Alexa
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

সেকশন

epaper
 

সখীপুরে ঝড়-বৃষ্টিতে পাঁচ সরকারি কার্যালয় জলাবদ্ধ

আপডেট : ২২ মে ২০২২, ১৫:১৭

বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে সখীপুর উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় ও সহকারী সেটেলমেন্ট কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে। ছবি: আজকের পত্রিকা বৃষ্টির পানি জমে সখীপুর উপজেলা পরিষদ মাঠসংলগ্ন পাঁচটি সরকারি কার্যালয়ের সামনে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে সেবাগ্রহীতাসহ এসব কার্যালয়ের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীও চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। গতকাল শনিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে জলাবদ্ধতার এ দৃশ্য দেখা যায়।

এগুলো হলো উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়, সহকারী সেটেলমেন্ট কর্মকর্তার কার্যালয়, পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশন, যুব উন্নয়ন ও পাট উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়। বৃষ্টির পানিনিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় পুরো বর্ষাকালেই এ কার্যালয়গুলোর সামনে এমন দীর্ঘ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয় বলে জানান এসব কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ২০ থেকে ৩০ মিটার জলাবদ্ধতা পাড়ি দিয়ে সেবাগ্রহীতারা উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ে যাতায়াত করছেন। আগামী ১৫ জুন উপজেলার দুটি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তফসিল ঘোষণার পর থেকেই প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিলসহ বিভিন্ন কাজে নির্বাচন কার্যালয়ে এখন বেশি সংখ্যক মানুষের যাতায়াত। কিন্তু ওই কার্যালয়ের সামনে জলাবদ্ধতা থাকায় সেবাগ্রহীতাদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

এ ছাড়া অন্য চারটি কার্যালয়ের সেবাগ্রহীতাসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও কাদাপানিতে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। সেবাগ্রহীতা বলছেন, বেশ কয়েক বছর ধরেই এ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হলেও কার্যকর কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

উপজেলা পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা আমির আলী বলেন, ‘পাঁচটি কার্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী মিলে প্রায় অর্ধশত জনবল রয়েছে। ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিনই জল-কাদা মাড়িয়েই আমাদের অফিসে আসতে হচ্ছে।’

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. শাহ আলম বলেন, সেবাগ্রহীতারা চরম দুর্ভোগ শিকার হয়ে আসছেন। বেশ কয়েক বছর ধরেই এমন অবস্থা চলছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আতাউল হক বলেন, ‘বর্ষা শুরু হলেই এই পাঁচটি কার্যালয়ের সামনে দীর্ঘ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এখন ইউপি নির্বাচন ঘিরে প্রতিদিন শত শত মানুষকে অফিসে আসছেন। তাঁরা কাদাপানি নিয়েই অফিসে ঢুকে পড়ছেন। এতে পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। বিষয়টি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানসহ আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরও জানানো হয়েছে।’

নির্বাচন কার্যালয়ে আসা সিরাজুল ইসলাম নামের এক সেবাগ্রহীতা বলেন, ‘ইউপি নির্বাচন বিষয়ে একটি তথ্যের জন্য এসেছি। অথচ আমাদের জুতা খুলে কাদাপানি ভেঙে অফিসে যেতে হচ্ছে। উপজেলা পরিষদের মূল ফটকের সামনেই এমন জলাবদ্ধতা পরিষদের সৌন্দর্যকেও নষ্ট করেছে।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারজানা আলম সরকারিভাবে প্রশিক্ষণের জন্য বিদেশ থাকায় তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

তবে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জুলফিকার হায়দার কামাল লেবু আজকের পত্রিকাকে বলেন, ওই অফিসগুলোর সামনের পানি পৌরসভার মূল ড্রেনে গিয়ে পড়ে। কিন্তু পৌরসভার ড্রেন বন্ধ থাকায় পানি নিষ্কাশন হচ্ছে না।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    তদন্ত প্রতিবেদন আটকে সিআইডির প্রতিবেদনে

    ধানের লক্ষ্য অর্জন নিয়ে শঙ্কা

    ভোগান্তির চার কিলোমিটার

    টেকসই কৃষির জন্য নতুন প্রকল্প

    টেস্টে উন্নতি না করেও টাকার পাহাড়ে বিসিবি

    অস্কার কমিটিতে ভারতীয় তারকা

    বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পেলেন আবরার ফাহাদের ছোট ভাই

    সবাইকে পদ্মা সেতু নিয়ে ব্যস্ত রেখেছে সরকার: নুর

    নির্ধারিত সময়ের আগেই পদ্মা সেতুর খরচ উঠে আসবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী

    ‘পুলিশ এখন জনকল্যাণে নয়, আওয়ামী লীগের নিরাপত্তা কল্যাণে নিয়োজিত’

    সোহেল চৌধুরী হত্যা: আশীষ চৌধুরীর জামিন প্রশ্নে রুল জারি

    বাইডেনের চোখে সব নষ্টের গোড়া পুতিন