Alexa
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

সেকশন

epaper
 

নামতে শুরু করেছে পানি, বাড়ছে দুর্গন্ধ

আপডেট : ২২ মে ২০২২, ১৯:৩০

সিলেটে প্লাবিত প্রায় সব এলাকা থেকেই পানি নামতে শুরু করেছে। ছবি: আজকের পত্রিকা  সিলেটের বন্যা পরিস্থিতির ক্রমশ উন্নতি হচ্ছে। এরই মধ্যে প্লাবিত প্রায় সব এলাকা থেকেই পানি নামতে শুরু করেছে। আশা করা যাচ্ছে, আগামী দু-তিন দিনের মধ্যে পানি পুরোপুরি নেমে যাবে। 

সিলেটের উপসহকারী প্রকৌশলী নিলয় পাশা বলেছেন, ‘সিলেটের বন্যা পরিস্থিতির আর খুব একটা অবনতি হওয়ার আশঙ্কা নেই। ৪-৫ দিনের মধ্যে বেশির ভাগ এলাকা থেকেই পানি নেমে যাবে।’ 

বন্যার পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে ঘরে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। কিন্তু ঘরে ফিরে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার সুযোগ নেই। কেননা গত কয়েক দিন ধরে জমে থাকা বন্যার পানি আর ময়লা-আবর্জনা মিলেমিশে চারপাশে পচা দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। সিলেট নগরীতে বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে এখন প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে দুর্গন্ধ। 

নগরীর ছড়ারপাড় এলাকার বাসিন্দা শিবলু মিয়া বলেন, ‘বাসা থেকে বন্যার নোংরা পানি নেমে গেছে। কিন্তু পুরো বাসা দুর্গন্ধযুক্ত হয়ে আছে। তাই ব্লিচিং পাউডার দিয়ে এখন নিজেদের বাসা-বাড়ি পরিষ্কার করছি। আসবাবপত্র ধোয়ামোছার কাজও চলছে।’ 

নগরীর ঘাসিটুলা এলাকার বাসিন্দা সিতারা বেগম বলেন, ‘সারা এলাকাজুড়ে দুর্গন্ধ। কোথাও একটু দাঁড়িয়ে নিশ্বাস নিয়েও শান্তি পাচ্ছি না।’ 

পাউবো সূত্রে জানা যায়, আজ রোববার সকাল ৬টায় সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে ছিল ১৩.৫৭ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে দুপুর ১২টায় পানি ছিল ১৩.৪৬ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে পানির ডেন্জার লেভেল হচ্ছে ১২.৭৫ সেন্টিমিটার। সিলেট পয়েন্টে সুরমার পানি সকাল ৬টায় ছিল ১০.৯৩ সেন্টিমিটার, দুপুর ১২টায় ছিল ১০.৯১ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে পানির ডেন্জার লেভেল হচ্ছে ১০.৮০ সেন্টিমিটার। 

কুশিয়ারা নদীর পানি আমলশিদ পয়েন্টে আজ সকাল ৬টায় ছিল ১৬.৭৪ সেন্টিমিটার, সকাল ৯টায় ছিল ১৬.৭২ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে পানির ডেন্জার লেভেল হচ্ছে ১৫.৪০ সেন্টিমিটার। কুশিয়ারা নদীর পানি শেওলা পয়েন্টে সকাল ৬টায় ছিল ১৩.৫৩ সেন্টিমিটার, দুপুর ১২টায় ছিল ১৩.৫১ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে পানির ডেন্জার লেভেল হচ্ছে ১৩.০৫ সেন্টিমিটার। 

কুশিয়ারা নদীর পানি শেরপুর পয়েন্টে সকাল ৬টায় ছিল ৯.৯৯ সেন্টিমিটার, দুপুর ১২টায় ছিল ৮.০০ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে পানির ডেন্জার লেভেল হচ্ছে ৮.৫৫ সেন্টিমিটার। ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্ট সকাল ৬টায় পানি ছিল ৯.৮৯ সেন্টিমিটার, দুপুর ১২টায় ছিল ৯.৯৪ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে পানির ডেন্জার লেভেল হচ্ছে ৯.৪৫ সেন্টিমিটার। 

এদিকে বন্যা দীর্ঘায়িত হওয়ায় সংকট আরও বেড়েছে। ত্রাণ নিয়েও হাহাকার দেখা দিয়েছে অনেক জায়গায়। এখন পর্যন্ত ত্রাণ না পাওয়ার অভিযোগ করছেন অনেকে। এর মধ্যে শনিবার কোম্পানীগঞ্জে ত্রাণ নিয়ে কাড়াকাড়ি ও হট্টগোলের ঘটনা ঘটেছে। 

অপরদিকে বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন কৃষক ও মৎস্যজীবীরা। বোরোর পর তলিয়ে গেছে আউশ ধানের বীজতলা। এছাড়া ভেসে গেছে হাজারো খামারের মাছ। পাশাপাশি বন্যায় বেড়েছে পানিবাহিত রোগের প্রকোপ। 

সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. এস এম শাহারিয়ার বলেছেন, ‘সিলেটে পানিবাহিত রোগের প্রকোপ বেড়েছে। এরই মধ্যে শতাধিক লোক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার তথ্য আমরা পেয়েছি। চর্মরোগও বাড়ছে। পানি কমলে রোগবালাই আরও বাড়তে পারে। পানিবাহিত রোগ যাতে ছড়িয়ে না পড়ে এ জন্য আমরা এরই মধ্যে ১৪০টি মেডিকেল টিম গঠন করেছি। তারা বিভিন্ন উপজেলায় বন্যার্তদের সেবায় কাজ করছে।’ 

সিলেটের জেলা প্রশাসক মো মজিবর রহমান বলেন, ‘ত্রাণের কোনো সংকট নেই আমাদের। শনিবার পর্যন্ত বন্যার্তদের মাঝে ৩২৫ মেট্রিক টন চাল, নগদ ১৫ লাখ টাকা ও সাড়ে ৫ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। এখনো আমাদের কাছে পর্যাপ্ত ত্রাণ আছে। পর্যায়ক্রমে সবাইকে ত্রাণ দেওয়া হবে।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বন্যাকবলিত এলাকায় আলোক হেলথ কেয়ারের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প

    খেলা শেষে নদীতে গোসলে নেমে ২ কিশোরের মৃত্যু

    শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে শাবিপ্রবিতে মানববন্ধন

    ঢাকা-কলকাতা সৌহার্দ্য বাসের অফিস উদ্বোধন

    গৌরনদীতে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম, মামলা

    রাঙ্গুনিয়ায় আগুনে পুড়েছে ৪ দোকান

    ‘বিপজ্জনক পণ্য’ পরিবহনে অনীহা, দেশে কাঁচামাল সংকটের আশঙ্কা

    নীল সন্ধ্যার গজল

    বন্যাকবলিত এলাকায় আলোক হেলথ কেয়ারের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প

    ব্যাংক এশিয়ার ৫৮তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের সার্টিফিকেট প্রদান অনুষ্ঠান

    খেলা শেষে নদীতে গোসলে নেমে ২ কিশোরের মৃত্যু

    সরকারি খাতে ঋণ বাড়িয়ে বেসরকারিতে কমাল বাংলাদেশ ব্যাংক