্যানেলে পাঠাবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রবাসী শ্রমিক রপ্তানি বছরে এক লাখ ছাড়িয়েছে। তাঁরা যে দেশে থাকেন সেসব দেশে শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি পাওয়ার কথা। এ জন্য বৈধ ও অবৈধ মিলে রেমিট্যান্স কমছে বলে মনে হয় না। বর্তমানে মুদ্রা বিনিময় হারে একপ্রকার অরাজকতা বিরাজ করছে। এটা পরিষ্কার না হলে সামনে বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স আসবে না। মুদ্রা বিনিময় নিয়ে অব্যবস্থাপনা দূর না হলে রেমিট্যান্স বাড়বে না।’

সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, ২০২০-২১ অর্থবছরে রেমিট্যান্সে হঠাৎ যে উল্লম্ফন হয়েছিল, তার একটি ভিন্ন প্রেক্ষাপট ছিল। ওই বছরের পুরোটা সময় করোনার কারণে সমস্ত পৃথিবীতে অর্থনীতি প্রায় থমকে গিয়েছিল। সে কারণে হুন্ডির মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠানোও বন্ধ ছিল। প্রবাসীরা সব টাকা পাঠিয়েছিলেন ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে। এ কারণে রেমিট্যান্স বেড়েছিল। আর করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসায় এবং কার্ব মার্কেটে ডলারের দাম বেশি থাকায় এখন আগের মতো অবৈধ হুন্ডির মাধ্যমে দেশে টাকা পাঠাচ্ছেন প্রবাসীরা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাইতে ১৮৭ কোটি ডলার, আগস্টে ১৮১ কোটি ডলার, সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ডলার এবং সর্বশেষ জুন মাসে ১৮৪ কোটি ডলার দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘অর্থবছরের শুরু থেকেই রেমিট্যান্স কম আসছিল। এ ধারা অব্যাহত ছিল বছরের শেষ মাস পর্যন্ত। এমনকি মাঝে দুটি ঈদের সময়ও আশানুরূপ রেমিট্যান্স আসেনি। এ বছর প্রচুর শ্রমিক প্রবাসী হয়েছে। কয়েক মাসের মধ্যেই তাঁরা আয় পাঠানো শুরু করবেন। এতে আমরা আশাবাদী যে সামনের দিনগুলোতে রেমিট্যান্স বাড়বে।’

জানা গেছে, রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক। এরই মধ্যে চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে রেমিট্যান্সে প্রণোদনার হার ২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে আড়াই শতাংশ করা হয়েছে। দেশে বড় অঙ্কের রেমিট্যান্স পাঠানোর শর্তও শিথিল করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মুরগির খামার

    ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত মারিয়া বাঁচতে চায়

    জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, বৃষ্টিতে স্থবিরতা

    বাক্‌রুদ্ধ মিরাজ, সামনে এখন শুধুই অন্ধকার

    ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত

    হাসপাতালে ভর্তি চোর-গৃহস্থ

    বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবিতে এখনো নিখোঁজ ১, অপেক্ষায় শিশুসন্তানসহ পরিবার

    সাধারণ ক্ষমা পেলেন স্যামসাংয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট

    মেসি হাসলে দল হাসে বললেন গালতিয়ের

    বিএনপি দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়: ওবায়দুল কাদের

    সাপের কামড়ে অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যু

    পরিবারের অমতে বিয়ে, জন্মদিন উদ্‌যাপনের আশ্বাসে এনে খুন