Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

রামেক হাসপাতাল

রোগী না থাকায় বন্ধ করা হলো করোনা ইউনিট

আপডেট : ১৫ মে ২০২২, ১৪:০০

ফাইল ছবি একসময় মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছিল রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিট। তারপর ধীরে ধীরে সংকট কেটেছে। রোগী না থাকায় ইউনিটটি আপাতত বন্ধই করে দেওয়া হয়েছে। গত শুক্রবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এটি বন্ধ ঘোষণা করে।

গতকাল শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী। তিনি বলেন, ‘এখন তো করোনা রোগী নেই। মাত্র দুই-তিনজন রোগী করোনার লক্ষণ নিয়ে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি ছিলেন। গত বৃহস্পতিবার তাঁরাও ছাড়পত্র পেয়েছেন। ফলে ওয়ার্ডটি রোগীশূন্য হয়। তাই আমরা সেটি আপাতত বন্ধ ঘোষণা করেছি।’

করোনার সংক্রমণের শুরুতে একটি ওয়ার্ডে এই হাসপাতালে চিকিৎসা শুরু হয়েছিল। তারপর দফায় দফায় ওয়ার্ডের সংখ্যা বাড়ানো হয়। একসময় হাসপাতালের ১৪টি ওয়ার্ড নিয়ে হয় করোনা ইউনিট। এসব ওয়ার্ডে শয্যার সংখ্যা হয়েছিল সর্বোচ্চ ৫১৩টি। এর মধ্যে করোনা রোগীদের জন্য ছিল ২০ শয্যার নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ)। তবুও করোনার ডেল্টা ধরনের সংক্রমণের সময় রোগী রাখার জায়গা পাওয়া যাচ্ছিল না। রাজশাহী বিভাগ ছাড়াও রংপুর এবং খুলনা বিভাগের রোগীরা এখানে চিকিৎসা নিতে আসতেন।

করোনার ডেল্টা ধরনের সংক্রমণের সময় প্রতিদিন করোনা ইউনিটে ১০ থেকে ২৫ জন পর্যন্ত রোগী মারা গেছেন। ধীরে ধীরে মানুষ টিকার আওতায় এলে উত্তরবঙ্গের বৃহৎ হাসপাতালটিতেও করোনা রোগীর চাপ কমতে থাকে। গত বছরের শেষের দিকে করোনা রোগী একেবারেই কমে যায়। তাই ধীরে ধীরে করোনা ইউনিটের ওয়ার্ডের সংখ্যা কমানো হয়। কিছুদিন ধরে শুধু ৩০ নম্বর ওয়ার্ডটিতেই করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের চিকিৎসা চলত। শুক্রবার সেই ওয়ার্ডটিও বন্ধ করে দেওয়া হলো।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেন, ‘ওয়ার্ডটি আমরা আপাতত বন্ধ করেছি। তবে রোগীর চাপ হয় কি না, তার জন্য আরও এক মাস অপেক্ষা করব। সেখানে অন্য কোনো রোগী এক মাস রাখব না। ওয়ার্ডটির কিছু সংস্কারও প্রয়োজন। এই সময়ের মধ্যে সেটা করে ফেলব। আর এই এক মাসে যদি দু’চারজন করোনা রোগী আসে, তাহলে তাঁদের সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে ভর্তি নেব। তখন রামেক হাসপাতালের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে অন্য রোগী দেব। কিন্তু যদি করোনা রোগী আবার অনেক বাড়ে, তখন রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিট চালু হবে। আমাদের প্রস্তুতি থাকবে।’

জেলার সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের হিসাব অনুযায়ী, রাজশাহীর ৯ উপজেলা ও মহানগরে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৩ হাজার ৮২৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৩ হাজার ৪৮২ জন। করোনা পজিটিভ অবস্থায় মারা গেছেন ৩৪২ জন। করোনার উপসর্গে কতজন মারা গেছেন সেই হিসাব নেই। গতকাল শনিবার জেলায় একজন করোনা পজিটিভ রোগী ছিলেন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    বস্তাপ্রতি ২৫০ টাকা বাড়ল চালের দাম

    রুট পারমিট ছাড়া চলছে বাস, দুর্ঘটনা বাড়ছে

    আমন চাষের শুরুতেই বাড়তি খরচের বোঝা

    তিন দিনে আ.লীগ নেতার ৩ ঘেরে বিষ দিল দুর্বৃত্তরা

    পাঁচ দিনে চিনির দাম বাড়ল ৭ টাকা

    তরুণের মৃত্যুদণ্ড ও কিছু কথা

    রুট পারমিট ছাড়া চলছে বাস, দুর্ঘটনা বাড়ছে

    বস্তাপ্রতি ২৫০ টাকা বাড়ল চালের দাম

    ধর্ষণের অভিযোগে খুবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার

    প্রথম দক্ষিণ এশীয় হিসেবে ‘মিলেনিয়াম লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন স্থপতি মেরিনা

    মাদারগঞ্জে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতা

    আর্জেন্টিনায় উগ্র সমর্থকদের ক্ষোভের আগুনে পুড়ে ছাই ফুটবলারদের গাড়ি