Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

ধান ডোবায় হতাশায় কৃষক

আপডেট : ১৯ মে ২০২২, ১৪:১৪

ছবি: আজকের পত্রিকা নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় কয়েক দিনের টানা বর্ষণে তলিয়ে গেছে ধানখেত। ঘরে ধান তোলা নিয়ে হতাশায় কৃষকেরা। টানা বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে গুমাই নদসহ ছোট-বড় খাল ও নদীতে পানি বেড়েছে। তলিয়ে গেছে মাঠ। উপজেলার পোগলা ইউনিয়নের রানীগাঁও বাজার-হিরাকান্দা প্রধান সড়কের ফসল রক্ষা বাঁধের প্রায় ১০০ ফুট ভেঙে গেছে। পর্যাপ্ত শ্রমিক না থাকায় পানিতে ডুবে থাকা ধান কাটতে পারছেন না তাঁরা। পরিবারের লোকজন নিয়ে নিজেরাই যতটুকু পারছেন কাটার চেষ্টা করছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বলা হয়েছে, কৃষকেরা এখন পর্যন্ত ৭০ শতাংশ ধান কেটে বাড়িতে এনেছেন। খেতে থাকা ধানগাছের একটি অংশ ডুবে গেছে। শ্রমিক-সংকট থাকায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কয়েক দিনের বৃষ্টির কারণে উপজেলার কৈলাটি ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের খেতের ধান ইতিমধ্যে নষ্ট হয়ে গেছে। শ্রমিক না পেয়ে পরিবারের লোকজন পানি থেকে ধান ঘরে তোলার চেষ্টা করছেন। পানির নিচে প্রায় তলিয়ে যাওয়া ধান কেটে মুঠিগুলো ছোট ছোট নৌকার ওপর জমা করছেন কৃষকেরা। অনেক কষ্ট করে ধান কেটেও লাভ হচ্ছে না কৃষকদের। রোদ না থাকায় সেই ফসলও নষ্ট হচ্ছে। পানির নিচ থেকে কাটা-ভেজা ধান কিনতে চান না স্থানীয় ধান ব্যবসায়ীরা। এমন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন এনজিও নেওয়া ঋণের টাকা পরিশোধ নিয়ে চিন্তিত কৃষকেরা।

জাইকার অর্থায়নে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের তত্ত্বাবধানে নির্মিত বাঁধের গুমাই নদের আমবাড়ি পাঠানপাড়া নামক স্থান গত রোববার রাত ১২টার দিকে ভেঙে গেছে। বাঁধটি অনেক আগে নির্মিত হয়েছিল। জাইকার অর্থায়নে প্রতিবছর বাঁধটি মেরামত করলেও বরাদ্দ না থাকায় এ বছর বাঁধ সংস্কারে কোনো কাজ হয়নি। এতে বাঁধ ভেঙে মানধাউড়া, চিটুয়া ও বেখুরীকান্দা শুনই বিলের ধানগাছ পানিতে ডুবে গেছে। বিলের মধ্যে পানি ডুবো ডুবো থাকায় ধান শুকানো নিয়ে বিপাকে কিষান-কিষানিরা।

বাঁধ ভাঙার বিষয়ে জানতে কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। উপজেলায় কর্মরত সাবেক প্রকৌশলী আফসার উদ্দিন বলেন, সাত-আট বছর আগে ফসল রক্ষার জন্য বাঁধটি নির্মাণ করা হয়েছিল। সঠিক নির্মাণব্যয় এ মুহূর্তে মনে পড়ছে না।

পোগলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক বলেন, ‘অতিবৃষ্টির কারণে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে দুদিন ধরে বাঁধের এক পাশে গুমাই নদের পানি বাড়তে থাকে। বাজেট না থাকায় এ বছর বেড়িবাঁধ সংস্কার করা হয়নি। গত রোববার রাতে প্রায় ১০০ ফুট বাঁধ ভেঙে যাওয়ার খবর পাই। এতে বিলের ১০ ভাগ ফসলি জমিতে পানি ঢুকে পড়ে।’

উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্র জানায়, চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার আটটি ইউনিয়নের ২১ হাজার ৪৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে, যা গত বছরের চেয়ে কিছুটা কম। এবার সর্বত্রই বাম্পার ফলন হলেও কালবৈশাখী, শিলাবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারণে উপজেলার বেশ কিছু এলাকায় বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ভুক্তভোগী কৃষক হাবিবুর রহমান বলেন, এক সপ্তাহ ধরে ভারী বর্ষণের কারণে পানি বেড়েছে। শ্রমিক-সংকটে ধানও কাটতে পারছেন না। ক্ষতির পাশাপাশি ধানকাটা ও মাড়াই করা শ্রমিকের পারিশ্রমিক বেশি এবং মণপ্রতি ধানের দাম কম হওয়ায় হতাশ কৃষক। এ বছর সরকারি কৃষি অনুদান না পেলে পরিবার নিয়ে হতাশাগ্রস্ত হয়ে উঠবে জনজীবন।

ধান কাটতে আসা ঢাকার সরকারি তিতুমীর কলেজের অর্থনীতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ওমর সানি বলেন, ‘আব্বা ফোন করে জানিয়েছেন, খেতের ফসল পানিতে ডুবে গেছে। ধান কাটার জন্য শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। তাই তিনি পড়াশোনা রেখে ছুটে এসেছেন পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ডুবে যাওয়া ফসলি ধান কাটায় অংশ নিতে।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ফারুক আহমেদ বলেন, ‘কৃষকেরা এখন পর্যন্ত ৭০ শতাংশ ধান কেটে বাড়িতে নিয়ে এসেছেন। খেতে থাকা ধানের শিষের নিচের অংশ পর্যন্ত ডুবে রয়েছে। শ্রমিক-সংকট এবং রোদ না থাকায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ৮-১০ ঘণ্টাই থাকে না বিদ্যুৎ

    পিয়ন ছাড়া কেউ নেই অপেক্ষায় সেবাপ্রার্থী

    এখন ব্যস্ততা কামারদের

    সড়কের বুকে ভয়ংকর ক্ষত

    ঘন ঘন লোডশেডিং অতিষ্ঠ জনজীবন

    ‘নতুন কাপড় তো দূরের কথা, পুরান সবই গেছে নষ্ট অইয়া’

    বিএম ডিপো থেকে পণ্যভর্তি অক্ষত কনটেইনার সরানো শুরু

    পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল চালু হচ্ছে এ মাসেই

    কিশোরী নেতৃত্ব এবং কর্মশালাবিষয়ক সেমিনার

    পুলিশের গুলিতে নিহত জেল্যান্ড ওয়াকারের মরদেহে পরানো হয়েছিল হাতকড়া

    পাবনায় স্বামীর বিরুদ্ধে ছুরিকাঘাতে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ

    সিলেটে ব্লগার অনন্ত হত্যা: বেঙ্গালুরুতে গ্রেপ্তার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ফয়সাল