Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

হত্যার হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে গোটা পরিবার, সংবাদ সম্মেলনে নিরাপত্তা দাবি

আপডেট : ১৯ মার্চ ২০২২, ১৬:৩৮

গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন নিহত মেজবাহুলের ভুক্তভোগী পরিবার। ছবি: আজকের পত্রিকা গত বছর স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। আসামিরা জেল থেকে জামিনে বের হয়ে, ভুক্তভোগী নারীসহ পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন। হত্যা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য তাঁরা পরিবারটিকে এ হুমকি দিচ্ছেন। আর এদিকে জীবন বাঁচাতে ওই পরিবারের শিশু, নারী সদস্যরাসহ বিভিন্নভাবে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এমন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হস্তক্ষেপ দাবি করছেন অসহায় ওই পরিবারটি।

আজ শনিবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন নিহত মেজবাহুল ইসলামের স্ত্রী মরিয়ম বেগম। তিনি গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের দরবস্ত পূর্বপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

সংবাদ সম্মেলনে মরিয়ম বেগম বলেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ২১ সালের ১১ আগস্ট রাতে তাঁর ছেলে মমিনুল ইসলাম ওরফে মমিনকে দরবস্ত পূর্বপাড়া মসজিদের সামনে আটকে রেখে মারধর করে একই এলাকার বখাটে সন্ত্রাসী সৌমিক ও তার সহযোগী সন্ত্রাসীরা। পরে তারা সম্মিলিতভাবে তাঁর ছেলে মমিনকে জখম করে চাপের মুখে তাঁর বাবা মেজবাহুলকে খবর দিতে বলে। ছেলে আটকের খবর পেয়ে মেজবাহুল দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছা মাত্রই আসামিরা তাঁকে এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করে। এ সময় তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তাঁর মৃত্যু নিশ্চিত করার জন্য সন্ত্রাসীরা সম্মিলিতভাবে তাঁর বুকে, পাঁজরে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে স্টিলের পাইপ ও জিআই তার দিয়ে উপর্যুপরি মারধর করে তাঁর শ্বাসরোধের চেষ্টা চালায়। খবর পেয়ে মরিয়ম ও বাড়ির সদস্যরা মেজবাহুলকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান। তাঁর অবস্থা গুরুতর হওয়ায় পলাশবাড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় মরিয়ম বেগম বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। 

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, ‘আসামিরা হাইকোর্ট থেকে জামিনে এসে মামলা তুলে নিতে প্রাণনাশসহ নানা ধরনের হুমকি দিচ্ছেন। হাইকোর্টের দেওয়া অন্তর্বর্তীকালীন জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও পুলিশ আসামিদের এখনো গ্রেপ্তারের উদ্যোগ নিচ্ছেনা। ফলে পরিবারের লোকজন চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সম্প্রতি আসামিরা আমাদের পরিবারের সদস্যদের প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যার ভয় দেখাচ্ছে। এ কারণে পরিবারের শিশু ও নারীরাও পালিয়ে বেড়াচ্ছি।’ 

এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হস্তক্ষেপ দাবি করেন মরিয়ম বেগম। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন নিহত মেজবাহুলের মেয়ে জাহানুর বেগম, ছেলে বউ সুমি বেগম, ভাবি বেলী বেগম, মা ময়জান বেওয়াসহ পরিবারের ছোট শিশুরা। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে হত্যা মামলার ১ আসামি গ্রেপ্তার 

    নাশকতার মামলায় স্বেচ্ছাসেবক দলের ৭ নেতা রিমান্ডে

    পদ্মা নদীতে ভাসমান মরদেহের পরিচয় মিলেছে

    পরীক্ষায় খারাপ করায় অভিমান করে ঘরছাড়া, ১২ দিন পর উদ্ধার 

    ১২ লাখ টাকা নিয়েও চাকরি দেননি, ভুক্তভোগীর লাশ নিয়ে অভিযুক্তের বাড়িতে স্বজনদের অবস্থান

    এবার ভালোবাসার টানে দিনাজপুরে এলেন অস্ট্রিয়ান যুবক

    বিসিএস ভাইভা প্রস্তুতি: ভালো উপস্থাপনা জরুরি

    চবির হলে ৪ ছাত্রলীগ নেত্রীর মধ্যে মারামারি, তদন্ত কমিটি গঠন

    ভেন্টিলেশনে সালমান রুশদি, কথা বলতে পারছেন না

    আষাঢ়ে নয়

    তুইও মরবি, আমাদেরও মারবি

    বস্তি, দোকানে কোটি টাকা ভাড়া-বাণিজ্য