Alexa
শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

সিলেট-সুনামগঞ্জে বন্যা

‘খাইয়া বাঁচমু, না ঋণের কিস্তি দিমু’

আপডেট : ০৩ জুলাই ২০২২, ২৩:৫৮

ফাইল ছবি ‘বন্যায় মানুষের বাসাবাড়ির সবতা নষ্ট ওইগিছে। এখন আমরা ঘরদোয়ার ঠিক করতাম কিলা ইচিন্তায় আছি। অফিসে গিয়া স্যাররে বুঝাইয়া খইছি, তারা মানে না। স্যারে খইন ইতা মগর মুল্লুক পাইছি নি, কিস্তি দিতাম না। কাজ-কামও নাই। খাইয়া বাঁচমু, না কিস্তির টাকা দিমু?’  সিলেট ও সুনামগঞ্জের বানভাসি মানুষের অনেক কষ্টের ওপর এই এক নতুন বিপদ, যা জানালেন সিলেট নগরীর তেররতন এলাকার বাসিন্দা কুশু বেগম। পাঁচ সন্তান নিয়ে সাতজনের সংসার তাঁর। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী কুশুর স্বামী পান বিক্রেতা আবদুল হক। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) ‘আশা’ থেকে মাসিক ১০ হাজার টাকা কিস্তিতে ১ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। ভালোভাবে কিস্তিও চালিয়ে যাচ্ছিলেন। দুই দফা বন্যায় সবকিছু এলোমেলো হয়ে গেছে সেই হিসাব।

জুনে প্রথম দফা বন্যায় কুশু বেগম-আবদুল হক দম্পতির বাসায় সামান্য পানি উঠলেও তা ছিল তুলনামূলক কম। ওই মাসের শেষ দিকে সিলেট অঞ্চলে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় তাঁদের বাড়িতে কোমরপানি। বাসার সব জিনিসপত্র নষ্ট হয়ে গেছে। আবদুল হকের পানের দোকানও বন্ধ। পরিবার নিয়ে চরম সংকটে আছেন। এর মধ্যে ঋণের কিস্তির ১০ হাজার টাকা দিতে হবে ৯ জুলাই।

কুশু জানান, গতকাল কিস্তির জন্য লোক এসেছিলেন। অনেক কড়া কথাবার্তা বলে গেছেন। পরে কুশু উপশহরের অফিসে গিয়েছিলেন বিষয়টি বড় স্যারকে (এনজিও কর্মকর্তা) বুঝিয়ে বলে কিছুদিন সময় নেওয়ার জন্য। বড় স্যারের কাছ থেকে হতাশ হয়ে ফিরেছেন কুশু। কুশু-আবদুল হকের মতো অবস্থা সিলেট-সুনামগঞ্জের নিম্ন আয়ের অধিকাংশ পরিবারের। ঋণের কিস্তির চাপ আর সংসারের চাকা চালানোর টেনশনে দিন যাচ্ছে এসব পরিবারের কর্তাদের। আশা, ব্র্যাক, উদ্দীপন, গ্রামীণ ব্যাংক, শক্তি ফাউন্ডেশন ও এফআইভিডিবিসহ শতাধিক এনজিও সিলেট-সুনামগঞ্জের নিম্ন আয়ের পরিবারগুলো ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ঋণ দিয়ে রেখেছে। এসব ঋণে অনেকের সংসারের চাকাও ঘুরেছে। করোনা মহামারি কাটিয়ে যখন নিম্ন আয়ের পরিবারগুলো ঘুরে দাঁড়ানোর যুদ্ধ শুরু করেছিল, ঠিক তখন বন্যা এসে প্রথমে ফসল, এরপর ঘরবাড়ি ধ্বংস করে দিল। ফলে এসব মানুষ এখন চরম বিপাকে পড়েছেন। অনেকেই হারিয়েছেন মাথা গোঁজার ঠাঁই ঘরটিও। এই অবস্থায় ঋণের কিস্তির চাপ যেন গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তবে আশার সিলেট নগরীর তেররতন এলাকার মাঠকর্মী প্রবীর দেবনাথ আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘কিস্তির জন্য কাউকে চাপ দিচ্ছি না। বরং আমরা আরও ঋণ দিচ্ছি। যারা নিজের ইচ্ছায় কিস্তি দিচ্ছে, তাদেরটা নিচ্ছি। যারা দিতে পারে না তাদের কত অজুহাত।’

সিলেট সদরের নীলগাঁওয়ের ফুল বিবি জানান, তাঁর ছয়জনের পরিবার। একমাত্র ছেলে দুলাল মিয়া সিএনজি অটোরিকশা চালিয়ে সংসার চালায়। বছরের শুরুতে এফআইভিডিবি থেকে ঋণ নিয়ে অটোরিকশাটি কিনেছিলেন। সপ্তাহে ৪ হাজার টাকা কিস্তি দিতে হয়। বন্যায় ঘর ভেঙে গেছে। সকল জিনিসপত্র নষ্ট হয়ে গেছে। ফুলবিবি বলেন, ‘এখন ঘর ঠিক করব না কিস্তি চালাইব? আর খেয়ে বাঁচবোই কীভাবে?’ 

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার দুর্লভপুর গ্রামের মুজিবুর রহমান বলেন, ‘রক্তি নদীর পাড়ে ঘর। দুই দফা বন্যায় পুরো ঘর ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। খেয়ে বাঁচাই অসম্ভব। মানুষের সাহায্য-সহযোগিতায় কোনোরকমে চলতেছি। গত সোমবার অফিসার আইয়া গেছে। সামনের সোমবারে (আজ) আবার আইব। মাথায় কাজ করতেছে না।’

গ্রামীণ ব্যাংক সুনামগঞ্জ শাখার ম্যানেজার প্রদীপ চন্দ্র সরকার বলেন, ‘মাঠকর্মীদের আমরা খোঁজখবর নেওয়ার জন্য পাঠাচ্ছি। কিস্তির জন্য না। আমাদেরও হেড অফিসের গ্রাহকদের অবস্থার রিপোর্ট পাঠাতে হয়।’ সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি। নিম্ন আয়ের পরিবার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ঋণ দেওয়া এনজিও সংস্থাগুলোর সঙ্গে দ্রুত আলাপ-আলোচনা করুন। তাদের বলুন সিলেট বিভাগে ঋণের কিস্তি যেন অন্তত ছয় মাসের জন্য স্থগিত করা হয়। তাহলে এসব নিম্ন আয়ের পরিবার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে।’

একই কথা বললেন সংক্ষুব্ধ নাগরিক কমিটি সিলেটের সমন্বয়ক আবদুল করিম কিম। তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনে সরকার এসব সংস্থার ঋণ পরিশোধের ব্যবস্থা করুক। এমনিতেই মানুষ বড় অসহায় হয়ে পড়েছে এর মধ্যে ঋণের চাপ গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। আগে মানুষ বেঁচে থাকুক।’

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘নিম্ন আয়ের পরিবার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের যেন ঋণের কিস্তির জন্য চাপ না দেওয়া হয়, সে ব্যাপারে এনজিওগুলোর সঙ্গে আলাপ করে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গেও আলাপ করব।’ জানতে চাইলে সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। সবার সঙ্গে আলাপ করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে আমরা আগামী তিন মাসের জন্য কিস্তি স্থগিত রাখার জন্য চিঠি দেব সংশ্লিষ্টদের।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    হবিগঞ্জে চা-শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ

    দৈনিক মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে অনড় চা-শ্রমিকেরা

    এক মাসের মধ্যে সবকিছু আগের মতো স্বাভাবিক হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী

    ‘পেটের ভুখে রাস্তায় নেমেছি, ভিক্ষা চাই না পরিশ্রমের ন্যায্য মজুরি চাই’

    ‘কে-টু’ জয় করে দেশে ফিরেছেন ওয়াসফিয়া নাজরীন

    ধুনটে সার না পেয়ে সড়কে কৃষকেরা

    অথচ এই ছবিতে থাকতে পারতেন ওয়ার্ন ও সাইমন্ডস

    রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল কিনবে মিয়ানমার

    উত্তরায় বিআরটি প্রকল্পের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার সাংবাদিক

    ভারতকে বলেছি শেখ হাসিনা সরকারকে টেকাতে করণীয় সব করতে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    ডিম–মুরগির দাম বাড়লেও স্বস্তিতে নেই নরসিংদীর খামারিরা

    আসন্ন শীতেই তীব্র গ্যাস সংকটে পড়তে যাচ্ছে জার্মানি