Alexa
শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

‘খালেদা জিয়াকে যারা ডুবিয়ে মারতে চায়, তাদের আমন্ত্রণে বিএনপি যেতে পারে না’

আপডেট : ২২ জুন ২০২২, ১৯:২২

বুধবার বিকেলে গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: ফাইল ছবি পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণে সরকারি আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি। আমন্ত্রণ পেলেও ওই অনুষ্ঠানে বিএনপির কোন নেতা-কর্মী অংশ নেবে না বলে পরিষ্কার করে জানিয়ে দিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। 

আজ বুধবার বিকেলে গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। তিনি বলেন, ‘আমি খুব পরিষ্কার করে বলতে চাই, যারা মানুষ হত্যা করে; যারা এই দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে পদ্মায় ডুবিয়ে মারতে চায়; যারা এই দেশের প্রথিতযশা মানুষ, যিনি দেশে জন্য আন্তর্জাতিক সম্মান নিয়ে এসেছেন সেই ড. ইউনূসকে চুবিয়ে মারতে চায় তাদের আমন্ত্রণে বিএনপির কোন নেতা বা কর্মী কখনই পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যেতে পারে না।’ 

পদ্মা সেতুর ব্যয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দাবির সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তিনি যে কথাগুলো বলেছেন, তার সঙ্গে বাস্তবতার কোন মিল নেই। তিনি যা বলছেন, সেটা ধারণা থেকে বলছেন।’ প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে ফখরুল বলেন, ‘কোন কোন খাতে কত ব্যয় হয়েছে, স্পষ্ট করে বলুন।’ 

বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এসে পদ্মা সেতু নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেয়—প্রধানমন্ত্রীর এমন অভিযোগকে মিথ্যাচার, সত্যের অপলাপ এবং বিএনপিকে জনগণের সামনে হেয় প্রতিপন্ন করা ছাড়া আর কিছু নয় বলে মন্তব্য করেন ফখরুল। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু নিয়ে বিএনপি সরকারের আমলে করা সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের রিপোর্টই এই সেতু নির্মাণের মূল ভিত্তি। এটার ওপর ভিত্তি করেই বর্তমান সরকার পদ্মা সেতু নিয়ে কাজ করেছে। এরপরেও তিনি (প্রধানমন্ত্রী) সমানে বলে যাচ্ছেন যে, এটা বিএনপি সরকার বন্ধ করে দিয়েছিল।’ তিনি আরও বলেন, ‘সমস্যাটা অন্য জায়গায়। কাজ শুরুর পরে যখন বন্ধ করে দিতে হয়েছিল দুর্নীতির কারণে, তখন থেকেই সমস্যাটা শুরু হয়েছে। সেটার জন্য বিএনপিকে দায়ী করেন, ড. ইউনূসকে দায়ী করেন।’ 

বিএনপির নেতৃত্ব নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন ফখরুল। বিএনপিতে নেতৃত্বের সংকট নেই দাবি করে তিনি বলেন, ‘পরিষ্কার করে বলছি যে, নেত্রী আমাদের দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, তিনিই আমাদের নেতা। তাঁর অনুপস্থিতিতে তারেক রহমান আমাদের নেতা। এখানে কোন রকমের অস্পষ্টতা নেই।’ 

ক্ষমতাসীন দলই নেতৃত্বের সংকটে আছে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তাদের (আওয়ামী লীগ) সংকট তো আছে। একমাত্র হাসিনা ছাড়া আর কেউ তো নেই। তাদের সংকট হলো তিনি (শেখ হাসিনা) চলে গেলে কী হবে, কী যুদ্ধ হবে-সেটা তারাই বলতে পারবেন।’ 

ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে নির্বাচন হবে না। আওয়ামী লীগকে সরে যেতে হবে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই কেবল নির্বাচন হবে। আর তখনই প্রশ্ন আসবে নির্বাচন হলে যে, আমাদের প্রধানমন্ত্রী কে হবেন।’ 

সংবাদ সম্মেলনে গত সোমবার অনুষ্ঠিত দলের স্থায়ী কমিটির সভার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, সভা মনে করে সরকার বন্যা মোকাবিলায় ব্যর্থ। এই অবস্থায় সভায় সরকারের পদত্যাগ দাবি করা হয়।

মন্তব্য ( ১ )

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    বিএনপিকে কর্মসূচি পালন করতে দেওয়াও একটা প্রতারণা: ফখরুল

    বিএনপি দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়: ওবায়দুল কাদের

    এই সরকার যত দিন ক্ষমতায় থাকবে, মানুষের দুর্ভোগ বাড়বে: ফখরুল

    আওয়ামী লীগ একটি ফোরটোয়েন্টি পার্টি: মির্জা ফখরুল 

    ‘গণতন্ত্র মঞ্চ নিয়ে এরই মধ্যে সরকারের ভয় শুরু হয়েছে’

    পালাব না, প্রয়োজনে জেলে যাব: কাদের

    অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ বেহেশতে আছেন: মোমেন 

    ইডেন গার্ডেনের তারকাদের হাটে থাকছেন মাশরাফিও

    সিডনিতে ২ সৌদি বোনের মৃত্যু নিয়ে রহস্য

    পাকিস্তানের এশিয়া কাপ দল নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক, ব্যাখ্যা দিলেন বাবর

    বিএনপির সমাবেশস্থলে ছাত্রলীগের হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগ

    ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে ভাবা হচ্ছে’