মরদেহ। প্রতীকী ছবি

গাজীপুরের সালনা এলাকায় জোসনা বেগম (৪৫) নামের এক নারীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর মরদেহ ড্রেনে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তারই স্বামীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় তার স্বামী আব্দুল কাদেরকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

জোসনা বেগম রাঙ্গামাটির লংগদু থানার সোনাইল এলাকার আব্দুল কাদেরের স্ত্রী। তারা সপরিবারে সালনা এলাকায় বাসা ভাড়া থাকতেন।

(৬ নভেম্বর) বুধবার বিকেলে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে র‌্যাব-১ ও পুলিশ।

গাজীপুর র‌্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন গণমাধ্যমকে জানান, সালনা এলাকায় সপরিবারে বাসা ভাড়া থাকতেন জোসনা বেগম। তিনি একটি মেসে রান্নার কাজ এবং তার স্বামী আব্দুল কাদের রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন।

(৩ নভেম্বর) রবিবার ভোরে স্ত্রী রান্নার করার কাজে যাওয়ার সময় এগিয়ে দিতে যায় আব্দুল কাদের। একপর্যায়ে পথে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এসময় আব্দুল কাদের তার স্ত্রী জোসনা বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে মরদেহ ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে রেলওয়ে ব্রিজের নিচের একটি ড্রেনে ফেলে দেয়। জোসনা বেগমকে না পেয়ে তার ছেলে থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেন।

পরে র‌্যাব-১ সদস্যরা বিষয়টি তদন্ত শুরু করে এবং নিহতের স্বামী আব্দুল কাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পোড়াবাড়ী র‌্যাব-১ ক্যাম্পে নেওয়া হয়। ওই সময় আব্দুল কাদের তার স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করেন।

তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সালনা এলাকায় একটি ড্রেন থেকে জোসনা বেগমের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

-শহীদুল ইসলাম/গাজীপুর