Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

২ মাসের মধ্যে রামগড়-সাব্রুম সীমান্তে ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া চালুর নির্দেশ: নৌপরিবহন সচিব

আপডেট : ২২ জুন ২০২২, ১৯:৫৬

রামগড় ও ভারতের ত্রিপুরার সঙ্গে স্থলবন্দর চালুর লক্ষ্যে বন্দরের নির্মাণকাজ পরিদর্শনে আসেন বাংলাদেশ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল। ছবি: আজকের পত্রিকা  আগামী ২ মাসের মধ্যে রামগড়-সাব্রুম সীমান্তে ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া চালু করা হবে। রামগড় স্থলবন্দরে অস্থায়ীভাবে ইন্টিগ্রেটেড চেক পোস্ট ও কাস্টমস কার্যালয় নির্মাণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার খাগড়াছড়ির রামগড় ও ভারতের ত্রিপুরার সঙ্গে স্থলবন্দর চালুর লক্ষ্যে বন্দরের নির্মাণকাজ পরিদর্শনে এসে প্রধানমন্ত্রীর বরাত এসব কথা বলেন বাংলাদেশ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল। 

এ সময় রামগড় পৌরসভার সম্মেলন কক্ষে মতবিনিময় সভায় করেন তিনি। মতবিনিময় সভায় তিনি বন্দরের অচলাবস্থার জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেন। বন্দরের নির্মাণকাজ বন্ধ থাকার কারণ চিহ্নিত করে দ্রুত কাজ শুরু করতে নির্দেশ দেন তিনি। এ ছাড়াও দুই দেশের বন্দর কর্তৃপক্ষ ভারতীয় হাই কমিশনের সঙ্গে সমন্বয় করে দ্রুত বন্দরের কাজ পুনরায় চালু করার জন্য আহ্বান জানান। 

বুধবার সকালে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল রামগড় পৌঁছালে স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ ও রামগড় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাঁকে স্বাগত জানানো হয়। পরে তারা বন্দরের জন্য নির্ধারিত স্থানের জমি অধিগ্রহণ ও বন্দরের অবকাঠামো নির্মাণকাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন। পরে দুপুরে রামগড় পৌরসভার সম্মেলন কক্ষে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনিক নেতৃবৃন্দদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মতবিনিময় সভার শুরুতে প্রকল্প নিয়ে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ম সচিব সরোয়ার হোসেন। 

স্থলবন্দর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলমগীর জানান, রামগড় স্থল বন্দরকে কেন্দ্র করে পুরো চট্টগ্রামের দৃশ্যপট পরিবর্তন হতে যাচ্ছে। বন্দরকে কেন্দ্র করে সড়ক সংস্কার হতে শুরু করে একাধিক বড় প্রকল্পের সেতু নির্মাণ হচ্ছে। রামগড় স্থল বন্দর চালু হলে স্থানীয় মানুষদের জীবনযাত্রার মান অভাবনীয় পরিবর্তন হবে। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলমগীর, রামগড় ৪৩ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল হাফিজুর রহমান, প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ম সচিব সরোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আলীমউল্যাহ, রামগড় উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খন্দকার মোহাম্মদ ইখতেয়ার উদ্দীন আরাফাত, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ ত্রিপুরা, রামগড় পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলম কামাল ও রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শামসুজ্জামনসহ প্রমুখ। 

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে রামগড়ে থেমে আছে স্থল বন্দরের অবকাঠামোগত নির্মাণকাজ। অভিযোগ রয়েছে সীমান্তে ভূমি জটিলতা এবং নকশার অনুমোদন না মেলায় নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এখনো পুরোদমে বন্দরের অবকাঠামো নির্মাণকাজ শুরু করতে পারেনি বন্দর কর্তৃপক্ষ। বন্দরের অবকাঠামো নির্মাণে এ বছরের ১০ জানুয়ারি ১২৫ কোটি টাকা ব্যয় নির্ধারণ করা হয়। ২০২৪ সালের মধ্যে নির্মাণকাজ বুঝিয়ে দিতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মনিকো লিমিটেডকে দায়িত্ব দেয় স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে হত্যা মামলার ১ আসামি গ্রেপ্তার 

    লক্ষ্মীপুরে বিএনপির সমাবেশ ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

    পদ্মাসেতু নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবক, স্ত্রীর দাবি প্রতিহিংসা 

    বিএনপির সমাবেশস্থলে ছাত্রলীগের হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগ

    ডিজেলের দাম বৃদ্ধিতে মৎস্য খাতে অস্থিরতা

    ৭ দিনের মধ্যে নূরকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে হাজিরের নির্দেশ

    বস্তাপ্রতি ২৫০ টাকা বাড়ল চালের দাম

    ধর্ষণের অভিযোগে খুবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার

    প্রথম দক্ষিণ এশীয় হিসেবে ‘মিলেনিয়াম লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন স্থপতি মেরিনা

    মাদারগঞ্জে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতা

    আর্জেন্টিনায় উগ্র সমর্থকদের ক্ষোভের আগুনে পুড়ে ছাই ফুটবলারদের গাড়ি

    দেশে-বিদেশে সর্বত্রই ধিক্কৃত হচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল