Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

সাত মাস জলাবদ্ধ স্বাস্থ্যকেন্দ্র

আপডেট : ২০ মে ২০২২, ১৬:৪৫

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার খাজানগরে চালকলের বর্জ্যের পানিতে একটি উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রের চারপাশে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে। এ কারণে সাত মাস ধরে বন্ধ রয়েছে স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি। এতে চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বাসিন্দারা। ছবি: আজকের পত্রিকা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার খাজানগর। এখানে নারী-পুরুষ মিলিয়ে প্রায় অর্ধলাখ মানুষের বসবাস। বাসিন্দাদের অধিকাংশই চালকল এবং ধানের চাতালের শ্রমিক বা ব্যবসায়ী। এ অর্ধলাখ মানুষের প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবার জন্য আছে একটি মাত্র উপস্বাস্থ্যকেন্দ্র। কিন্তু চালকলের বর্জ্যের পানিতে সেটির চারপাশে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে। এ কারণে প্রায় সাত মাস ধরে বন্ধ রয়েছে স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

এতে সেবাবঞ্চিত হচ্ছেন ওই অর্ধলাখ মানুষ।

দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম চালের মোকাম বলা হয় কুষ্টিয়ার এ খাজানগরকে। ছোট মাঝারি এবং অটো রাইচমিলসহ এখানে সাড়ে ৪ শতাধিক চালকল আছে। যেসব চালকল থেকে নিয়মিতভাবে দূষিত বর্জ্য নির্গত হয়। এ নিয়ে বাসিন্দাদের অভিযোগ পুরোনো।

কিন্তু এবার দেশ এগ্রো ও ইফাদ এগ্রো নামের দুটি চালকলের বিষাক্ত বর্জ্য ও দূষিত পানিতে ওই এলাকার মানুষের স্বাস্থ্যসেবার একমাত্র স্থান উপস্বাস্থ্যকেন্দ্রটির চারপাশে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে। যার ফলে গত ৭ মাস ধরে সেখানকার কার্যক্রম বন্ধ।

সরেজমিন দেখা গেছে, স্বাস্থ্যকেন্দ্রের পুরো এলাকা বর্জ্য ও কচুরিপানা জমে আছে। দেখে বোঝার উপায় নেই এটি কোনো স্বাস্থ্যকেন্দ্র।

শুধু স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি নয় পাশে কুষ্টিয়া-চুয়াডাঙ্গা সড়কের কুবুরহাট এলাকা দিয়ে চলাচলকারী হাজারো মানুষ বিষাক্ত পানির দুর্গন্ধে নাকে রুমাল দিয়ে চলাফেরা করছেন। ওই পানি গায়ে লেগে চর্মরোগসহ নানা অসুখ-বিসুখ দেখা দিচ্ছে। চালকলের বিষাক্ত বর্জ্য ও দূষিত পানিতে আশপাশের ফসলও নষ্ট হচ্ছে। একটু বৃষ্টি হলেই ওই পানিতে ডুবে যায় সড়ক।

স্থানীয়দের দাবি, চালকল মালিকেরা প্রভাবশালী হওয়ায় সবাইকে ম্যানেজ করে চলেন। স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির চারপাশে চালকলের বিষাক্ত বর্জ্য ও দূষিত পানিতে সয়লাব থাকলেও সংশ্লিষ্ট কারও মাথা ব্যথা নেই।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের কয়েকজন কর্মচারী বলেন, আমরা এখানে চাকরি করি। চালকল মালিকেরা প্রভাবশালী হওয়ায় এ ব্যাপারে কথা বলতে গেলে তাঁরা হুমকি-ধমকি দেন। তাই প্রতিবাদ করতে পারি না। বিষয়টি উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের জানিয়েছি, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। এ বিষয়ে কোনো কিছু করতে গেলে আমাদের ঝামেলায় পড়তে হবে। তাই দেখেও সবকিছু না দেখার ভান করি।

বটতৈল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিন্টু ফকির বলেন, ‘স্থানীয়রা আমাকে জানানোর পর বুধবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। চালকল মালিক পক্ষের সঙ্গে কথাও বলেছি। তাঁরা দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ এ বিষয়ে অবগত নন বলে জানিয়েছেন পরিবেশ অধিদপ্তর কুষ্টিয়ার উপপরিচালক আতাউর রহমান। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

স্থানীয়দের দাবি খাজানগরে একের পর এক চালকল তৈরি হলেও বর্জ্য নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা রাখা হয়নি। এমনকি অধিকাংশ চালকলের নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র। 
কুষ্টিয়ার পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপপরিচালক মিজানুল হক বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমি স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি পরিদর্শন করেছি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদেরও জানিয়েছি। তবে তাঁরা কেউই ব্যবস্থা নেননি। এ বিষয়ে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পরামর্শ নিয়ে ব্যবস্থা নেব।’ এ বিষয়ে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাধন কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘বিষয়টি এত দিন কেউ আমার নজরে আনেননি। এখন জানলাম। আমি খোঁজখবর নিচ্ছি। এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল ইসলাম জানান, তিনি কিছু জানেন না। খোঁজ নিয়ে এ বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেবেন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    মহাসড়কে অবৈধ পার্কিং যানজটে অতিষ্ঠ মানুষ

    করোনা বাড়লেও মাস্কে অনীহা

    বন্যার ক্ষত ৫০ কিমি সড়কে

    পশুহাটে মিলেমিশে চাঁদাবাজি

    পাহাড়ে সেনা ক্যাম্প সম্প্রসারণের দাবি

    তিন দিনেও মামলা নেয়নি থানা-পুলিশ

    ক্যাটল ট্রেনে প্রায় এক হাজার গরু-ছাগল আসল ঢাকায়

    ইংল্যান্ডের নতুন ধারার ক্রিকেটকে চ্যালেঞ্জ জানালেন স্টিভ স্মিথ

    সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, প্রেমিকসহ গ্রেপ্তার ৪

    বাস থেকে যাত্রীকে ফেলে দিয়ে হত্যা, চালক-হেলপার আটক

    আমেরিকার নিষেধাজ্ঞায় কষ্ট পাচ্ছে সাধারণ মানুষ, বিবেচনার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর

    পাটুরিয়ায় ভোগান্তি ছাড়াই ঘাট পারাপার, চাপ নেই গাড়ির