Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

বৈরী আবহাওয়ায় পেটের পীড়ায় আক্রান্ত শিশুরা

আপডেট : ২৮ মে ২০২২, ১৭:২১

বৈরী আবহাওয়ায় পেটের পীড়ায় আক্রান্ত শিশুরা বৈরী আবহাওয়ায় পঞ্চগড়ে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। সর্দি-কাশি ও পেটের পীড়ায় তারা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। জেলার আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রতিদিন দেড় শ শিশুরোগী বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিচ্ছে। এ জন্য হাসপাতালে বিশেষ ইউনিট চালু করা হয়েছে।

চিকিৎসকেরা বলছেন, গুমোট আবহাওয়ায় শিশুদের পাশাপাশি বয়স্করা যাতে বাড়ি থেকে বের না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। শিশুদের সুরক্ষিত রাখতে মায়েদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, সপ্তাহ দুয়েক আগে ডায়রিয়াসহ পেটের বিভিন্ন পীড়ায় আক্রান্ত শিশুরোগীর সংখ্যা ছিল ২৫-৩০ জন। কিন্তু এখন প্রতিদিন গড়ে দেড় শ রোগী বহির্বিভাগে দেখা হচ্ছে।

পঞ্চগড়ের ইসলামবাগ গ্রামের গৃহিণী রাবেয়া খাতুন জানান, তাঁর আড়াই বছরের ছেলে দুই সপ্তাহ ধরে সর্দি-কাশিতে ভুগছে, স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নেওয়ার পরেও সুস্থ হয়নি। তাই ছেলেটিকে নিয়ে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে আসেন।

বোদা উপজেলার পাঁচপীর এলাকার আতাউর রহমান জানান, চার দিন ধরে তাঁর এক বছরের ছেলে কোনো খাবার খাচ্ছে না, সারাক্ষণ কান্নাকাটি করছে। ঠাকুরগাঁওয়ে গিয়ে শিশুচিকিৎসক দেখিয়ে চিকিৎসা করিয়েছেন।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের শিশুবিশেষজ্ঞ মো. মনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘গরম-ঠান্ডা আবহাওয়ায় শিশুরা বিভিন্ন ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে, প্রতিদিন দেড় শতাধিক শিশুকে হাসপাতালের বহির্বিভাগে দেখতে হচ্ছে।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রেখে শিশুদের খাবার পরিবেশনসহ সহনীয় তাপমাত্রায় তাদের সুরক্ষিত রাখার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।’

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের শিশুবিশেষজ্ঞ শাহানেওয়াজ বলেন, ‘দুই সপ্তাহ ধরে পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ডায়রিয়াসহ পেটের পীড়ায় আক্রান্ত শিশুরোগী আনা হচ্ছে। যারা গুরুতরভাবে আক্রান্ত, তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে। আবহাওয়ার তারতম্যসহ শিশুদের বাসি ও ঠান্ডা খাবার খাওয়ানোর কারণে এসব রোগবালাই দেখা দিয়েছে।’ 

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের সিভিল সার্জন মো. রফিকুল হাসান বলেন, ‘মা ও শিশুদের চিকিৎসা নিবিড়ভাবে করার জন্য হাসপাতালে বিশেষ ইউনিট চালু রাখা হয়েছে, স্যালাইনসহ সরকারিভাবে শিশুদের সব ধরনের চিকিৎসা সুবিধা পর্যাপ্ত রয়েছে।’ 

জেলার তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের কর্মকর্তা শেখ রাসেল আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘মৌসুমি বায়ুর চাপ কম থাকায় আকাশে বেশি মেঘের কারণে গুমোট আবহাওয়া বিরাজ করছে। পরিমিত বৃষ্টিপাত হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে। তবে স্বাভাবিক হতে সপ্তাহখানেক সময় লাগবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    মহাসড়কে অবৈধ পার্কিং যানজটে অতিষ্ঠ মানুষ

    করোনা বাড়লেও মাস্কে অনীহা

    বন্যার ক্ষত ৫০ কিমি সড়কে

    পশুহাটে মিলেমিশে চাঁদাবাজি

    পাহাড়ে সেনা ক্যাম্প সম্প্রসারণের দাবি

    তিন দিনেও মামলা নেয়নি থানা-পুলিশ

    মেঘনা ব্যাংকের গ্রাহকেরা এখন অ্যাকাউন্ট থেকে নগদে টাকা পাঠাতে পারবেন

    ফ্রিজ কিনতে শোরুমগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়

    পরিবারের সঙ্গে ঈদ করা হলো না নাহিদের

    রাজবাড়ীতে মাহেন্দ্র উল্টে ২ জনের মৃত্যু

    দম ফেলার সময় নেই শালিখার কামারিদের

    যমুনা ফিউচার পার্কে ‘র‍্যাংগস ফ্ল্যাগশিপ স্টোর’