Alexa
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

সেকশন

epaper
 

বোরো ধানে লোকসানের শঙ্কা

আপডেট : ২৪ মে ২০২২, ০৯:২৭

বোরো ধানে লোকসানের শঙ্কা ময়মনসিংহের ভালুকায় বোরো ধানের দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন কৃষকেরা। টানা বৃষ্টিতে চড়া দামে ধান কেটে ঘরে তুলতে হয়েছে। কৃষকেরা বলছেন, সব মিলিয়ে চলতি মৌসুমে ফলন ভালো হলেও উৎপাদনের খরচ বেড়েছে। বাজারে এখন যে দামে ধান বিক্রি হচ্ছে, তাতে লাভের বদলে উল্টো লোকসানের শঙ্কা তাঁদের।

অন্যদিকে উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, শিগগির বোরো ধান সংগ্রহ করা শুরু হবে। এ মৌসুমে প্রতি মণ ধানের দাম ১০৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। উপজেলার কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় চলতি মৌসুমে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে ১৮ হাজার ৮৯৫ হেক্টর জমিতে। ধানের ফলনও ভালো হয়েছে। কিন্তু ধানের দাম নিয়ে কৃষকেরা শঙ্কিত রয়েছেন।

স্থানীয় কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কাঠাপ্রতি জমি চাষ করতে ৩০০ টাকা, ধানের চারা রোপণ ৫০০ টাকা খরচ হয়েছে। বাজারে মণপ্রতি ধান ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা দামে ধান বিক্রি হচ্ছে।

আগাছা পরিষ্কার, পানি সেচ, সার, বীজ কীটনাশক প্রয়োগ, ধান কাটা ও মাড়াই করার খরচ বাদে কৃষকের লাভ থাকবে না।

কৃষক জাকারিয়া বলেন, ‘কৃষিকাজে এখন আগের মতো লাভ নেই। শ্রমিক-সংকট, সার, বীজ কীটনাশক প্রয়োগ, ধান কাটা ও মাড়াইয়ে খরচ বেশি হয়। এতে খরচ আর উৎপাদিত ফসলের মূল্য সমান হয়ে যায়। ধান সঠিক দামে বিক্রি করতে পারলে আমরা লাভবান হতাম। কিন্তু ধানের দাম কম হওয়ায় কৃষকেরা ধান চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন।’

এ নিয়ে জানতে চাইলে ধান ব্যবসায়ী আবুল কালাম বলেন, ‘ধানের প্রকারভেদে আমরা ধান ক্রয় করছি। টানা বৃষ্টি হওয়ায় ধান ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা মণপ্রতি ভেজা ধান ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকায় ও রোদে শুকানো ধান ৮৫০ টাকা থেকে ৯৫০ টাকায় কিনছি। আবার বেশি শুকনো ধান ১০০০ টাকাও কিনেছি। কৃষকের খলা থেকে ধান মেপে আনা হয়। গ্রামের অধিকাংশ সড়ক কাঁচা। এতে পরিবহন খরচও বেশি হয়। লাভ তেমন থাকে না।’

আব্দুল মালেক নামের আরেক কৃষক বলেন, ‘এ বছর ১০ কাঠা জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছি। কাঠাপ্রতি ধান কাটতে খরচ হয়েছে ১০০০ টাকা। ফলন ভালো হলেও খরচ বেশি হয়েছে। আবার বৃষ্টিতে ভিজে ধান নষ্ট হয়ে গেছে। এ জন্য পাইকারেরা ধানের যে দাম কম বলছেন, তাতে আমার খরচ ওঠানো শঙ্কিত আছি।’

এ নিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জেসমিন জাহান বলেন, ‘এ বছর ১৮ হাজার ৮৯৫ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। পরিবেশ অনুকূলে থাকায় কাঙ্ক্ষিত ফলন হয়েছে। দ্রুতই ধান সংগ্রহ শুরু হবে।’

এ নিয়ে জানতে চাইলে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মো. বুলবুল আহম্মেদ বলেন, ‘ধান সংগ্রহ অভিযান এখনো শুরু হয়নি। গ্রামের হাট-বাজারে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। শিগগিরই ধান সংগ্রহ করা শুরু হবে। এ মৌসুমে প্রতি মণ ধানের দাম ১০৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়ে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    তদন্ত প্রতিবেদন আটকে সিআইডির প্রতিবেদনে

    ধানের লক্ষ্য অর্জন নিয়ে শঙ্কা

    ভোগান্তির চার কিলোমিটার

    টেকসই কৃষির জন্য নতুন প্রকল্প

    টেস্টে উন্নতি না করেও টাকার পাহাড়ে বিসিবি

    অস্কার কমিটিতে ভারতীয় তারকা

    নির্ধারিত সময়ের আগেই পদ্মা সেতুর খরচ উঠে আসবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী

    ‘পুলিশ এখন জনকল্যাণে নয়, আওয়ামী লীগের নিরাপত্তা কল্যাণে নিয়োজিত’

    সোহেল চৌধুরী হত্যা: আশীষ চৌধুরীর জামিন প্রশ্নে রুল জারি

    বাইডেনের চোখে সব নষ্টের গোড়া পুতিন

    ব্র্যাক ব্যাংক ও জেডটিই করপোরেশনের মধ্যে চুক্তি

    বড় কোনো পরিবর্তন ছাড়াই জাতীয় সংসদে বাজেট পাস