Alexa
রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

অস্ট্রেলিয়ার রাজনীতি

বস্তি থেকে মসনদে

আপডেট : ২৩ মে ২০২২, ১১:১৯

অ্যান্থনি আলবেনিজ আয়তনের দিক থেকে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম ও উন্নত দেশগুলোর একটি। ১৯০১ সালে ব্রিটেনের উপনিবেশ থেকে স্বাধীন হওয়ার পর থেকে দ্বীপরাষ্ট্রটিতে বলতে গেলে নিরবচ্ছিন্নভাবে গণতন্ত্র অব্যাহত রয়েছে। গত শনিবার দেশটির নিম্নকক্ষ বা ৪৫তম সাধারণ নির্বাচনে রক্ষণশীল জোটের প্রায় এক দশকের শাসনের অবসান ঘটেছে। জয় হয়েছে অ্যান্থনি আলবেনিজের নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টির। আজ সোমবার তাঁর শপথ নেওয়ার কথা রয়েছে।

আল জাজিরা জানায়, অস্ট্রেলিয়ায় তিন বছর পরপর সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৯ সালের নির্বাচনে গো-হারা হারার পর লেবার পার্টির দায়িত্ব পড়ে আলবেনিজের ওপর। ১৯৬৩ সালের ২ মার্চ সিডনির শহরতলি তথা বস্তির এক শ্রমিক পরিবারে জন্মগ্রহণকারী আলবেনিজ ২০০৯ সালের আগপর্যন্ত তাঁর পিতাকে দেখেননি।

বুদ্ধি হওয়ার পর থেকে আলবেনিজ শুনেছেন, তাঁর পিতা কার্লো আলবেনিজ এক গাড়ি দুর্ঘটনায় ইউরোপে মারা গেছেন। অথচ এটি ছিল একটি মিথ্যা তথ্য। আইরিশ বংশোদ্ভূত আলবেনিজের মা মারিয়ান এলারির সঙ্গে যেহেতু কার্লোর বিয়েই হয়নি, অথচ তাঁরা সন্তান নিয়েছেন, তাই এই মিথ্যা গল্প। ফলে গরিব রক্ষণশীল রোমান ক্যাথলিক পরিবার অ্যান্থনি আলবেনিজের জন্মপরিচয় গোপন করতে বাধ্য হয়েছিল। ১৪ বছর বয়সে পৌঁছার পর আলবেনিজের কাছে সব কথা প্রকাশ করেন তাঁর মা।

মা বেঁচে থাকায় ২০০২ সাল পর্যন্ত পিতার কোনো সন্ধান করেননি ৩১তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিতে যাওয়া এই লেবার পার্টির নেতা। পরবর্তীকালে একটি রাষ্ট্রীয় সফরে ২০০৯ সালে দক্ষিণ ইতালির বারলেটা নামক এক শহরে পিতা কার্লোর সঙ্গে জীবনে প্রথমবারের মতো দেখা করেন অ্যান্থনি।

১২ বছর বয়সেই নিজের শহরতলিতে ‘বাসাভাড়া’-সংক্রান্ত একটি ধর্মঘটে সাংগঠনিক ভূমিকা পালন করে স্থানীয় অধিবাসীদের নজরে আসেন আলবেনিজ। শৈশব সম্পর্ক একদা তিনি বলেছিলেন, ‘সরকার যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, তা খুব ছোটবেলায়ই আমি টের পেয়েছিলাম। মানুষের জীবন বদলাতে সরকারই যে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখতে পারে, তা নিয়ে আমার কোনো দ্বিধা ছিল না।’

আলবেনিজ ২২ বছর বয়সে ‘ইয়াং লেবার’ নেতা নির্বাচিত হন। ১৯৮৩-৯১ সালে লেবার পার্টির শাসনকালে প্রধানমন্ত্রী বব হকের আমলে বিভিন্ন ধরনের অর্থনৈতিক সংস্কারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ গবেষণায় অংশ নেন তিনি। ২০০৭ সালে প্রথমবারের মতো দেশটির নিম্নকক্ষের সদস্য নির্বাচিত হন। তখনই তিনি অস্ট্রেলিয়ার সড়ক পরিবহনমন্ত্রী হিসেবে ইতালি সফরে গিয়ে পিতার সঙ্গে দেখা করেছিলেন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    পশ্চিমা নেতৃত্ব বিশ্বকে কি আরও বিভক্ত করছে

    ইভিএম নিয়ে কোন পথে হাঁটবে ইসি

    মাঙ্কিপক্স নিয়ে ইউরোপকে সতর্কতা

    কোনটা জরুরি, ইভিএম না নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ?

    গরুর চর্মরোগ, দুশ্চিন্তা খামারির

    রেলক্রসের ওভারপাসে বরাদ্দ বাড়ল ১৫০ কোটি টাকা

    ব্যবসায়ী হিলালীর সন্ধান পেতে পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

    ম্যানইউ ছাড়তে চান রোনালদো

    অধ্যক্ষকে লাঞ্ছিতের ঘটনায় আসামিদের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

    বিজিবির অভিযানে জুন মাসে ১৩১ কোটি টাকার মাদক ও অবৈধ পণ্য জব্দ

    নড়াইলে শিক্ষককে জুতার মালা পরানোর ঘটনায় সদর থানার ওসি প্রত্যাহার

    শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে কোম্পানীগঞ্জে মানববন্ধন