Alexa
রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

বোরো ধান ঘরে তোলা শেষ আউশ রোপণ শুরু

আপডেট : ২৪ মে ২০২২, ১১:৫৯

নরসিংদীর রায়পুরায় আউশ ধানের চারা রোপণে ব্যস্ত কৃষকেরা। ছবি: আজকের পত্রিকা নরসিংদীর রায়পুরায় টানা কয়েক দিনের বৃষ্টির মধ্যেই বোরো ধান ঘরে তোলা শেষ করেছেন কৃষকেরা। এখন শুরু হয়েছে আউশ ধানের চারা রোপণ। স্থানীয় কৃষকেরা বলছেন, টানা বৃষ্টিতে জমি তৈরি করা হয়েছে। তবে বাজারে বোরো দাম কম থাকায় কিছুটা ভয় থাকলেও গত মৌসুমে লাভ হওয়ায় আউশ রোপণ করছেন কৃষকেরা। উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে বোরো ধান কাটা শুরু হয়। ইতিমধ্যে ৯৫ শতাংশ জমির বোরো ধান কাটা শেষ। শুরু হয়েছে আউশ জমি তৈরি ও ধানের চারা রোপণ। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে আউশ রোপণ শেষ হবে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় এ বছর ৫৮৩ হেক্টর জমিতে আউশ ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৪৯ হেক্টর বীজতলা তৈরি হয়েছে। চলতি মৌসুমে আউশ ধান চাষ করতে নয় শ কৃষককে সরকারিভাবে উচ্চফলনশীল (উফশী) ধানের পাঁচ কেজি বীজ ও ৩০ কেজি করে সার দেওয়া হয়েছে।

উপজেলার মুছাপুর মির্জাপুর মহেষপুর রায়পুরা পলাশতলী মির্জানগর আমিরগন্জ ইউনিয়নসহ বিভিন্ন এলাকায় চলছে আউশ ধানের চারা রোপণ।

উপজেলার পূর্বহরিপুরের কৃষক আবদুস সালাম, সাইদ মিয়া, আব্দুর রহমান, হারুনুর রশিদ, ফারুক মিয়া বলেন, ‘বোরো ধান ঘরে তুলে আউশ চাষের জন্য জমি প্রস্তুত করেছেন তাঁরা। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে জমিতে চারা রোপণ করা হবে। তবে বোরোর বাজারদর কম থাকায় আউশ ধান চাষ করতে ভয়ে পাচ্ছেন। তার পরও গত বছর যারা খেত করে ছিলো তারা ভালো ফলন পাওয়ায় চলতি মৌসুমে সবাই আগ্রহ দেখাচ্ছে।

বর্গাচাষি গনি মিয়া বলেন, ‘চলতি মৌসুমে সেচ খরচ কম হওয়ায় আশেপাশের সব জমিতে আউশ লাগানো হচ্ছে। এক একর জমিতে আউশ ধান চাষের জন্য বীজতলা তৈরি করেছি। কয়েক দিনের মধ্যে চারা রোপণ করব। তবে আগামী কয়েক দিনের বৃষ্টি না হলে জমি তৈরি করতে খরচ বেড়ে যাবে।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, প্রাকৃতিক বৃষ্টিপাতের মাধ্যমে এ মৌসুমে পর্যাপ্ত পানি পাওয়া যায়। তাই এ মৌসুমে সেচের খরচ কম হয়। এ কারণে রায়পুরা উপজেলায় আউশ ধানের আবাদ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কৃষকদের সর্বাত্মক সহায়তার পাশাপাশি পরামর্শ দিয়ে আসছে। এ বছর ৫৮৩ হেক্টর জমিতে আউশ ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে। গতবছরে উফশী আউশ ধানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৪৫ হেক্টর, অর্জিত হয়েছে ৫৬০ হেক্টর। এ বছর ৪৯ হেক্টর বীজতলা তৈরি হয়েছে। চলতি মৌসুমে আউশ ধান চাষ করতে নয় শ কৃষককে সরকারিভাবে উচ্চফলনশীল (উফশী) ধানের পাঁচ কেজি বীজ ও ৩০ কেজি করে সার দেওয়া হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হবে আশা করা যাচ্ছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    কোরবানির পশুর হাট কাঁপাবে রং বাহাদুর

    রাস্তা বন্ধ করায় ৪ পরিবার বিপাকে

    আগাম আমন রোপণের ধুম

    ৩০ মণ ওজনের ‘সেকেন্দার’

    ২২ মণের ষাঁড় বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক

    খাদ্য বিভাগে ধান দিতে অনাগ্রহ কৃষকের

    বাবরসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন বিষয়ে আরও শুনানি ১৮ জুলাই

    রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে জাতীয় পার্টির ঈদ শুভেচ্ছা

    কোরবানির পশুর হাট কাঁপাবে রং বাহাদুর

    রাস্তা বন্ধ করায় ৪ পরিবার বিপাকে

    বন্যায় পানিবন্দী ১০ হাজার মানুষ, শহর রক্ষা বাঁধের দাবি

    আজকের পত্রিকার বর্ষপূর্তিতে বন্যার্তদের খাবার ও ওষুধ বিতরণ