Alexa
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

ঘরে রোগী, বাইরে পানি, মাথায় ঋণের বোঝা

আপডেট : ২৬ মে ২০২২, ০১:৪৪

বিলীন হওয়ার শঙ্কায় থাকা একমাত্র আশ্রয়স্থল ঘরের দিকে অসহায় তাকিয়ে আছেন এক নারী। গতকাল সুনামগঞ্জের পাঠানবাড়ি এলাকায়। ছবি: আজকের পত্রিকা বন্যার পানি নামলেও ঘরের মেঝে থেকে কাদামাটি এখনো শুকায়নি। পোকামাকড়ের যন্ত্রণায় জয়নাল আবেদিন তাই নিজের ঘরে থাকতে পারছেন না। ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে অচলপ্রায় জয়নালের থাকার ব্যবস্থা হয়েছে প্রতিবেশীর বাড়ির একটি ঘরে।

গতকাল দুপুরে সেই ঘরের ভেতর উঁকি দিয়ে দেখা গেল, বিছানায় শুয়ে আছেন জয়নাল। পায়ের পাশে বসে আছেন তাঁর স্ত্রী। এই প্রতিবেদককে ত্রাণসহায়তাকারী ভেবে জয়নালের স্ত্রী ভণিতা ছাড়াই বলতে থাকেন, ‘এই লোকটার (জয়নালের) চিকিৎসা করাতে গিয়ে আমরা শ্যাষ। হাতে টাকাপয়সা নাই। ঘরে অসুস্থ রোগী, বাইরে বন্যার পানি আর মাথার ওপর ঋণের বোঝা। সপ্তাহ পার হলেই কিস্তির জন্য আসবে সাহেবরা। ঘরে খাবার নাই। কিস্তি দিব কীভাবে? আমাদের কিছু সাহায্য করেন স্যার।’

বিছানায় শোয়া জয়নাল তখনো ভাবলেশহীন। জানা গেল, গলার ক্যানসারের কারণে দীর্ঘদিন ধরে স্বাভাবিকভাবে খেতে পারেন না তিনি। নানা কায়দা করে তাঁকে যা কিছু খাওয়ানো হয়, বন্যার কারণে তা-ও পাচ্ছেন না। হাত-পা শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে জয়নালের। চামড়ার ওপর দিয়েই গোনা যাচ্ছে বুকের পাঁজরের হাড়।

জয়নালের স্ত্রী আরও জানান, তাঁদের দুই ছেলে। ছোট ছেলে আল আমিন সুনামগঞ্জ শহরে নৈশপ্রহরীর কাজের পাশাপাশি টুকটাক কৃষিকাজ করেন। তাঁর রোজগারেই সংসার চলে। স্থানীয় মহাজনের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে আবাদ করেছিলেন। বন্যায় ফসল ও বাড়ির সর্বনাশ হয়ে গেছে। বাবার চিকিৎসা এবং ছোট ছোট ধারদেনা শোধ করতে এনজিও থেকে ২০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছিলেন আল আমিন। পাঁচ দিন পর সেই ঋণের কিস্তি দিতে হবে। কোথায় পাবেন টাকা, এই চিন্তায় দিশেহারা জয়নালের পরিবারের সদস্যরা।

সুনামগঞ্জ পৌর শহরের ৩ নম্বর পাঠানবাড়ি এলাকা, পাশেই পৌরসভার অদূরে বাহার গ্রাম। সেখানে গিয়ে জয়নালের পরিবারের মতো আরও অনেক পরিবারের সন্ধান পাওয়া গেল। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পরও দুশ্চিন্তা কমছে না তাদের।

দারিদ্র্যপীড়িত এই এলাকার মানুষ কৃষিকাজ, মাছ ধরা এবং দিনমজুরি করে দিনাতিপাত করেন। এবার আগাম বন্যার অকূলপাথারে পড়েছেন তাঁরা সবাই। বন্যার পানিতে ফসল ডুবেছে, ঘরবাড়ির ক্ষতি হয়েছে। খোরাকির জন্য জমানো ধান এবং গৃহপালিত পশুপাখিও ভেসে গেছে অনেকের। বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে ওঠার কোনো অবলম্বন অবশিষ্ট নেই কারও। কিন্তু এসবের চেয়ে বড় চিন্তা হয়ে সবার মাথায় চেপে বসেছে এনজিও এবং স্থানীয় মহাজনের কাছ থেকে নেওয়া ঋণের বোঝা।

বাহার গ্রামের ফজর বানু বললেন, ‘দুবেলা ভাত জোগানের চিন্তায় যখন দিন পার হয়ে যায়, তখন এসব ঋণের কথা মনে হলে চারদিক অন্ধকার হয়ে আসে।’

স্থানীয় কৃষক ও মৎস্যজীবীদের অধিকার নিয়ে কাজ করেন সুনামগঞ্জের হাওর আন্দোলনের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান। তিনি জানান, শুধু বাহার গ্রামের বাসিন্দারা নয়, ঋণের ফাঁদে পড়ে বেকায়দায় আছে সুনামগঞ্জের আরও অনেক এলাকার মানুষ। বন্যা এসে তাদের বিপদ আরও বাড়িয়েছে। নিম্ন আয়ের এসব মানুষ কৃষিকাজ ও মাছ চাষের জন্য প্রতিবছর স্থানীয় মহজনদের কাছ থেকে ঋণ নেন।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে সেই ঋণ শোধ করতে না পেরে নতুন করে ঋণ নেন এনজিও থেকে। এরপর আবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে অন্য মহাজন বা এনজিও থেকে চড়া সুদে ঋণ নেন। এভাবে প্রতিবছর ঋণের ফাঁদে ঘুরপাক খেতে খেতে তাঁদের অর্থনৈতিক স্থিতি থাকে শূন্যের কোঠায়।

আবু সুফিয়ান তাঁর কাজের অভিজ্ঞতা থেকে বলেন, হাওরের কৃষকদের নিয়ে সরকার বিশেষ পরিকল্পনা না নিলে এই সমস্যার সমাধান হবে না। বন্যা না থাকলেও মৌসুমের পুরো ধান ঘরে তুললেও ঋণের এই ফাঁদ থেকে কৃষকদের মুক্তি নেই। মধ্যস্বত্বভোগী মিলারদের কারণে কষ্টার্জিত ফসলের পুরো দামও পান না তাঁরা। এই অবস্থা মৎস্যচাষিদের ক্ষেত্রেও। সরকারি ব্যাংক মৎসচাষিদের সরাসরি ঋণ দিলে এবং চাষির সঙ্গে সরাসরি মুনাফা ভাগ করে নিলে এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ হতে পারে বলেই মনে করেন সুফিয়ান।

ঋণের ফাঁদে পড়া কৃষকদের ব্যাপারে কী ভাবছে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর, জানতে চাইলে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক বিমল চন্দ্র সোম বলেন, যেসব কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হবে। যাঁরা ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে চান, তাঁদেরও সহযোগিতা করা হবে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন আজকের পত্রিকাকে বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত নিম্ন আয়ের সব মানুষকে পুনর্বাসনের আওতায় আনা হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    শেখ হাসিনার মাধ্যমে আয় বেড়েছে, তাই মানুষ সাহায্য করে: পরিকল্পনামন্ত্রী

    ‘বই নষ্ট হয়ে গেছে, পড়ব কী’

    সিলেট নগরীতে শনিবার ৮ ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকবে না

    সিলেট-সুনামগঞ্জে কমেছে নদ-নদীর পানি, ফিরছে স্বস্তি

    সিলেটে ট্রলারের ধাক্কায় পুলিশের নৌকাডুবি, তলিয়ে গেছে দুটি অস্ত্র

    থানা থেকে চোর পালানোয় ২ পুলিশ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

    কোনো টিভি চ্যানেলে একটির বেশি বিদেশি সিরিয়াল নয়: তথ্যমন্ত্রী

    আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস‍্য মুকুল বোসের মৃত্যুতে তথ্যমন্ত্রীর শোক

    পর্তুগালকে ঢাকায় দূতাবাস খোলার আহ্বান বাংলাদেশের

    কপর্দকহীন ও উদভ্রান্তের মতো কথা বলা এখন বিএনপির মজ্জাগত: তথ্যমন্ত্রী

    দুই বন্ধু ঘুরতে গিয়ে একজনের মৃত্যু, গুরুত্বর আহত অপরজন

    পদ্মা সেতু দেখতে এসে জাজিরা প্রান্তে বাসের ধাক্কায় নিহত ১, আহত ১৩