Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

ভোর থেকেই পদ্মা সেতু অভিমুখে মানুষের ঢল

আপডেট : ২৫ জুন ২০২২, ১২:১৩

ভোর থেকেই প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যোগ দিতে জমায়েত হচ্ছে মানুষ। ছবি: আজকের পত্রিকা আজ শনিবার পদ্মা সেতুর উদ্বোধন। ভোর থেকেই প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থলে আসতে শুরু করেছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের লাখ লাখ মানুষ। আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে ব্যানার, প্ল্যাকার্ডসহ সভায় যোগ দিচ্ছে মিছিল। পদ্মা সেতুর কাঁঠালবাড়ী সংযোগ সড়কের পর থেকে পায়ে হেঁটে আসছে মানুষের ঢল। কোনো যানবাহনকে আসতে দিচ্ছে না প্রশাসন। 
 
সরেজমিনে দেখা যায়, ভোর ৫টায় হাজারখানেক মানুষের জটলা। সবার স্লোগান আর করতালিতে পুরো এলাকাতেই উৎসব চলছে। কোনোভাবেই ঠেকিয়ে রাখা যাচ্ছে না তাদের। র‍্যাব, পুলিশ হিমশিম খাচ্ছে তাদের ঠেকাতে। সকাল ৬টার পর খুলে দেওয়া হয় জনসভাস্থলের জমায়েতের স্থান। দীর্ঘ লাইনে স্ক্যানার দিয়ে চেক করে ঢুকতে দিচ্ছে তাদের। অন্যদিকে বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি জেলা থেকে বড় বড় লঞ্চযোগে সাধারণ মানুষ আসছে সভায় যোগ দিতে। সকল ৭টার মধ্যেই অর্ধেক এলাকা পূর্ণ হয়ে গেছে। 

এদিকে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে মাদারীপুরের ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী বাংলাবাজার ঘাটে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরি করা হয়েছে। পুলিশ, র‍্যাবসহ বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দায়িত্ব পালন করছে। বিভিন্ন মোড়ে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। পুরো আট কিলোমিটার এলাকার পুরোটাই সিসিটিভির আওতায় আনা হয়েছে। বসানো হয়েছে ২৬টি বড় পর্দার মনিটর। সাত শতাধিক মাইকে সাউন্ড দেওয়া হচ্ছে। ২০টি অস্থায়ী পন্টুনে লঞ্চ থেকে নামার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। 

ভোর থেকেই প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যোগ দিতে জমায়েত হচ্ছে মানুষ। ছবি: আজকের পত্রিকা সকাল সাড়ে ৬টায় বরিশাল থেকে আসা রমিজউদ্দিন বলেন, ‘রাত ১টায় লঞ্চে উঠছি। সারা রাত লঞ্চযাত্রা শেষে সকালে ঘাটে নামছি। আমাদের এটা ঈদের আনন্দের চেয়ে কোনো অংশেই কম নয়, বরং আমাদের মুক্তির দিন আজ। অনেক কষ্ট আর ভোগান্তি থেকে বাঁচার দিন। তাই আমাদের ফুর্তি কোনো অংশেই কম নয়। আমরা বরিশাল থেকে প্রায় ১ লাখ মানুষ সভায় আসব।’ 

মাদারীপুর পৌর শহর থেকে আসা নান্নু মুন্সি বলেন, ‘ভোররাতে রওনা দিয়েছি। সকালে আলো ফোটার আগেই চলে আসছি। প্রায় ৫ থেকে ৭ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে আসতে হয়েছে। কোনো যানবাহন আসতে দেওয়া হয় না। এখন মাঠে আসছি, এতেই খুশি আমরা। প্রধানমন্ত্রী আমাদের জন্য যে উপহার দিয়েছে, এতে আমাদের সামন্য কষ্ট কোনো কষ্টই না।’ 

এ বিষয়ে মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল বলেন, ‘মূল মঞ্চের সামনে সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‍্যাবসহ অন্তত ছয় স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সব ধরনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা আমরা করেছি। এখন ভালোভাবে অনুষ্ঠানটা শেষ হলেই আমাদের শান্তি। পুলিশের অন্তত ১৫ হাজার কর্মী সভায় নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন। এ ছাড়া র‍্যাবের ২ হাজারসহ সব মিলিয়ে প্রশাসনের অন্ত ৪০ হাজার কর্মীরা মাঠে রয়েছেন।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    গাজীপুরে শিল্প-কারখানায় এলাকাভিত্তিক সাপ্তাহিক ছুটির তালিকা

    জাবি উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনের ফলাফলে শীর্ষে আমির হোসেন 

    গাজীপুরে কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত ১ 

    বাড়ির চারদিকে দেয়াল তুলে ৩ পরিবারের যাতায়াত বন্ধের অভিযোগ

    প্রধানমন্ত্রীর সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের অনুদান পেলেন বগুড়ার ৮ সাংবাদিক

    পদ্মাসেতু নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবক, স্ত্রীর দাবি প্রতিহিংসা 

    ধর্ষণের অভিযোগে খুবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার

    প্রথম দক্ষিণ এশীয় হিসেবে ‘মিলেনিয়াম লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন স্থপতি মেরিনা

    মাদারগঞ্জে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতা

    আর্জেন্টিনায় উগ্র সমর্থকদের ক্ষোভের আগুনে পুড়ে ছাই ফুটবলারদের গাড়ি

    দেশে-বিদেশে সর্বত্রই ধিক্কৃত হচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল

    ভেড়ামারায় ফিলিং স্টেশনে অগ্নিকাণ্ড, নিহত ২