Alexa
বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

মনের বাড়িই আসল ঠিকানা

আপডেট : ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:৫৯

মালুমঘাট মেমোরিয়াল খ্রিষ্টান হাসপাতালের মনের বাড়িতে কাজ করছেন এক নারী। ছবি: আজকের পত্রিকা রেখা নম। বয়স পঞ্চাশের কোটায়। শৈশবে আক্রান্ত হন পোলিওতে। এতে দু পায়ের গোড়ালি বেঁকে গেলে পঙ্গু হয়ে যান। অনেক কষ্টে হাঁটা চলা করেন। 

একপর্যায়ে গ্রামের সাধন নমকে বিয়ে করে জীবনে সুখী হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু বিয়ের বছর দেড়েক পরে চট্টগ্রাম শহরের ট্রেন দুর্ঘটনায় স্বামী সাধন তাঁর ডান পা হারান। নিমেষেই সব স্বপ্ন বিলীন হয়ে যায় রেখার। এতে থমকে যায় দুজনের জীবন। দুজনই হয়ে যান পঙ্গু।  

শুরু হয় দুজনের বেঁচে থাকার লড়াই। এর মধ্যে তাদের ঘরে এলো এক কন্যা সন্তান। একপর্যায়ে চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার দমদমা গ্রাম ছেড়ে চলে যান কক্সবাজারের চকরিয়ায়। ধর্মান্তরিত হয়ে চকরিয়ার মালুমঘাট চা বাগান খ্রিষ্টান পাড়ায় বসবাস করতে শুরু করেন। 

স্বামী-স্ত্রী দুজনই বর্তমানে মালুমঘাট মেমোরিয়াল খ্রিষ্টান হাসপাতালের ‘মনের বাড়ি’ পুনর্বাসনকেন্দ্রে কাজ করছেন। বর্তমানে এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে তাঁদের সংসার। মেয়ে কেয়া নম কুমিল্লা নার্সিং কলেজ থেকে পড়ালেখা শেষ করেছে এবং ছেলে পলক নম চট্টগ্রাম টেকনিক্যাল কলেজে অধ্যয়নরত। 

এই ‘মনের বাড়ি’ রেখার মতো অনেক নারীর ঠিকানা। এদের একেক জনের একেক গল্প। কেউবা স্বামী হারিয়েছেন, আবার কেউ স্বামী পরিত্যক্ত হয়েছেন। কিন্তু তাঁরা দমে যাননি। জীবনযুদ্ধে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছেন। 

কক্সবাজার শহর থেকে ৪৭ কিলোমিটার দূরে চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারার মালুমঘাট মেমোরিয়াল খ্রিষ্টান হাসপাতাল। প্রসূতি, দুর্ঘটনাসহ নানা চিকিৎসা সেবায় এ হাসপাতালের সুনাম দীর্ঘদিনের। সম্প্রতি এ হাসপাতালকে আরও বড় পরিসরে সম্প্রসারণ করা হয়েছে। হাসপাতালের পুরোনো টিন সেট ভবনের উত্তর গেটে যেতেই একটি সাইনবোর্ড নজর কাড়ে। তাতে লেখা আছে ‘মনের বাড়ি’। 

মনের বাড়িতে কাঠের পণ্য তৈরির কাজে ডুবে আছেন একজন শ্রমিক। ছবি: আজকের পত্রিকা সাইনবোর্ডের পথ ধরে ঢুকেই ‘মনের বাড়ি’। সুন্দর করে সাজানো গোছানো শোরুম। নানান পণ্যের সমাহার। শিশুদের পুতুল, বাঁশের তৈরি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য, বেড সিট, বালিশ কভার, তোয়ালে, ড্রেস, কাপড়, কৃত্রিম পা আরও কত কিছু। 

এই পণ্যগুলো কোথা থেকে আসছে জানতে চাইলে দায়িত্বরত এক তরুণী জানান, সব পণ্য এখানেই (মনের বাড়ি) তৈরি করা হয়। কয়েক কদম হেঁটে গেলেই দেখতে পাবেন এখানকার পণ্য তৈরির কারখানা। কারখানায় ঢুকতেই দেখা গেল এক পাশে ১৫-১৬ জন নারীর ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এদের কেউ কাপড় সেলাই করছেন, কেউ পুতুলের গায়ে নানা রঙের শৈলীর কাজ করছেন। অন্যদিকে দুজন পুরুষ বাঁশ ও কাঠের পণ্য তৈরির কাজে ডুবে আছেন। যে যার মতোই ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন। অপূর্ব তাঁদের বুনন শৈলী। তাদেরও আছে নানান গল্প। একেক নারীর একেক গল্প। রেখার জীবনের মতো অন্যদের জীবনেও আছে আলাদা আলাদা কষ্ট। কিন্তু তাঁরা সংগ্রাম করে টিকে আছেন। অধিকাংশেরই স্বামী মৃত, অথবা স্বামী ছেড়ে চলে গেছেন। 
 
এখানকার একজন লক্ষ্মী দে। বয়স ৫৮ বছর। বাড়ি হাসপাতাল সংলগ্ন ডুলাহাজারা সাফারি পার্ক এলাকায়। ১৯৮০ সালে বিয়ে হয়। বিয়ের চার বছরের মাথায় স্বামী সুজন দে নিরুদ্দেশ হয়ে যান। বেঁচে আছে কিনা মারা গেছেন-তাও জানেন না। এখন পরিচয়ের খাতায় স্বামী মৃত লেখেন তিনি। 

এই লক্ষ্মী দে খেয়ে না খেয়ে একমাত্র ছেলে চিত্র রঞ্জন দে কে শিক্ষিত করেন। ছেলে এখন হাই স্কুলের শিক্ষক। ছেলে, বউ ও দুই নাতি নিয়ে তাঁর সুখের সংসার। প্রায় তিন যুগ ধরে তিনি ‘মনের বাড়িতে’ কাজ করছেন। তাঁর পরিবারে এখন সুখ শান্তির কমতি নেই। তারপরও তাঁর মন ‘মনের বাড়িতে’ পড়ে থাকে। এখানেই তিনি সব সময় সুখ-শান্তি খুঁজে বেড়ান। 

‘মনের বাড়ির’ ব্যবস্থাপক সাথি দে এই বাড়ির বিষয়ে বলেন, ‘এই মনের বাড়ির রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যুদ্ধাহত, নির্যাতিত ও সুবিধা বঞ্চিত নারীদের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। অনেক যুদ্ধাহত নারী এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন। তাদের মধ্যে বেশির ভাগই মারা গেছেন। বর্তমানে ১৮ জন নারী এখানে কাজ করছেন। এটি একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। এখানকার তৈরিকৃত পণ্য হাসপাতালে সরবরাহ করা হয়। আবার কিছু পণ্য অর্ডারের ভিত্তিতে আড়ংয়েও দেওয়া হয়।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ‘জোরে কথা বলায়’ মাদ্রাসাছাত্রকে মাথায় তুলে আছাড়

    রাঙামাটিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ইনস্যুরেন্স কর্মকর্তার মৃত্যু

    ১০৮টি বিলাসবহুল গাড়ি নিলামে তুলছে কাস্টমস

    উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে পটিয়ার সাংবাদিকদের সাক্ষাৎ

    মিরসরাইয়ে ডাকাত সন্দেহে তিন র‍্যাব সদস্যকে গণপিটুনি

    ঝড়ে উড়ে গেল বিদ্যালয় ভবন, খোলা আকাশের নিচে চলছে পাঠদান

    হতাশা বাড়ছে বাংলাদেশের

    কামারখন্দে অজ্ঞাত বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

    হামলার পরিকল্পনা খুদেবার্তায় জানিয়েছিলেন খুনি

    তীব্র স্রোতে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

    নিলামে দল না পাওয়া এক ক্রিকেটারই কোহলিদের জয়ের নায়ক

    চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ১ অক্টোবর