Alexa
শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

ইভিএম নিয়ে কোন পথে হাঁটবে ইসি

আপডেট : ০৩ জুলাই ২০২২, ১১:৪০

ইভিএম নিয়ে কোন পথে হাঁটবে ইসি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কড়া নাড়ছে। দেড় বছর পরই নির্বাচন। তাই এখনই প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে প্রস্তুতির প্রসঙ্গ এলেই চলে আসে ইভিএমে ভোট গ্রহণের প্রসঙ্গটি। এই জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার নিয়ে চলছে নানা বাহাস। ভোট গ্রহণে আধুনিক এই পদ্ধতি ব্যবহার হবে কি হবে না, ইসি কোন পথে হাঁটছে—সে আলোচনা সর্বত্র। 

ইভিএম নিয়ে গত দুই সপ্তাহে ৩৯টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের মধ্যে ২৮টির সঙ্গে মতবিনিময়ও করেছে ইসি। মতবিনিময় শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল এ যন্ত্রের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ হবে কি না, সে সিদ্ধান্ত না নিলেও ‘ইতিবাচক’ মনোভাব পোষণ করেছেন। এর আগে অন্য কমিশনাররাও গণমাধ্যমে ইভিএমের পক্ষে কথা বলেছেন। ওই মতবিনিময় সভার শেষ পর্বে অংশ নিয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগও ইভিএমের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। তারা সব আসনে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ চায়। তবে একাধিক রাজনৈতিক দল ভোট দেওয়ার এই যন্ত্রের ওপর এখনো আস্থা রাখতে পারছে না। তাদের মতে, এই যন্ত্রটি হলো ভোট কারচুপির ডিজিটাল মাধ্যম।

গত ১৯, ২১ ও ২৮ জুন তিন ধাপে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে মতবিনিময় করে ইসি। দেশের নিবন্ধিত ৩৯টি দলকে আমন্ত্রণ জানালেও তাতে বিএনপিসহ ১১টি দল সাড়া দেয়নি। অংশগ্রহণকারী দলগুলোর একটি বড় অংশই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিপক্ষে।

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক শেষে কোনো সিদ্ধান্ত দেয়নি ইসি। ভবিষ্যতে কী করবে, তা-ও স্পষ্ট করেননি সিইসি বা অন্য কেউ। তবে তিন দফায় ২৮টি দলের নেতাদের কাছ থেকে পাওয়া মতামত লিপিবদ্ধ করে, তা যাচাই-বাছাই করবে ইসি। কমিশন সূত্র জানায়, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইভিএম গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হওয়ায় এ নিয়ে আলাদা করে পরিকল্পনা সাজানো হয়েছে। যদিও বিদ্যমান অবস্থায় ৩০০ আসনে ইভিএমে ভোট করার সক্ষমতা নেই ইসির। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাহাবউদ্দিন চুপ্পু আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমরা নিরপেক্ষ, প্রভাবমুক্ত ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাই। আমরা ৩০০ সিটেই নির্বাচন চাই।’ অনেকেই ইভিএমের বিরোধিতা করছে—এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যারা বলছে তাদের সমর্থন কয়জনের? ১০ জনের দল বা ২ জনের দলের যদি একটা কথা বলে আর বাংলাদেশের মেজরিটি পার্টি ও জনগণের দল আওয়ামী লীগের বক্তব্যের একটা ভার আছে। এখন নির্বাচন কমিশন স্বাধীন, তারা কী ব্যবস্থা নেবে, তা তাদের ব্যাপার।’ ৩০০ আসনে ইভিএমে করার সক্ষমতা ইসির রয়েছে বলে মনে করেন সাহাবউদ্দিন চুপ্পু। তিনি বলেন, তাদের কোনো ধরনের সমস্যা হলে সরকার সব ধরনের প্রযুক্তিগত সহায়তা দিতে প্রস্তুত আছে।

ইসি সূত্র বলছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনে এক শর মতো আসনে ইভিএমে ভোট করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। বর্তমানে ইসির কাছে ১ লাখ ৫৪ হাজার মেশিন আছে। এ দিয়ে ১০০ আসনের বেশি ভোট করা যাবে না।

আমন্ত্রণ পেয়েও ইসির বৈঠকে আসেনি বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের শরিক এলডিপি, কল্যাণ পার্টি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল। আরও অংশ নেয়নি বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি), কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, ইসলামী আন্দোলন, সিপিবি ও বাসদ। এসব দলের সঙ্গে আলাপে জানা গেছে, তারা ইভিএমে কোনোভাবে আস্থা রাখতে পারছে না। জাতীয় পার্টি ইভিএমে ভোট না করার পরামর্শ দিয়েছে ইসিকে।

অংশগ্রহণকারী দলের মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ স্পষ্ট করেই জানিয়েছে, তারা ইভিএমে ভোট চায়। তাদের বেশ কিছু শরিক দলও একই সুরে কথা বলেছে ইসির মতবিনিময় সভায়। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, তরীকত ফেডারেশন, সাম্যবাদী দল-এমএল, গণতন্ত্রী পার্টি, জাতীয় পার্টি (জেপি) ও বিকল্পধারা ইভিএমের পক্ষে কথা বলেছে। তবে তাদের কেউ আবার এখনো ইভিএমের প্রতি মানুষের পুরোপুরি আস্থা আসেনি—এমন মতও দিয়েছেন।

এদের বাইরে জাকের পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ), গণফ্রন্ট, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি, একাংশ) বিভিন্ন শর্ত দিয়ে ইভিএমে ভোট নিয়ে নিজেদের আপত্তি নেই বলে মতামত দেয়। 

ইভিএমে ইসির আস্থা যেভাবে
গত ২১ জুন ইভিএম নিয়ে মতবিনিময় সভা শেষে সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, সম্প্রতি যেসব নির্বাচন হয়েছে তাতে ইভিএমের ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাননি। বরং ব্যালটে যে তিক্ত অভিজ্ঞতা তার হয়েছে, সে কথাও জানান তিনি। সিইসি বলেন, ‘ইভিএমে যদি কোনো দোষত্রুটি থেকে থাকে, আমি ইভিএম বিশেষজ্ঞ না, তারপরেও আমি এ পর্যন্ত যতটুকু ইভিএম দেখেছি ইতিবাচক দিকগুলো অনেক বেশি।’

আরেক কমিশনার মো. আনিছুর রহমান মাদারীপুরে এক মতবিনিময় সভায় ইভিএমে ভুল ধরাতে পারলে বিপুল অঙ্কের পুরস্কারের ঘোষণার কথা জানান। তবে দুদিন পরে সিইসি বলেন, এমন কোনো সিদ্ধান্ত ইসি নেয়নি।

অপর কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আহসান হাবীব বলেছেন, ইভিএমে গোপন কক্ষের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা ডাকাত ছাড়া আর কোনো চ্যালেঞ্জ নেই ইসির। 

ইভিএম নিয়ে ইসি ও সরকারি দলের অবস্থান এক, সেটা পরিষ্কার হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন যেভাবে ইভিএমের পক্ষে প্রচার শুরু করেছে তাতে তাদের অবস্থান পরিষ্কার হয়ে গেছে। এই মেশিনের মাধ্যমে ভোট কারচুপি করা সহজ। সরকারি দল চায় সব আসনে ইভিএম। আর দুই নির্বাচন কমিশনারের সাম্প্রতিক বক্তব্যে সেটা অনেকটাই স্পষ্ট হয়ে গেছে যে ইসিও ইভিএমের পক্ষে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    কাদেরের বক্তব্যে দ্বিমত শরিক দলের নেতাদের

    বিপিসির হিসাবে বড় গরমিল

    একজন শিক্ষার্থীও হাতে পায়নি ইউনিক আইডি

    ডলার কারসাজি থামাতে কঠোর ব্যবস্থা নেই

    যে যেভাবে পারছে দাম বাড়াচ্ছে

    পবিত্র আশুরা আজ

    শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়াতে ভাবা হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

    আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িতে গুলি, রিমান্ডে মুখ খোলেনি আসামি

    বিএনপিকে কর্মসূচি পালন করতে দেওয়াও একটা প্রতারণা: ফখরুল

    শোক দিবস উপলক্ষে এতিমদের খাবার বিতরণ করল র‍্যাব

    সেনাবাহিনীতে চাকরির সুযোগ, আবেদন শুরু আজ থেকে

    আইফোনের নতুন সংস্করণের দাম বাড়তে পারে