Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

বৈরান নদীর বিপজ্জনক বলাটা সেতু

ভারী যান চলাচল বন্ধ দেড় বছর

আপডেট : ১৩ মার্চ ২০২২, ১১:৩৪

গোপালপুর-ভূঞাপুর সড়কের বৈরান নদীর ওপর নির্মিত বলাটা সেতুর সংযোগ সড়কে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। ছবি: আজকের পত্রিকা দুই বছর আগে একটি স্ল্যাব ও দুটি গার্ডারে ফাটল ধরে। সেতুতে ভারী যানবাহন উঠলেই কাঁপত। তাই দেড় বছর আগে যান পারাপার বন্ধের জন্য বিপজ্জনক সাইনবোর্ড দেওয়া হয়। তাতেও কাজ হয়নি। তাই সেতুর দুই পাশের মাটি খুঁড়ে করা হয়েছে খন্দক। ব্যস্ততম গোপালপুর-ভূঞাপুর সড়কের বৈরান নদীর ওপর এমন জীর্ণ সেতু নিয়ে বিপাকে পড়েছে দুই উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ।

পৌরসভার সুতী পলাশ এলাকার সাবেক কমিশনার সাইফুল ইসলাম জানান, ১৯৯২-৯৩ অর্থবছরে প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে বৈরান নদীর ওপর বলাটা সেতু নির্মাণ করা হয়। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী, মধুপুর ও গোপালপুরের মানুষ ভূঞাপুর হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পাড়ি দিয়ে উত্তরবঙ্গে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহনে এই সেতু ব্যবহার করে। দুই বছর আগে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) বৈরান নদী খননের সময় অপরিকল্পিতভাবে সেতুর নিচের মাটি কেটে নেয়। পরে বর্ষাকালের স্রোতে মাটি ধুয়ে সেতুর পিলার আলগা হয়ে যায়। ফলে সেতুটি বিপজ্জনক হয়ে পড়ে।

উপজেলা এলজিইডি অফিস জানায়, ১ হাজার মিটার চেইনেজ ও ৮০ মিটার দীর্ঘ আরসিসি গার্ডারের বলাটা সেতুর একটি স্ল্যাব ও দুটি গার্ডারে ফাটল ধরেছে। ফলে সেতুটির এক পাশ কিছুটা কাত হয়ে গেছে। ভারী যানবাহন উঠলে এটি কাঁপতে থাকে। যেকোনো সময় সেতুটি ধসে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে।

গোপালপুর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী সুমন মাহমুদ বলেন, ‘এ সেতু দিয়ে প্রতিদিন অনেক শিক্ষার্থী স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় ঝুঁকি নিয়ে যায়। আমরা কর্তৃপক্ষের কাছে এখানে দ্রুততার সঙ্গে একটি নতুন সেতু নির্মাণের দাবি করছি।’

মাদারজানী গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক জুলহাস উদ্দিন বলেন, ‘এই সেতু দিয়ে গোপালপুর উপজেলা শহরে যেতে সময় লাগে মাত্র ১০ মিনিট। কিন্তু সেতুটি নড়বড়ে হয়ে যাওয়ায় অনেক ঘুরে শহরে যেতে হয়। এতে ঘণ্টাখানেক সময় লাগে।’

ভারী যান চলাচল বন্ধ দেড় বছর বলাটা সেতু দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াতকারী সোলায়মান হোসেন, মোতালেব মিয়া ও মোজাম্মেল হক বলেন, এই সেতু দিয়ে টাঙ্গাইলের তিনটি উপজেলার মানুষ খুব সহজে বঙ্গবন্ধু সেতু পাড়ি দিয়ে উত্তরবঙ্গে যাতায়াত করে। তবে ঢাকা, ময়মনসিংহ অথবা টাঙ্গাইলে অ্যাম্বুলেন্সে করে রোগী নিতে প্রায় ২৫ কিলোমিটার পথ বেশি ঘুরতে হয়। জনগণের ভোগান্তি লাঘবে ঝুঁকিপূর্ণ এই সেতু ভেঙে এখানে নতুন একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানাচ্ছি।

আলমনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মোমেন বলেন, এলজিইডি প্রায় সাড়ে ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে গোপালপুর-ভূঞাপুর ভায়া ফলদা সড়ক নির্মাণ করছে। কিন্তু জীর্ণ ও নড়বড়ে বলাটা সেতু ভেঙে সেখানে নতুন সেতু নির্মাণ না করায় জনগণ সড়কের সুফল পাচ্ছে না। টানা দুই বছর ধরে উপজেলা পরিষদের উন্নয়ন ও সমন্বয় কমিটির সভায় এ সেতু নিয়ে কথা হয় এবং ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করা হয়। কিন্তু এলজিইডি মানুষের দুর্ভোগকে পাত্তা দিচ্ছে না। ভারী ও মাঝারি যানবাহন ২০-২৫ কিলোমিটার ঘুরে গন্তব্যে যেতে ভোগান্তি হচ্ছে।

গোপালপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ বলেন, বলাটা সেতুর বিপজ্জনক অবস্থা এবং মানুষের ভোগান্তি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিকবার চিঠি দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. পারভেজ মল্লিক ভোগান্তির সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, আপাতত এখানে বেইলি সেতু নির্মাণের সুপারিশ করা হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ঢাকার খামারগুলোই এখন হাট

    ৮-১০ ঘণ্টাই থাকে না বিদ্যুৎ

    পিয়ন ছাড়া কেউ নেই অপেক্ষায় সেবাপ্রার্থী

    এখন ব্যস্ততা কামারদের

    সড়কের বুকে ভয়ংকর ক্ষত

    ঘন ঘন লোডশেডিং অতিষ্ঠ জনজীবন

    বিএম ডিপো থেকে পণ্যভর্তি অক্ষত কনটেইনার সরানো শুরু

    পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল চালু হচ্ছে এ মাসেই

    কিশোরী নেতৃত্ব এবং কর্মশালাবিষয়ক সেমিনার

    পুলিশের গুলিতে নিহত জেল্যান্ড ওয়াকারের মরদেহে পরানো হয়েছিল হাতকড়া

    পাবনায় স্বামীর বিরুদ্ধে ছুরিকাঘাতে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ

    সিলেটে ব্লগার অনন্ত হত্যা: বেঙ্গালুরুতে গ্রেপ্তার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ফয়সাল