Alexa
শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ আদালতের গর্ভপাত বিষয়ক রায়ের নিন্দায় জাতিসংঘ ও বিশ্বনেতারা

আপডেট : ২৫ জুন ২০২২, ০৯:৪১

গর্ভপাতের অধিকার বাতিল করায় রাস্তায় বিক্ষোভ করছেন যুক্তরাষ্ট্রের নারীরা। ছবি: রয়টার্স যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ আদালত নারীদের গর্ভপাতের অধিকার বাতিল করেছে। স্থানীয় সময় শুক্রবার এ ঘোষণার পর বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে নিন্দা। কারণ এটি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার।

কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ আদালতের রায়ের নিন্দা করেছে জাতিসংঘ। সংস্থাটির মানবাধিকার প্রধান মিশেল ব্যাচেলেট এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘মার্কিন আদালতের সিদ্ধান্ত একটি বড় ধাক্কা এবং নারীর মানবাধিকার এবং লিঙ্গ সমতার ক্ষেত্রে একটি বিশাল আঘাত।’ 

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেছেন, ‘আদালতের রায়ের কারণে গর্ভপাত বন্ধ হবে না, বরং মানুষ এখন গর্ভপাতের ভিন্ন পদ্ধতি খুঁজবে। এতে গর্ভপাত আরও মারাত্মক হয়ে উঠবে।’ 

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র আরও বলেছেন, ‘যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যের অধিকার হচ্ছে নারীদের ব্যক্তি স্বাধীনতা, পছন্দনীয় জীবন, ক্ষমতায়ন ও সমতার ভিত্তি। এই রায় গর্ভপাত ঠেকাতে পারবে না, বরং গর্ভপাতকে আরও মারাত্মক করে তুলবে।’ 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম ঘেব্রেসাস বলেছেন, ‘নারীর অধিকার রক্ষার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে আরও বেশি আশা করেছিলাম। আমি খুবই হতাশ, কারণ নারীর অধিকার অবশ্যই রক্ষা করা উচিত। আমি আশা করেছিলাম আমেরিকা এ ধরনের অধিকার রক্ষা করবে।’ 

এদিকে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ এক টুইটার পোস্টে বলেছেন, ‘গর্ভপাত সব নারীর মৌলিক অধিকার। এটি অবশ্যই রক্ষা করা উচিত।’ 

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, আমি মনে করি এ সিদ্ধান্ত আমেরিকাকে পেছনের দিকে নিয়ে যাবে। আমি যেকোনো নারীর গর্ভপাতের সিদ্ধান্ত বেছে নেওয়ার অধিকারে বিশ্বাসী। এ জন্যই যুক্তরাজ্যের আইনে সেটি রয়েছে। 

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের রায়কে ‘ভয়াবহ’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘কোনো নারী তাঁর শরীরের ব্যাপারে কী সিদ্ধান্ত নেবেন, কী সিদ্ধান্ত নেবেন না, সে ব্যাপারে কোনো সরকার, কোনো রাজনীতিবিদ বা কোনো পুরুষ কথা বলতে পারেন না। আমি কানাডার নারীদের বলতে চাই, আমরা সব সময় আপনার পছন্দের অধিকারের পক্ষে দাঁড়াব।’ 

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, গর্ভপাতকে বৈধতা দেওয়া আইনি ছিল ৫০ বছরের পুরোনো। এর নাম ছিল ‘রো বনাম ওয়েড’। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ আদালতের পুরোনো এ আইনটি বাতিল করেছে। 

এই রায়ের ফলে এখন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্যগুলো নিজস্বভাবে গর্ভপাত নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। ফলে রাজ্যগুলো চাইলেই গর্ভপাতের অনুমতি দিতে পারবে কিংবা বাতিল অথবা সীমাবদ্ধ করতে পারবে। এতে অনেক নারীই হারাতে পারেন গর্ভপাতের অধিকার। অনেক রাজ্যেই গর্ভপাতের অধিকার নিষিদ্ধ হতে পারে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    তাইওয়ানের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বাণিজ্য আলোচনার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের 

    পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিতে জাতিসংঘের প্রতি জেলেনস্কির আহ্বান 

    সালমান রুশদি বেঁচে আছেন, শুনে বিস্মিত হামলাকারী 

    রাশিয়ায় মহড়ায় অংশ নেবে চীন, প্রশান্ত মহাসাগরে দ. কোরিয়া-যুক্তরাষ্ট্র

    ইউক্রেন সংকট নিয়ে গুতেরেস-এরদোয়ানের সঙ্গে বৈঠক করবেন জেলেনস্কি 

    তালাক-ই-হাসান নিষিদ্ধ নয় ভারতে

    মহানবী (সা.)-এর মানবিকতার গল্প

    বয়স নিয়ে আজব দাবি

    অথচ এই ছবিতে থাকতে পারতেন ওয়ার্ন ও সাইমন্ডস

    রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল কিনবে মিয়ানমার

    উত্তরায় বিআরটি প্রকল্পের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার সাংবাদিক