Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

প্রসার ঘটবে বাণিজ্যের

আপডেট : ২৪ জুন ২০২২, ১৬:৪৭

প্রসার ঘটবে বাণিজ্যের হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মভূমি গোপালগঞ্জ। রাজধানী ঢাকা ও এর আশপাশের জেলার সঙ্গে গোপালগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা আর উন্নয়নে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল খরস্রোতা পদ্মা নদী। তবে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে সেই বাধা দুর হওয়ার পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলায় খুলতে যাচ্ছে সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে গোপালগঞ্জে যোগাযোগ ও ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রসার ঘটবে। আর এতে খুশি এ জেলার মানুষ। এই সেতু করার মতো সাহসী উদ্যোগ নেওয়ায় বর্তমান সরকার ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ এই জেলার মানুষ।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর এ জেলায় তেমন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। আওয়ামী লীগ সরকার প্রথমে ১৯৯৬ সালে ও পরে ২০০৮ সালে সরকার গঠনের পর গত ১৯ বছরে এ জেলায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। তবে রাজধানীর সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ ও ব্যবসা-বাণিজ্যে বাধা হয়ে ছিল পদ্মা নদী। এখন সেই বাধাও দুর হয়েছে। সেতু খুলে দেওয়া হলে এ অঞ্চলে গড়ে উঠবে শিল্প-কারখানা। কমবে বেকারত্ব।

গোপালগঞ্জ জেলা শহরের বাসিন্দা সুশান্ত সাহা বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই ঢাকা যেতে দুর্ভোগের শেষ থাকত না। তখন ফেরি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যেত। ঘণ্টার পর ঘণ্টা নদীর পাড়ে অপেক্ষা করতে হতো। সেই চরম দুর্ভোগের অবসান হতে চলেছে। এটা এমন একটা অনুভূতি যা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

কাঁচামাল ব্যবসায়ী রহিম মিয়া বলেন, কাঁচামাল পরিবহনে তাঁদের ভোগান্তি শেষ হবে। কোনো মাল আর নষ্ট হবে না। পরিবহনে সময় ও খরচ কমবে, সেই সঙ্গে দেশের অন্য জেলাগুলোর সঙ্গে তাঁদের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে।

গোপালগঞ্জ শহরের গৃহিণী নাজমা বেগম বলেন, পদ্মা সেতু গোপালগঞ্জবাসীর জন্য সৌভাগ্য। তাঁরা গ্যাসের লাইন পাবেন এবং খুব সহজে ঢাকা যাতায়াত করতে পারবেন, সময় কম লাগবে। মুমূর্ষু রোগী নিয়ে ঢাকায় যেতে নদী পারের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করা লাগত, এখন আর লাগবে না।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ বৈরাগী বলেন, গোপালগঞ্জ নিম্ন জলাভূমি বেষ্টিত একটি জেলা। এ জেলার পাঁচ উপজেলাতেই মাছ চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। মাছ চাষ করে এখন পর্যন্ত গোপালগঞ্জের ১৭ হাজার খামারি স্বাবলম্বী হয়েছেন। জেলায় বর্তমানে প্রতি বছর ৪০ হাজার ৯৫২ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদিত হয়। যার বাজার মূল্য ৮১৯ কোটি ৪ লাখ টাকা।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু চালু হলে চাষিরা এ মাছ সরাসরি ঢাকায় এনে বিক্রি করতে পারলে প্রতি কেজি মাছে তাঁরা কমপক্ষে ৫০ টাকা বেশি পাবেন। এতে তাঁদের আয় বাড়বে ২০৫ কোটি টাকা। পদ্মা সেতুকে ঘিরে এ অঞ্চলে মাছ চাষ বৃদ্ধি, মাছ ও কৃষিনির্ভর শিল্প স্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

গোপালগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সাধারণ সম্পাদক শেখ মাসুদুর রহমান বলেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে দীর্ঘদিনের অবহেলিত এই জেলায় শিল্পবিপ্লবের একটি ব্যবস্থা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই বড় বড় শিল্পপতিরা এসেছেন। তাঁরা এখানে জমি কেনা শুরু করেছেন। জমির দাম বেড়েছে। তা ছাড়া ঢাকা-চিটাগাংয়ের দূরত্বের থেকে মোংলার দূরত্ব কম ও যাতায়াত সহজ হবে। যে কারণে এই দিকে শিল্পের বিকাশ বেশি হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    জগদ্ধাত্রী একাই এক শ

    বোনদের নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা অক্ষয়ের

    তারেক মাসুদ ছিলেন স্বপ্নের নায়ক

    নতুন পরিচয়ে সোহানা সাবা

    বস্তাপ্রতি ২৫০ টাকা বাড়ল চালের দাম

    ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে রুট পারমিট ছাড়া চলছে বাস, বাড়ছে দুর্ঘটনা

    ভেন্টিলেশনে সালমান রুশদি, কথা বলতে পারছেন না

    আষাঢ়ে নয়

    তুইও মরবি, আমাদেরও মারবি

    নতুন পরিচয়ে সোহানা সাবা

    তারেক মাসুদ ছিলেন স্বপ্নের নায়ক

    বোনদের নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা অক্ষয়ের