Alexa
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

সেকশন

epaper
 

অল্প বৃষ্টিতেই কোমর পানি

আপডেট : ২২ মে ২০২২, ১১:৪০

গতকাল মাত্র ৩ ঘণ্টা বৃষ্টিতে এই অবস্থা। কেবি আমান আলী রোড ছাড়াও চট্টগ্রামের দুই নম্বর গেট, বাদুরতলা, জঙ্গী শাহ মাজার গেট, হারেজ শাহ মাজার গেটসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। নগরের বাকলিয়া থানার সৈয়দশাহ রোড এলাকায় সড়কে কোমর সমান পানি। সড়কটি কতটুকু উঁচু করা হয়েছে পাশের বাড়িগুলো দেখলে তা বোঝা যায়। অর্থাৎ প্রতিটি বাড়ির নিচতলার চেয়ে সড়কগুলো ওপরে। ফলে স্বভাবতই মূল সড়কে কোমর সমান পানি মানে বাসায় টইটম্বুর। তাই এসব বাসায় যাঁরা থাকেন, বৃষ্টি হলেই শঙ্কায় থাকেন তাঁরা। সেখানে থাকা নাজমা বেগম নামের এক গৃহিণী বলেন, ‘গরমে পরান যাইলে কী হইব, ঝড় আইলে ডর লাগে।’

নাজমা বেগমের এ শঙ্কার কারণ, চট্টগ্রামে অল্প বৃষ্টিতেই বাসায় পানি ঢুকে যায়। এতে আসবাবপত্রের পাশাপাশি নির্ঘুম রাত কাটে তাঁদের। গতকাল শনিবার সরেজমিন যখন নাজমার সঙ্গে কথা হচ্ছিল, তখন তাদের শোয়ার খাট পানিতে ভাসছে। বিছানাপত্র কিছু আলমারির ওপর আর কিছু সানশেডে। সকাল থেকে বাসায় রান্নাবান্না হয়নি। দুপুরে সবাই মিলে হোটেলে গিয়ে খেয়েছেন বলে জানান।

শুধু নাজমা বেগম নন, চকবাজার হয়ে কেবি আমান আলী রোড থেকে রাহাত্তারপুল পর্যন্ত প্রায় প্রত্যেকের নিচতলা ডুবে গেছে। বড়মিয়া মসজিদেও নিচতলায় পানি উঠে যাওয়ায় মুসল্লিরা ওপরতলায় নামাজ আদায় করেন।

চট্টগ্রামে গতকাল মাত্র ৩ ঘণ্টা বৃষ্টিতে এই অবস্থা। তাও মাত্র ৪৮ মিলিমিটার বৃষ্টি। কেবি আমান আলী রোড ছাড়াও চট্টগ্রাম দুই নম্বর গেট, বাদুরতলা, জঙ্গী শাহ মাজার গেট, হারেজ শাহ মাজার গেট, বড় গ্যারেজ, ডিসি সড়কসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে। ওই সব জায়গায় হাঁটু থেকে কোমর পানিতে তলিয়ে যায়। সড়কের পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকার বাসা-দোকানেও ঢুকে পড়ে পানি। নালা আটকে থাকায় বিভিন্ন উঁচু এলাকার সড়কেও পানি জমতে দেখা গেছে। ফলে বর্ষার আগেই অনিয়মিত এই বৃষ্টিতে দুর্ভোগে পড়েন হাজার হাজার মানুষ।

পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়া পূর্বাভাস কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ চৌধুরী জানান, সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত ৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। পরবর্তী সময়ে সকাল ৯টা দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৪৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। অর্থাৎ সকাল ৬টা থেকে ১২টা পর্যন্ত চট্টগ্রামে ৪৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। ভারী বৃষ্টির আগে ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার বেগে বাতাস বয়ে যায় বলে জানান তিনি।

বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেন, আজকের তিন ঘণ্টার বৃষ্টি হলো অনিয়মিত বৃষ্টি। আগামীকালও (আজ) এমন বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি মোবারক আলী বলেন, সিটি করপোরেশনের সঙ্গে সিডিএর একটি চুক্তি হয়েছিল, বর্ষার আগে চাক্তাই খাল, মির্জা খাল, টেকপাড়া খালসহ আরও কয়েকটি খালের বাঁধ তারা খুলে দেবে। কিন্তু সেগুলো এখনো খুলে না দেওয়ায় সামন্য বৃষ্টিতে পানি জমে নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। যদিও এখন বর্ষাকাল নয়, আশা করি তারা বর্ষার আগেই বাঁধগুলো খুলে দেবে।

প্রতিবারের মতো এবারের বর্ষায়ও জলাবদ্ধতা থেকে রেহাই মিলছে না চট্টগ্রামবাসীর। বিগত বছরগুলোর তুলনায় আরও বেশি জলাবদ্ধতা তৈরি হবে বলে আশঙ্কা করছে নগরবাসী। জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের আওতায় কাজ চলমান থাকা খালগুলোতে বাঁধের কারণে এবার জলাবদ্ধতার ভোগান্তি বাড়বে বলে জানিয়েছেন তাঁরা। এ জন্য চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) পক্ষ থেকে বেশ কয়েক দফা প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থাকে খালের ওপর দেওয়া বাঁধগুলো অপসারণ করতে বলা হলেও এখনো অনেক বাঁধ রয়ে গেছে। যে কারণে সামান্য বৃষ্টিতেই নগরে হাঁটু সমান জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    তদন্ত প্রতিবেদন আটকে সিআইডির প্রতিবেদনে

    ধানের লক্ষ্য অর্জন নিয়ে শঙ্কা

    ভোগান্তির চার কিলোমিটার

    টেকসই কৃষির জন্য নতুন প্রকল্প

    টেস্টে উন্নতি না করেও টাকার পাহাড়ে বিসিবি

    অস্কার কমিটিতে ভারতীয় তারকা

    ‘পুলিশ এখন জনকল্যাণে নয়, আওয়ামী লীগের নিরাপত্তা কল্যাণে নিয়োজিত’

    সোহেল চৌধুরী হত্যা: আশীষ চৌধুরীর জামিন প্রশ্নে রুল জারি

    বাইডেনের চোখে সব নষ্টের গোড়া পুতিন

    ব্র্যাক ব্যাংক ও জেডটিই করপোরেশনের মধ্যে চুক্তি

    বড় কোনো পরিবর্তন ছাড়াই জাতীয় সংসদে বাজেট পাস

    ‘বিপজ্জনক পণ্য’ পরিবহনে অনীহা, দেশে কাঁচামাল সংকটের আশঙ্কা