Alexa
রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

ভেসে উঠল কোটি টাকার মাছ

আপডেট : ২৩ মে ২০২২, ১৬:৩০

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার ইউনিয়নের মাঝদিয়া বাঁওড়ে মরে ভেসে উঠেছে হাজার হাজার মাছ। গতকাল ছবিটি তোলা। আজকের পত্রিকা ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা বারোবাজার ইউনিয়নের মাঝদিয়া বাঁওড়ের প্রায় দেড় কোটি টাকার মাছ মরে ভেসে উঠেছে। তবে কীভাবে এত মাছ মারা গেল, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যদিও মৎস্য কর্মকর্তা বলছেন, অক্সিজেনের সংকটে মাছগুলো মারা গেছে। আর স্থানীয়রা বলছেন, বিষক্রিয়ায় এতগুলো মাছ মরে গেছে।

জানা গেছে, গত শনিবার ও গতকাল রোববার বাঁওড়ের ছোট বড় সব ধরনের মাছ মরে ভেসে ওঠে। ৪৫০ একর জমির এ বাঁওড়ের ওপর প্রায় ৩০০ মৎস্যজীবীর কর্মসংস্থান রয়েছে। এসব মৎস্যজীবীদের সংগঠন সেখানে মাছ চাষ করে। বাঁওড়ের আয় থেকে তাঁদের জীবিকা নির্বাহ হয়ে থাকে। হঠাৎ মাছ মরে যাওয়া এসব মৎস্যজীবীরা পথে বসেছেন। মরে যাওয়া মাছগুলোর ওজন প্রায় ৩ হাজার কেজি হবে বলে মৎস্যজীবী ও স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

এদিকে, গতকাল সংবাদ পেয়ে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী, বারোবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

স্থানীয় কৃষক সবুর উদ্দীন বলেন, ‘শনিবার সকাল ৬টার দিকে প্রবল গতির কালবৈশাখী ঝড় বয়ে যায়। এরপর আমরা মাঠে কাজ করতে এসে দেখি বাঁওড়ের দুই একটি মাছ মরে ভেসে উঠছে। তখন আমরা মাছগুলো ধরি। অনেকে মাছগুলো ধরে বাড়ি নিয়ে যায় কিন্তু আজ সকালে বাঁওড়ের পাশে এসে দেখি হাজারো মাছ মরে ভাসছে।’

বারোবাজার ইউপির চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘যেভাবে মাছ মরেছে তা বর্ণনা করার মতো না। বাঁওড়ে মরে যাওয়া মাছের ওজন প্রায় ৩ হাজার কেজি হবে। এসবের মধ্যে ৫ থেকে ৭ কেজি ওজনের মাছ রয়েছে। এ বাঁওড়ে ২৫০ থেকে ৩০০ পরিবারের কর্মসংস্থান। আমরা বিভিন্নভাবে তদন্ত করছি, মাছ মরার পেছনে কোনো মহলের ষড়যন্ত্র আছে কি না। তবে প্রাথমিকভাবে জেনেছি, ঘূর্ণিঝড়ের সময় বাঁওড়ের পানি একপাশে উঠে যায়। তখন মাছগুলো কাদার মধ্যে প্রবেশ করে স্ট্রোক করে মারা গেছে।’

এ বিষয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা হাসান সাজ্জাদ বলেন, ‘খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাঁওড় পরিদর্শন করি। অক্সিজেন সংকটের কারণে এ মাছগুলো মারা গেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণ করছি। তবে পানি পরীক্ষার পর আরও নিশ্চিত হওয়া যাবে।’

সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার বলেন, সংবাদ পেয়ে আমি বাঁওড়ে যাই। যেভাবে মাছ মরেছে তা বর্ণনা করার মতো না। আমি মৎস্যজীবীদের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রশাসন, মৎস্য অফিসারের সঙ্গেও কথা বলেছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    ২২ মণের ষাঁড় বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক

    ‘ম্যানেজ করে’ মাছ শিকার

    গরুর চর্মরোগ, দুশ্চিন্তা খামারির

    রেলক্রসের ওভারপাসে বরাদ্দ বাড়ল ১৫০ কোটি টাকা

    বয়সে ছোট আঁচলের মানবতার দৃষ্টান্ত

    মসলা চাষে ১২০ কোটির প্রকল্প

    ‘এবারের বন্যায় আমগো সবকিছু শেষ কইরা দিল’

    গ্রেপ্তার এড়াতে কোনো ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠানে যেতেন না রজব আলী

    বন্যায় ম্লান ঈদের প্রস্তুতি

    ‘দাপ্তরিক পরিচয় গোপন করলে সরকারি অফিসের কেউ কথাই বলবে না’

    শ্রীবরদীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু, আহত ১

    ব্যবসায়ী হিলালীর সন্ধান পেতে পরিবারের সংবাদ সম্মেলন