Alexa
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

হালদায় মিলল সাকার ফিশ 

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২২, ০৩:৫১

জেলেদের কাছ থেকে উদ্ধার করা সাকার ফিশ। ছবি: আজকের পত্রিকা চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় হালদা নদীর মোহনা অভিযান চালিয়ে জেলেদের কাছ থেকে সাকার ফিশ উদ্ধার করেছে উপজেলা প্রশাসন ও নৌ পুলিশ। শনিবার হালদা নদীর মোহনা হতে মদুনাঘাট সেতু পর্যন্ত ৬টি স্পটে অভিযানের সাড়ে ৪ হাজার মিটার ঘেরা জালসহ সাকার ফিশ জব্দ করে তারা। 

চট্টগ্রামে হালদা নদীর কার্প জাতীয় মা-মাছ, ডলফিন ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছে উপজেলা প্রশাসন ও নৌ পুলিশ। তবুও অজ্ঞাত কারণে হালদায় মৎস্য দস্যুদের জাল পাতানো বন্ধ হচ্ছে না। 

এ সময় কচুখাইন এলাকা থেকে জব্দকৃত ঘেরা জালে মিলেছে মাছ ও জীববৈচিত্র্যের জন্য ক্ষতিকারক সাকার ফিশ। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে হালদা পাড়ের ডিম সংগ্রহকারীরা। পাশাপাশি এসব মাছের বিস্তৃতি হালদার জন্য একটি অশনিসংকেত বলছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে হালদার মাছ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সাকার ফিশের বিষয়টি সংশ্লিষ্টরা তাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার পাশাপাশি কার্যকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছেন। 

এদিকে হালদা নদীর মোহনা হতে মদুনাঘাট সেতু পর্যন্ত পরিচালিত অভিযানের নেতৃত্ব দেওয়া চট্টগ্রাম সদরঘাট নৌ পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবিএম মিজানুর রহমান জানান, ভোর থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত হালদার মোহনা হতে মদুনাঘাট সেতু সংলগ্ন মোট ৬টি স্পটে এ অভিযান পরিচালনা করে এসব জাল জব্দ করা হয়। এ সময় প্রায় ৫০টি বাঁশ উঠিয়ে কেটে নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। এ ছাড়া অভিযান চলাকালে কচুখাইন এলাকা থেকে জব্দকৃত ঘেরা জালে মিলেছে একটি সাকার ফিশের সন্ধান পাওয়ার বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করেন। 

হালদায় সাকার ফিশের সন্ধান মিলেছে এমন তথ্যে উদ্বিগ্ন হাটহাজারীর গড়দুয়ারা নয়াহাট বাজার এলাকার হালদা পাড়ের ডিম সংগ্রহকারী মৎস্যজীবী কামাল সওদাগর জানান, দ্রুত বংশ বিস্তারকারী মাছটি জলজ পোকামাকড় ও শেওলার পাশাপাশি ছোট মাছ এবং মাছের পোনা খেয়ে থাকে। যদিও নদীতে হালদায় সাকার ফিশ ছড়িয়ে পড়ে তাহলে নদীর মাছ ও জীববৈচিত্র্যের জন্য বেশ ক্ষতি হবে। 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হালদা গবেষক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. মনজুরুল কিবরিয়া বলেন, সাকার ফিশ, যার পুরো নাম সাকার মাউথ ক্যাটফিশ। বৈজ্ঞানিক নাম হিপোসটোমাস প্লেকোসটোমাস। এটি দেশীয় জীববৈচিত্র্য এবং জলাশয়ের জন্য হুমকি স্বরূপ। এই মাছের বিস্তৃতি হালদার জন্য একটি অশনিসংকেত। এরা খুব অল্প অক্সিজেনে বাঁচতে পারে এবং দ্রুত বংশ বৃদ্ধি করতে পারে। তা ছাড়া সাকার ফিশের পাখনা খুব ধারালো। ধারালো পাখনার আঘাতে সহজেই অন্য মাছের দেহে ক্ষত তৈরি হয় এবং পরবর্তীতে পচন ধরে সেগুলো মারা যায়। 

অন্যদিকে চট্টগ্রাম জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফারহানা লাভলী জানান, হালদা নদীর মা মাছ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সাকার ফিশের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার পাশাপাশি কার্যকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের তীর জুড়ে ভাঙন

    ইনকিউবেটরে জন্ম নেওয়া ১১ অজগরের বাচ্চা ইকোপার্কে অবমুক্ত

    রাজ–পরীর ঘরে আরও ৪ সাদা শাবক

    বিক্রির জন্য আটকে রাখা ২০ পাখি জব্দ, পৌর পার্কে অবমুক্ত

    অশনির প্রভাবে পাঁচ বিভাগে ভারী বৃষ্টি হতে পারে

    খাবারের সন্ধানে এসে কাদায় আটক হাতি, বন বিভাগের উদ্ধার

    চোখ ওঠা নিয়ে বিদেশ ভ্রমণ না করার অনুরোধ

    ‘ভার্চুয়াল অ্যাকাউন্ট ফর পেমেন্ট’ সল্যুশন চালু করল স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

    ইউরোপে গ্যাস সরবরাহ লাইনে ছিদ্র, অভিযোগের আঙুল রাশিয়ার দিকে

    ইস্টার্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনায় টিএমএসএসের জন্য ১,২২৪ মিলিয়ন টাকা সংগ্রহ

    সাফজয়ী দলকে সংবর্ধনা দিল বাংলাদেশ সেনাবাহিনী 

    বছরের প্রথম টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় বাংলাদেশের