Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

ঘুরেফিরে একই পদে ১৪ বছর

আপডেট : ২২ মে ২০২২, ১২:০২

ঘুরেফিরে একই পদে ১৪ বছর কক্সবাজারের চকরিয়ায় পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা মাসউদ মোরশেদ ঘুরেফিরে একই পৌরসভায় ১৪ বছরের বেশি সময় কর্মরত থাকার অভিযোগ উঠেছে। দুই দফায় তিনি এ পৌরসভায় দায়িত্ব পালন করছেন। চাকরিবিধি উপেক্ষা করে এই কর্মকর্তা এত দিন একই কর্মস্থলে রয়েছেন বলে অভিযোগ ওই পৌরসভার অনেকের।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি তাঁকে বদলি করতে ৯ জন কাউন্সিলর মেয়র আলমগীর চৌধুরীর কাছে দাবি তুলেছিলেন। ওই সময় মেয়র তাঁদের আশ্বস্ত করেছিলেন অতি দ্রুত তাঁকে বদলি করতে মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করবেন। প্রায় ৪ মাস পার হলেও তাঁকে বদলি না করায় কাউন্সিলর ও পৌর নির্বাহী কর্মকর্তার দ্বন্দ্ব এখন চরম আকার ধারণ করেছে।

চকরিয়া পৌরসভা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা মাসউদ মোরশেদের বাড়ি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায়। ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল প্রথম চকরিয়া পৌরসভায় যোগদান করেন তিনি। টানা ৬ বছর ১ মাস ১৯ দিন তিনি এই পৌরসভায় কর্মরত ছিলেন। এরপর ২০১১ সালের ১৬ জুন তাঁকে বদলি করা হয়।

প্রায় ৩ বছর পর আবারও ২০১৪ সালের ৩ এপ্রিল চকরিয়া পৌরসভা যোগদান করেন তিনি। অদ্যাবধি ৮ বছর ১ মাস ১৫ দিন ধরে তিনি এ পৌরসভায় কর্মরত আছেন। ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল থেকে ২০২২ সালের মে পর্যন্ত তিনি দুই দফায় প্রায় ১৪ বছর ৩ মাস ঘুরেফিরে চকরিয়ায় কর্মরত রয়েছেন।

পৌর নির্বাহী কর্মকর্তার স্বেচ্ছাচারিতা, দুর্ব্যবহার, দুর্নীতি ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সমবণ্টন না করার অভিযোগ তুলে ২০১৭ সালের ৭ এপ্রিল তাঁর অফিসকক্ষে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছিলেন ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মুজিবুল হক মুজিব। চলতি বছরের ২৫ মার্চ অনিয়ম ও পৌরসভার কিচেন মার্কেটে নামে-বেনামে দোকান বরাদ্দ নেওয়া, পৌরসভার ফুটপাত ইজারা, চাঁদা তোলাসহ নানা অভিযোগ তুলে কাউন্সিলর মুজিব ফের তাঁর বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অবস্থান নেন। তিনি তাঁর নিজস্ব ফেসবুক অ্যাকাউন্টে নানা অনিয়মের বিষয়ে স্ট্যাটাস দেন। বিষয়টি চকরিয়ায় ‘টক অব দ্য টাউনে’ পরিণত হয়েছিল।

এ বিষয়ে পৌরসভার কাউন্সিলর মুজিবুল হক মুজিব বলেন, ‘আমি পরপর দুইবার কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছি। প্রথমবার ২০১৭ সাল থেকে মাসউদ মোরশেদের দুর্নীতিসহ নানা অনিয়মে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছি। তাঁর অনিয়ম ও দুর্নীতিতে পৌরসভার আর্থিকভিত্তি ধ্বংস হয়ে গেছে।’ একই অভিযোগ তোলেন আরও দুজন কাউন্সিলর। তাঁরা বলেন, ‘যে কর্মকর্তা দীর্ঘ সময় ঘুরেফিরে একই কর্মস্থলে থাকেন, নিশ্চয়ই তাঁর মধ্যে অসৎ উদ্দেশ্য থাকে।’

পৌরসভার বাসিন্দা আবুল কালাম বলেন, ‘কিছুদিন আগে একটি সনদ নিতে পৌর নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে যাই। সনদের বিষয়ে তাঁর কাছে জানতে চাইলে দুর্ব্যবহার করে তাড়িয়ে দেন।’

পৌরসভার পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা মাসউদ মোরশেদের কাছে প্রথম কত সালে যোগদান করেছিলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি কখন যোগদান করেছি, সেটা আপনার এখন জানার দরকার নেই।’ আগে বসে কথা বলার অনুরোধ করে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন তিনি।

চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, ‘পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা মাসউদ মোরশেদ বদলি হয়ে এসে ৮ বছর পার করেছে ঠিক। তিনি বদলি হয়ে যাবেন। একটু আমার সঙ্গে দেখা করবেন, বিস্তারিত দেখা হলেই বলব।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    মহাসড়কে অবৈধ পার্কিং যানজটে অতিষ্ঠ মানুষ

    করোনা বাড়লেও মাস্কে অনীহা

    বন্যার ক্ষত ৫০ কিমি সড়কে

    পশুহাটে মিলেমিশে চাঁদাবাজি

    পাহাড়ে সেনা ক্যাম্প সম্প্রসারণের দাবি

    তিন দিনেও মামলা নেয়নি থানা-পুলিশ

    আমেরিকার নিষেধাজ্ঞায় কষ্ট পাচ্ছে সাধারণ মানুষ, বিবেচনার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর

    পাটুরিয়ায় ভোগান্তি ছাড়াই ঘাট পারাপার, চাপ নেই গাড়ির

    ছেলেমেয়েকে হারিয়ে নির্বাক রহিচ দম্পতি 

    মেঘনা ব্যাংকের গ্রাহকেরা এখন অ্যাকাউন্ট থেকে নগদে টাকা পাঠাতে পারবেন

    ফ্রিজ কিনতে শোরুমগুলোতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়

    পরিবারের সঙ্গে ঈদ করা হলো না নাহিদের