Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

শীতের সবজি গ্রীষ্মে আবাদ

আপডেট : ২৮ মে ২০২২, ১৪:১৯

খেত থেকে কপি তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। গতকাল মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটি গ্রাম থেকে তোলা। ছবি: আজকের পত্রিকা ফুলকপি ও বাঁধাকপি সাধারণত শীতকালীন সবজি। অথচ গ্রীষ্মকালেও এখন চাষ হচ্ছে এ সবজির। মেহেরপুরের বেশ কয়েকটি এলাকায় অসময়ে এ সবজির চাষ করছেন কৃষকেরা। খরচ বেশি হলেও আবহাওয়া ভালো থাকলে লাভবান হন তাঁরা। এবারও বাঁধাকপি ও ফুলকপির চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকেরা।

সদর উপজেলার কুলবাড়িয়া, শিবপুর, শুভরাজপুর ষৌলমারি এবং গাংনী উপজেলার সাহারবাটি, গাড়াডোবা, গাড়াবাড়িয়া গ্রামের বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে ফুলকপি ও বাঁধাকপির পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষকেরা। কেউ আবার খেত থেকে কপি তুলছেন। গ্রীষ্মকালের এ সময়ে চাষিরা সাধারণত বাঁধাকপির ট্রপিক্যাল কুইক, সুপার সান, নামধারী এন এস ফরটি থ্রি ও ফুলকপির সামার হোয়াইট, মুক্তি, লিডার জাতের কপির আবাদ করেন। এ সময়ে এসব ফসল আবাদে খরচ বেড়ে যায়। কারণ অসময়ে কপি উৎপাদন করতে প্রচুর সেচ ও কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়। পাশাপাশি তেলের দাম বৃদ্ধিতে বেড়েছে শ্রমিক ও পরিবহন খরচ। ফলে চলতি মৌসুমে কপি আবাদে খরচ বেড়েছে দ্বিগুণ। এরপরও আবহাওয়া ভালো থাকায় লাভের আশা কৃষকের।

জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলায় এ বছর গ্রীষ্মকালীন বাঁধাকপি এবং ফুলকপির আবাদ হয়েছে প্রায় ১৫০ হেক্টর জমিতে।

মেহেরপুর শহরের শেখপাড়ার কৃষক পুলক বলেন, ‘আমি এবার শেখপাড়ার একটি মাঠে ১৮ বিঘা জমিতে ফুলকপির আবাদ করেছি। আবহাওয়া ভালো থাকায় ফলন হয়েছে ভালো। বাজারে দামও ভালো পাচ্ছি। জমি থেকেই ব্যবসায়ীরা কপি কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। তবে চলতি মৌসুমে খরচ বাড়ায় লাভের অঙ্কটা কিছুটা কমেছে। হঠাৎ করে দাম কমে গেলে লোকসানে পড়তে হয় চাষিদের। ফলে এ সময়ে সবজির আবাদ করে অনেক সময় ঝুঁকিতে পড়তে হয়।’

সদর উপজেলার উজলপুর গ্রামের কৃষক আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘অসময়ে কপির আবাদ করতে গেলে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়তে হয় অতিবৃষ্টির কারণে। তা ছাড়া পোকার আক্রমণ বেশি থাকে। ফলে কীটনাশকের ব্যবহার বেশি করতে হয়। ফলে শীতকালে যে কপি আবাদ করতে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়, সেই কপি গ্রীষ্মকালে আবাদ করতে গেলে খরচ হয় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। আমি এবার ৩ বিঘা জমিতে ফুলকপির আবাদ করেছি। বৃষ্টির কারণে ফলন কিছুটা কম হয়েছে। তবে বাজার দর ভালো থাকায় লাভবান হয়েছি।’ তিনি বলেন, ‘১ বিঘা জমিতে কপি আবাদে খরচ হয়েছে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। সেখানে বিক্রি করেছি ৬০ হাজার টাকায়।’ 
সদর উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের কৃষক সেলিম বলেন, ‘চলতি মৌসুমে আমি ২ বিঘা জমিতে বাঁধাকপির আবাদ করেছি। যদিও তেল, সার, কীটনাশক ও শ্রমিক খরচ বাড়ায় এবার আবাদে দ্বিগুণ খরচ হয়েছে। ফলনও হয়েছে ভালো। দুই বিঘা জমির কপি এখন বিক্রির উপযোগী। ব্যবসায়ীরা জমিতে আসছেন। আশা করি, জমি থেকেই কপি বিক্রি হয়ে যাবে।’ তিনি বলেন, ‘আমি ২ বিঘা জমির কপির দাম বলেছি ২ লাখ ৪০ হাজার টকা। ব্যবসায়ীরা এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা দাম বলেছেন। 

আর কিছুদিন অপেক্ষা করে ২ লাখ টাকা দাম হলে কপিগুলো বিক্রি করে দেব। আশা করি, মোটা অঙ্কের লাভ করতে পারব।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক (শস্য) এ কে এম কামরুজ্জামান বলেন, ‘অসময়ে বাঁধাকপি ও ফুলকপি আবাদ করা একটু কঠিন। আমরা কৃষকদের মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দিয়ে থাকি। বিশেষ করে কীটনাশকের ব্যবহার কমিয়ে কীভাবে গ্রীষ্মকালে শীতকালীন নিরাপদ সবজি উৎপাদন করা যায়। কৃষকেরা এখন অনেক সতর্ক। তাঁরাও চেষ্টা করেন অসময়ে বিভিন্ন সবজি উৎপাদন করে লাভবান হতে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    অর্থ ও স্থান-সংকটে চামড়া ব্যবসায়ীরা

    তিন দিনেও মামলা নেয়নি থানা-পুলিশ

    পশুবাহী ট্রাক নির্বিঘ্নে পার

    সাজাপ্রাপ্ত তাঁতী লীগ নেতা হেরোইনসহ ধরা

    অন্তঃসত্ত্বার পেটে লাথি দেওয়ার অভিযোগ

    মহম্মদপুরে সড়কে ধস, ঈদের আগে সংস্কারের দাবি

    ক্যাটল ট্রেনে প্রায় এক হাজার গরু-ছাগল আসল ঢাকায়

    ইংল্যান্ডের নতুন ধারার ক্রিকেটকে চ্যালেঞ্জ জানালেন স্টিভ স্মিথ

    সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, প্রেমিকসহ গ্রেপ্তার ৪

    বাস থেকে যাত্রীকে ফেলে দিয়ে হত্যা, চালক-হেলপার আটক

    আমেরিকার নিষেধাজ্ঞায় কষ্ট পাচ্ছে সাধারণ মানুষ, বিবেচনার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর

    পাটুরিয়ায় ভোগান্তি ছাড়াই ঘাট পারাপার, চাপ নেই গাড়ির