Alexa
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

বিশ্ব শরণার্থী দিবস আজ

রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন ৬৫ হাজার বাংলাদেশি

আপডেট : ২০ জুন ২০২২, ০৮:৩৮

রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন ৬৫ হাজার বাংলাদেশি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে গত বছর ৬৫ হাজার ৪৯৫ বাংলাদেশি রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন বলে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর তথ্য দিয়েছে। সংস্থাটির হিসাবে এই এক বছরে ২২ হাজার ৬৭২ বাংলাদেশি শরণার্থী হিসেবে নিবন্ধিতও হয়েছেন।

রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী ও শরণার্থী হিসেবে বিদেশে চলে যাওয়া ব্যক্তিদের বেশির ভাগই অর্থনৈতিক কারণে দেশ ছেড়েছেন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। করোনা মহামারিতে দেশে আয়ের সুযোগ কমে যাওয়া ও বৈধ পথে বিদেশ যাওয়া সংকুচিত হওয়ায় এ প্রবণতা বাড়ছে বলে তাঁদের মত।

এর আগে ২০২০ সালে দেশে দেশে আশ্রয়প্রার্থী বাংলাদেশি ছিলেন ৬৪ হাজার ৬৩৬ জন, ২০১৯ সালে ৬২ হাজার ৮৬০ জন এবং ২০১৮ সালে ৬২ হাজার ৮৬০ জন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সমাজে একশ্রেণির তরুণদের ভেতরে যেকোনো পন্থায় বিদেশ যাওয়ার প্রবণতা তীব্র হয়েছে। আর এ সুযোগটিই নিচ্ছে মানব পাচারকারী চক্র। ভূমধ্যসাগর এবং লিবিয়া, তিউনিসিয়া ও ইতালির উপকূল থেকে মিলছে অনেক বাংলাদেশির মৃত্যুর খবর। পাচারের বিভিন্ন রুট থেকে প্রতিনিয়তই উদ্ধার করা হচ্ছে বাংলাদেশি নাগরিকদের। উদ্ধার হওয়া এসব অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বেশির ভাগকেই আইওএম-এর সহযোগিতায় ফিরিয়ে আনা হচ্ছে দেশে।

ইউএনএইচসিআরের তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে ১৮ হাজার ৯৪৮ জন, ২০১৯ সালে ২২ হাজার ৭৬৬ জন, ২০১৮ সালে ২১ হাজার ২২ জন এবং ২০১৭ সালে ১৬ হাজার ৭৮০ জন বাংলাদেশি নিজেদের শরণার্থী দাবি করে জাতিসংঘের কাছে আবেদন করেন।

পাঁচ বছরে বাংলাদেশিরা সবচেয়ে বেশি রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেছেন ২০২১ সালে। আর ২০২০ সালে ৬৪ হাজার ৬৩৬ জন নিজেদের রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী হিসেবে ইউএনএইচসিআরের কাছে নিবন্ধিত হয়েছেন। তাঁদের প্রায় সবাই অর্থনৈতিক কারণে দেশ ছেড়েছেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

উন্নত দেশে যাওয়ার মোহে বিশ্বে বাংলাদেশি শরণার্থী ও রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনাকারী পাওয়া যায় বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, তাঁদের বেশির ভাগ উন্নত জীবনের আশায় বিদেশে পাড়ি জমান। যেহেতু অর্থনৈতিক কারণ দেখিয়ে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়া যাবে না, সে কারণে তাঁরা রাজনৈতিক কারণ দেখিয়ে চলে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশে অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে কেন বিদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা? জানতে চাইলে তিনি বলেন, অনেকের ধৈর্য নেই।

বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ শাখা (এসবি) থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে, ২০২০ সাল থেকে ২০২১ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত ঢাকা থেকে দুবাইয়ের ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে ১ লাখ ৯৯ হাজার ৮৬৪ জন নারী ও পুরুষ দেশ ছেড়েছেন। তাঁদের মধ্যে ফেরত এসেছেন মাত্র ২১ হাজার ৭৫৪ জন। ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও ১ লাখ ৭৮ হাজার বাংলাদেশি কোথায় আছেন, তার কোনো ধারণা নেই পুলিশের। এ ছাড়া অন্য দেশের ভিসা নিয়েও ফেরেননি, এমন অনেক মানুষ আছেন। এদের বেশির ভাগেরই বয়স ১৬ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে। পুলিশের হিসাব বলছে, মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করছেন অন্তত পৌনে ২ লাখ বাংলাদেশি। তাঁরা বৈধ ভিসা নিয়েই অজানা গন্তব্যের উদ্দেশে দেশ ছেড়েছেন।

গত প্রায় আট বছরে দেশে মানব পাচারসংক্রান্ত ৫ হাজার ৭১৬টি মামলা করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে ২৪৭টি অর্থাৎ মাত্র ৪ শতাংশ মামলার নিষ্পত্তি হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের হিসাবেও বিচারাধীন আছে ৪ হাজার ৪০৭টি মামলা।

এদিকে মিয়ানমারের সেনাদের নিবর্তনমূলক কর্মকাণ্ডে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা দেশ ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে। এর মধ্যে প্রায় ৩৪ হাজার স্বীকৃত শরণার্থী, অন্য সবাই আছে ‘শরণার্থী-পরিস্থিতিতে’। তাদের ফিরিয়ে নিতে দেশটি পাঁচ বছর আগে, ২০১৭ সালের শেষ দিকে চুক্তি করেছে বাংলাদেশের সঙ্গে। দ্বিপক্ষীয়, ত্রিপক্ষীয় ও জাতিসংঘের ব্যবস্থায় বহুপক্ষীয় অনেক বৈঠক হয়েছে। কিন্তু একজনও ফেরেনি নিজেদের ঠিকানা রাখাইনে, এই পাঁচ বছরে। তাদের কথা, রাখাইনের পরিবেশ ফেরার অনুকূল নয়।

পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন অবশ্য বলেছেন, ‘সরকার যেভাবেই হোক চলতি ২০২২ সালে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো শুরু করতে চায়। প্রায় পাঁচ বছর হয়ে গেল। আমরা এবার অন্তত শুরু করতে চাই, সংখ্যা যা-ই হোক।’ তিনি আজকের পত্রিকাকে বললেন, কিছু লোক গেলে তাদের সঙ্গে মিয়ানমার সরকার কেমন আচরণ করে, সেটাও দেখার সুযোগ হবে।

এই প্রেক্ষাপটে আজ সোমবার বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পালিত হচ্ছে বিশ্ব শরণার্থী দিবস। দিবসের প্রতিপাদ্য ‘নিরাপত্তা চাওয়া একটি অধিকার।’ ইউএনএইচসিআরসহ বিভিন্ন সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    এখন ট্রাস্টি বোর্ড পুনর্গঠন-আতঙ্ক

    বিচ্ছিন্ন জনপদ রামুক্যাছড়ি পৌঁছায় না সরকারি সুবিধা

    বিসিএসজট কাটাতে কোন পথে পিএসসি

    মিশ্র বর্জ্যে ঝুঁকিতে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা

    আগ্রাসী ঋণে ঝুঁকছে ব্যাংক

    জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ

    সাগর-রুনি হত্যা: তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময় ৯২ বারের মতো পেছাল

    এখন ট্রাস্টি বোর্ড পুনর্গঠন-আতঙ্ক

    ২৫ কিমি সড়কে খানাখন্দ

    ভোটে ‘লড়তে’ হচ্ছে আ.লীগের পিকুলকে

    ভোটে হেরে গিয়ে লেবু চাষ বুলবুলের বাজিমাত

    ধুঁকছে কমিউনিটি ক্লিনিক