Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের অনেক ক্ষতি করছেন: এমপি একরামুল

আপডেট : ১০ মার্চ ২০২২, ১৫:৪২

ওবায়দুল কাদের ও একরামুল করিম চৌধুরী। ফাইল ছবি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে আজ বৃহস্পতিবার লাইভে আসেন নোয়াখালী-৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনের সাংসদ একরামুল করিম চৌধুরী। তিনি লাইভে এসে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে সমালোচনা করেন। ১৮ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের ভিডিওটি মুহূর্তেই ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। পরে অবশ্য তিনি লাইভ ভিডিওটি সরিয়ে নেন।

লাইভে একরাম করিম চৌধুরী বলেন, ‘কাদের ভাই, নোয়াখালী আওয়ামী লীগকে বাঁচান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে বাঁচান। আপনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অনেক ক্ষতি করে যাচ্ছেন, যে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আওয়ামী লীগকে অনেক কষ্ট করতে হবে। আপনি কেন বোঝেন না, নেত্রী বিভিন্ন জায়গা থেকে আপনাকে চুপ থাকার জন্য বলছেন। আপনার এক্টিভিটিজ কেউ পছন্দ করছে না। নোয়াখালীর কয়েকজন সুবিধাবাদী লোক ছাড়া নোয়াখালীর বেশির ভাগ মানুষের কাছে আপনি ঘৃণিত লোক।’

একরামুল চৌধুরী বলেন, ‘বড় ভাইয়ের স্থানটি আমি ওবায়দুল কাদের ভাইকে দিয়েছিলাম। কিন্তু উনি ওনার ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জাকে আমার বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়েছেন। অথচ আপনি (মির্জা) গত ১০-১৫টি বছর আমার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন বুকে হাত দিয়ে বলেন। আপনি আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশে যাওয়ার সময় কোটি কোটি টাকা নিয়েছেন, আজ আপনি সব ভুলে গেছেন। আপনার পায়ে ধরে এখন সবাই সালাম করে, আপনি সাধুবাবা সেজেছেন। জীবন একটা, আজ হোক কিংবা কাল হোক সবাইকে মরতে হবে। কিন্তু আপনি যেগুলো করছেন, সারা জীবন কোম্পানীগঞ্জের লোকজন আপনাকে ঘৃণার চোখে দেখবে। ওবায়দুল কাদের ভাই, আপনি আপনার ভাইকে এক দিনের জন্য আমার হাতে দিন, পিচঢালা রাস্তায় তাকে ছেচিয়ে নেব।’

একরামুল আরও বলেন, ‘আপনি কথায় কথায় বলেন আমার ছেলের হাতে অস্ত্র, আমি ২৬টি খুন করেছি। একটা খুনের প্রমাণ দিতে পারবেন? আপনার পরিবার কী? আপনি নিজেও বলেন, আপনার ভাগনেরা বলে আপনারা রাজাকার পরিবার। এ কথা আমি বলার কারণে আপনার বড় ভাই (ওবায়দুল কাদের) আমাকে জেলা আওয়ামী লীগ থেকে বাদ দিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু আপনারা কি ইতিহাস পরিবর্তন করতে পারবেন? আপনি নিজেও তো বললেন আমার বাবা আমার চাচা ওরা রাজাকার ছিল, হিন্দুদের বড় বড় গরু নিয়ে আসছিল। ওবায়দুল কাদেরের বাবা রাজাকার, তিনজন মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করেছেন। আমি বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি, আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান।’

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির উদ্দেশ একরামুল বলেন, ‘নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ এ এইচ এম খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম একটা জালিমের থেকেও খারাপ। ৪০ বছর সে চরবাটাকে শাসন করেছে। কিন্তু কী দুঃশাসন করেছে সেটা আমি এমপি হওয়ার পর জেনেছি। কাদের সাহেবের বিরুদ্ধে আমি ২০০১ সালে ভোট করেছিলাম। ওই অবস্থান থেকে ২০০৮ সালে আমাকে দলে নেওয়া হলো। ২০০৮ সালে এসে নোয়াখালী-৪ আসন থেকে ভোট করার ব্যবস্থা করে দেন কাদের ভাই। উনি মনে করেছেন, ওটা তো বিএনপির ঘাঁটি, একরামুল জিতবে না। তখন অনেক বড় বড় নেতা আমাকে ইঙ্গিতে-আকারে বলেছেন তাঁকে হারিয়ে দেওয়ার জন্য। অনেক কষ্টে কাদের ভাই ১ হাজার ১০০ ভোট নিয়ে জিতলেন। তাও আমার উপজেলা-ইউনিয়নের ভোট নিয়ে।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বিএম ডিপো থেকে পণ্যভর্তি অক্ষত কনটেইনার সরানো শুরু

    পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল চালু হচ্ছে এ মাসেই

    ‘হাইড্রোজেন পার অক্সাইড থেকেই সীতাকুণ্ডের ডিপোতে বিস্ফোরণ’

    শিশুর মরদেহ নিয়ে থানায় হাজির হলেন মা

    চবির অডিও কেলেঙ্কারি: চার মাস পর প্রতিবেদন জমা দিল তদন্ত কমিটি

    কোম্পানীগঞ্জে গরুর বাজারের হাসিল নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ১০ 

    বিএম ডিপো থেকে পণ্যভর্তি অক্ষত কনটেইনার সরানো শুরু

    পতেঙ্গা কনটেইনার টার্মিনাল চালু হচ্ছে এ মাসেই

    কিশোরী নেতৃত্ব এবং কর্মশালাবিষয়ক সেমিনার

    পুলিশের গুলিতে নিহত জেল্যান্ড ওয়াকারের মরদেহে পরানো হয়েছিল হাতকড়া

    পাবনায় স্বামীর বিরুদ্ধে ছুরিকাঘাতে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ

    সিলেটে ব্লগার অনন্ত হত্যা: বেঙ্গালুরুতে গ্রেপ্তার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ফয়সাল