Alexa
রোববার, ২৯ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

আসামি ছাড়াতে টাকা নিয়ে, সেই টাকাতেই ইয়াবা কিনে মামলা

আপডেট : ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ২২:২২

আসামি ছাড়াতে টাকা নিয়ে, সেই টাকাতেই ইয়াবা কিনে মামলা গাজীপুরের টঙ্গীতে টাকার বিনিময়ে আসামিকে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে আসামির স্ত্রীর কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে টঙ্গী পূর্ব থানার এক সহকারী উপপরিদর্শকের (এএসআই) বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, তিনি ওই টাকার একটি অংশ দিয়ে কেনা ইয়াবা দেখিয়ে ওই আসামির নামে মামলা দেন ওই এএসআই। এ এএসআইয়ের নাম মমিনুল ইসলাম।

অভিযুক্ত মমিনুল ইসলাম টঙ্গী পূর্ব থানার সহকারী উপপরিদর্শক। মাদকসহ আটকের পর অমিত হাসান নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশ। আসামিকে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে তিনি আসামির স্ত্রীর কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা দাবি করেন। পরে আসামির স্ত্রী ১৬ হাজার ৭০০ টাকা পরিশোধ করলেও আসামিকে না ছেড়ে থানায় এনে মাদক মামলা দেন মমিনুল ইসলাম। 

গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় আরিচপুর বউ বাজার এলাকা থেকে অমিত হাসানকে আটক করা হয়। অমিত টঙ্গীর দক্ষিণ আরিচপুর এলাকার কাজী ভিলায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বসবাস করেন। 

অমিতের স্ত্রী বৃষ্টি জানান, অমিতকে আটকের পরপরই টঙ্গী পূর্ব থানার এএসআই মমিনুল ইসলাম মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে ২০ হাজার টাকা নিয়ে বউ বাজার রেলগেট এলাকায় তাঁকে দেখা করতে বলেন। পরে ১৩ দিনের সন্তানকে খালি বাসায় রেখে টঙ্গী বাজার এলাকায় একটি জুয়েলারির দোকানে স্বর্ণালংকার বন্ধক রেখে ১৬ হাজার ৭০০ টাকা নিয়ে এএসআই মমিনুলকে দেন। 

বৃষ্টি বলেন, ‘টাকা বুঝে পাওয়ার পর মমিনুল বলেন, “মধুমিতা রেলগেট এলাকায় গিয়ে তোমার স্বামীকে ছেড়ে দিব। তুমি বাসায় চলে যাও। ” কিন্তু আমার স্বামীকে না ছেড়ে থানায় নিয়ে যান তিনি। পরে পুলিশের মোটরসাইকেলের পেছনে ছুটতে ছুটতে টঙ্গী পূর্ব থানার গেট পর্যন্ত চলে আসি। তখন এএসআই মমিনুল বলেন, “তোমার স্বামীকে ছাড়া যাবে না। তাকে ৫০০ পিচ ইয়াবার মামলায় চালান দেওয়া হবে। ” এ কথা শুনে টাকা ফেরত চাইলে এএসআই মমিনুল আমাকেও শরীরে করে মাদক পাচারের অভিযোগ এনে মামলা দিয়ে চালান করার হুমকি দেন। পরে গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে ৮ হাজার টাকা ফেরত দেন।’ 

আসামির স্ত্রী বৃষ্টির অভিযোগ, স্বামীকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য এএসআই মমিনুল ইসলামকে ১৬ হাজার ৭০০ টাকা দিয়েছেন তিনি। কিন্তু তিনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তাঁর স্বামীকে ছাড়েননি। টাকা ফেরত চাইলে তাঁকে ৮ হাজার টাকা ফেরত দিয়েছেন। বৃষ্টি বলেন, ‘বাকি টাকা দিয়ে মাল (ইয়াবা) কিনে মামলা দিবেন বলে জানান মমিনুল। আটকের সময় অমিতের কাছে ৮ পিস ইয়াবা পাওয়ার কথা জানালেও (আজ) বুধবার দুপুরে ৫২ পিস ইয়াবা বড়িসহ গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাঁকে আদালতে পাঠিয়েছেন।’ 

এ বিষয়ে টঙ্গী পূর্ব থানার এএসআই মমিনুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি টাকা নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, ‘কিছু টাকা ফেরতও দিয়েছি। আর আমাদের মাল (ইয়াবা) কিনতে কিছু খরচ আছে। তাই বাকি টাকা রেখে দিছি।’ 

এ বিষয়ে টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাবেদ মাসুদ বলেন, ‘আমি বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। যদি সে এমন কিছু বলে থাকে, তাহলে তাকে অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ফরিদপুরে অবৈধ ২০ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কার্যক্রম বন্ধ

    পাঠদান বন্ধ রেখে আ.লীগ নেতাদের শুভেচ্ছা: ‘মহৎ’ কাজ বললেন উপাধ্যক্ষ

    জাবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি বেলাল, সম্পাদক আজাদ

    স্ত্রীর পাশে শায়িত হলেন গাফ্ফার চৌধুরী

    আকর্ষণীয় সব অফার নিয়ে ২ জুন শুরু হচ্ছে পর্যটন মেলা

    জমি ভাড়া নিয়ে দখলের অভিযোগ

    দেখে নিন লিভারপুল-রিয়াল ফাইনালের একাদশ

    বিদেশে প্রশিক্ষণে গিয়ে উধাও কনস্টেবল, উৎকণ্ঠায় বাবা-মা

    ট্র্যাকিং সিস্টেম থেকে একের পর এক উধাও হচ্ছে রুশ প্রমোদতরী

    বিধবা নারীকে বাজারে প্রকাশ্যে লাঠিপেটা, যুবক গ্রেপ্তার

    বোরহানউদ্দিনে ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টার-ফার্মেসিতে অভিযান, ৭৭ হাজার টাকা জরিমানা

    ফরিদপুরে অবৈধ ২০ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কার্যক্রম বন্ধ